বন্ধুর চাকরির উন্নতি সহ্য করতে না পেরে নৃশংস্যভাবে খুন করল অন্য বন্ধু

0
127

নিজস্ব সংবাদদাতা, বর্ধমানঃ –

গ্রাম থেকে তুলে এনে নিজেই বন্ধুকে রোজগারের রাস্তা দেখিয়েছিল। কিন্তু সেই বন্ধুই নিজের যোগ্যতায় দ্রুত উঁচু পদে উঠে যাওয়ায় প্রতিহিংসায় জ্বলতে জ্বলতে শেষ পর্যন্ত সেই বন্ধুকেই নৃশংস্যভাবে খুন করল অন্য বন্ধু। এই ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য সৃষ্টি হল বর্ধমান শহরে। নিহত যুবকের নাম টুটুল মণ্ডল (১৯)। বাড়ি বীরভূমের সাঁইথিয়ার পাথুরি গ্রাম এলাকায়। নিহত টুটুল মণ্ডলের বাবা প্রভাত মণ্ডল জানিয়েছেন, গত জানুয়ারী – ফেব্রুয়ারী মাসে উচ্চমাধ্যমিক পাশ করা মেধাবী ছাত্র টুটুল মণ্ডলকে তাঁদেরই গ্রামের বিকাশ চন্দ্র ঘড়াই বর্ধমানের ওই রাইস মিলে কাজের ব্যবস্থা করে দেন। শ্রমিক হিসাবে কাজে ঢুকলেও শিক্ষিত হওয়ার সুবাদে মিল মালিক পক্ষ তাকে শ্রমিক থেকে সুপারভাইজার পদে উন্নীত করেন। বেতনও বৃদ্ধি হয় তার। আর তারপর থেকেই প্রতিহিংসায় জ্বলতে থাকেন টুটুলের বন্ধু বিকাশ। প্রভাতবাবু জানিয়েছেন, পুজোর সময় নবমীর দিন টুটুল বাড়ি যায়। কিন্তু পরের দিনই বিকাশ তাকে মিলে কাজ আছে বলে নিয়ে চলে আসেন। প্রভাতবাবু জানিয়েছেন, টুটুলের এই কাজের ক্ষেত্রে উন্নতির ঘটনায় বিকাশ টুটুলকে প্রায়ই হুমকি দিচ্ছিল। মিলের কাজ ছেড়ে দেবার জন্য চাপ দিচ্ছিল। এমনকি মিলেই তাকে নানাভাবে অত্যাচারও করছিল। তাকে প্রাণে মেরে ফেলারও হুমকি দিচ্ছিল। প্রভাতবাবু জানিয়েছেন, এই হুমকির বিষয়ে টুটুল বাড়িতেও জানিয়েছিল। তিনি জানিয়েছেন, বুধবার রাতে বিকাশই টুটুলের কাকা সুমন মণ্ডলকে ফোন করে জানান, টুটুল গুরুতর অসুস্থ। এই খবর শুনে রাতেই তাঁরা বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চলে আসেন এবং টুটুলের রক্তাক্ত মৃতদেহ শনাক্ত করেন। সুমন মণ্ডল জানিয়েছেন, টুটুলের মাথার পিছনে ভারী লোহার বস্তু দিয়ে থেঁতলে দেওয়া হয়েছে। তার গলায় পেঁচানোর দাগও রয়েছে। নৃশংস্যভাবে তাকে খুন করা হয়েছে। এই ঘটনায় বিকাশের ফাঁসির আবেদন করেছেন টুটুলের পরিবারের লোকজন। এব্যাপারে বর্ধমানের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার প্রিয়ব্রত রায় জানিয়েছেন, খুনের বিষয়টি বিকাশ স্বীকার করেছেন। খুন করার পরই বৃহস্পতিবার রাতেই সে বর্ধমান থানায় আত্মসমর্পণের চেষ্টাও করে। কিন্তু ভয় পেয়ে পালিয়ে যায়। যদিও বৃহস্পতিবার সকালে সে নিজে এসেই থানায় আত্মসমর্পণ করে এবং টুটুলকে খুনের কথা স্বীকার করেছে। পুলিশী জিজ্ঞাসাবাদে বিকাশ জানিয়েছে, টুটুলের উন্নতি সে পছন্দ করছিল না। তার ভাল লাগছিল না। কারণ সুপারভাইজার হওয়ায় টুটুলই তাকে কাজের নির্দেশ দিচ্ছিল। এটা তিনি সহ্য করতে পারছিলেন না। আর তাই বৃহস্পতিবার রাতে মদ খেয়ে রাগের মাথায় টুটুলকে খুন করেন। বন্ধু ও সহকর্মীকে খুনের ঘটনায় ধৃত রাইসমিল কর্মী বিকাশ গড়াইকে হেফাজতে নিল পুলিস। রাইসমিলের ধান পরীক্ষক সজল মণ্ডল থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। তার ভিত্তিতে খুনের মামলা রুজু করে বিকাশকে গ্রেপ্তার করে পুলিস। খুনের কথা ধৃত কবুল করেছে বলে পুলিসের দাবি। পেশাগত ঈর্ষা থেকে সে সহকর্মী টুটুল মণ্ডলকে খুন করেছে বলে জিজ্ঞাসাবাদে জানায় ধৃত। পাইপ রেঞ্জ ও ছুরি দিয়ে টুটুলকে খুন করা হয় বলে জেনেছে পুলিস। শুক্রবার ধৃতকে বর্ধমান আদালতে পেশ করা হয়। খুনে ব্যবহৃত রেঞ্জ ও ছুরি উদ্ধারের জন্য এবং ঘটনার পুনির্নর্মাণ করতে ধৃতকে ৫ দিন নিজেদের হেফাজতে নিতে চেয়ে আদালতে আবেদন জানায় পুলিস। ধৃতকে ৩ দিন পুলিসি হেফাজতে পাঠানোর নিরর্দেশ দেন ভারপ্রাপ্ত সিজেএম কোয়েল প্রধান। পুলিস জানিয়েছে, বর্ধমান শহরের আলমগঞ্জ এলাকার একটি রাইসমিলে কাজ করত টুটুল। ঘটনার দিন মোবাইলে পেটিএম অ্যাপস লোড করার কথা বলে টুটুলকে মেসে ডেকে আনে বিকাশ। বন্ধুর ডাকে সাড়া দিয়ে মেসে আসে টুটুল। তারপর তারা দু’জনের ঘরে ঢুকে যায়। রাত ৯টা নাগাদ খাওয়ার জন্য দু’জনকে ডাকতে যান সজল মণ্ডল। মিলের মেস ঘরের মেঝেয় রক্তাক্ত অবস্থায় টুটুলকে পড়ে থাকতে দেখেন সহকর্মী সজল মণ্ডল। বিকাশ খুন করে সাইকেলে চেপে পালিয়ে যায়। মোবাইলে অ্যাপস ডাউনলোড করার সময় আচমকা টুটুলের মাথায় ভারি রেঞ্জ দিয়ে কয়েকবার আঘাত করা হয়। তিনি লুটিয়ে পড়লে মৃত্যু নিশ্চিত করতে তাঁর গলায় বিকাশ এলোপাথারি ছুরির কোপ বসায় বলে পুলিসের অনুমান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here