দুর্গাপুর প্রশাসন সব স্কুল গুলিকে নির্দেশিকা জারি করল পুলকার নিয়ে

0
1070

নিজস্ব সংবাদদাতা, দুর্গাপুরঃ- রাজ্যে পুলকার চালানো নিয়ে বিস্তর জলঘোলা হয়েছে। বেশ কয়েকদিন আগে ধরাও পড়ছে বেআইনি অবৈধভাবে চলাচল করা পুলকারগুলি। এবার দুর্গাপুর প্রশাসন শক্ত হাতে মোকাবেলা করতে চলেছে পুলকার গুলিকে। আজ দুর্গাপুর মহকুমা শাসকের দপ্তরে একটি জরুরি বৈঠকে মিলিত হন সমস্ত স্কুলের প্রিন্সিপাল এবং হেডমাস্টার গন। উপস্থিত ছিলেন দুর্গাপুর পরিবহন দপ্তরের আধিকারিকরা। এ দিনের এই আলোচনা সভায় সমস্ত স্কুলের প্রিন্সিপাল ও হেডমাস্টারদেরকে একটি নির্দেশিকা জারি করল দুর্গাপুর মহকুমা প্রশাসন। যে যে বিষয়গুলি এই আলোচনা সভা থেকে সমস্ত স্কুলের প্রতিনিধিদেরকে জানানো হলো সেগুলি এইরকম,
ক) প্রতিটি স্কুলের প্রিন্সিপাল কে তাদের স্কুলে চলা সমস্ত রকম পুলকার গুলির নম্বর, ড্রাইভার এর নাম, ঠিকানা, মোবাইল নম্বর, ড্রাইভিং লাইসেন্স নম্বর এবং কতগুলি ড্রাইভার আছে তা নথিভুক্ত করতে হবে।
খ) এই সমস্ত বিবরণ স্কুল কর্তৃপক্ষের কাছে এক কপি রাখা হবে এবং পরিবহন দপ্তর দুর্গাপুর ও পার্শ্ববর্তী থানা কে আর একটি করে কপি দিতে হবে। প্রতিটি স্কুলে চলা পুলকার গুলিকে বাণিজ্যিক নম্বর অর্থাৎ কমার্শিয়াল নাম্বার নিতে হবে এবং সেই কমার্শিয়াল ড্রাইভিং লাইসেন্সের কপি, এপিক কার্ড, আধার কার্ড সহ সমস্ত নথি স্কুল কর্তৃপক্ষের কাছে রাখা হবে, প্রয়োজনে তা দুর্গাপুর পরিবহন দপ্তর ও স্থানীয় নিকটস্থ থানাকে দিতে হবে।
গ)প্রতিটি স্কুল কর্তৃপক্ষকে জানাতে হবে তাদের স্কুলে কত গুলি করে বাচ্চা এক একটি পুলকারে যাওয়া-আসা করে এবং সেই সব বিবরণ ছাত্র-ছাত্রীদের অভিভাবকদের কাছ থেকে নিতে হবে এবং যদি কোন ছাত্র-ছাত্রী মাঝপথে পুলকার বদল করেন সেটিও স্কুল কর্তৃপক্ষকে লিখিত ভাবে জানাতে হবে।
ঘ) স্কুলে চলা সমস্ত পুলকার গুলিকে হতে হবে বাণিজ্যিক ভাবে রেজিস্টার্ড অর্থাৎ কমার্শিয়াল রেজিস্ট্রেশন নম্বর থাকা গাড়ি শুধুমাত্র পুলকার হিসেবে ব্যবহার করা যাবে। তৎসহ সেই গাড়ির ফিটনেস সার্টিফিকেট, ইন্সুরেন্স, পলিউশন সার্টিফিকেট সহ সমস্ত বৈধ কাগজপত্র স্কুল কর্তৃপক্ষের কাছে জমা রাখতে হবে ও প্রতিটি পুলকার এর মালিকের নাম মোবাইল নম্বর ফিটনেসের তারিখ, ইন্সুরেন্স, পলিউশন সার্টিফিকেট প্রতিটি গাড়ির বামদিকে চিটিয়ে/লিখে রাখতে হবে যা বাধ্যতামূলক।
ঙ) কোন পুলকারের মাথায় অস্থায়ী ছাদ থাকা চলবে না, যদি কোন গাড়ি গ্যাস দ্বারা পরিচালিত হয় সেক্ষেত্রে স্কুল কর্তৃপক্ষকে নিকটবর্তী থানায় বা দুর্গাপুর পরিবহন দপ্তরে খবর দিতে হবে।
চ) প্রতিটি স্কুল কর্তৃপক্ষকে পুলকার মালিকদের কে জানিয়ে দিতে হবে যে আগামী ১৫ এপ্রিল ২০১৯ র মধ্যে দুর্গাপুর পরিবহন দপ্তর থেকে দেওয়া সার্টিফিকেট নিলে তবেই সেই গাড়ি গুলি ছাত্র-ছাত্রীদের ব্যবহার করার অনুমতি দেওয়া হবে।
ছ) প্রতিটি স্কুল কর্তৃপক্ষকে ছয় মাস অন্তর একটি করে আলোচনা সভা পুলকার মালিকদের সাথে করতে হবে যাতে ছাত্র-ছাত্রীদেরকে সুরক্ষা ও নিরাপত্তা বিষয়ে সুনিশ্চিত করা যায়।
জ) সমস্ত স্কুল কর্তৃপক্ষকে এই নিয়মাবলী ৩০/৪/২০২০ মধ্যে চালু করতে হবে বাধ্যতামূলক।

দুর্গাপুর পরিবহণ দফতরের আধিকারিকরা ও মহকুমা শাসক জানান এই রকম ভাবে আমরা খুব তাড়াতাড়ি সমস্ত পুলকার গুলিকে সুনিশ্চিত করব তাদের সুরক্ষা ও নিরাপত্তা দিতে ছাত্র-ছাত্রীদেরকে। এবার দেখার যে দুর্গাপুরের সমস্ত স্কুল কর্তৃপক্ষ কতটা মেনে চলেন এই নিয়মাবলী।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here