বুলবুলের প্রভাবে বর্ধমান জেলা জুড়ে ব্যাপক ধানের ক্ষতির আশংকা

0
139

সংবাদদাতা, বর্ধমানঃ- বুলবুলের প্রভাবে ব্যাপক ক্ষতির মূখে পড়লেন পূর্ব বর্ধমান জেলার চাষীরা। লাগাতার দুদিন ধরে বৃষ্টি এবং তার সঙ্গে ঝোড়ো হাওয়ায় ব্যাপক ধানের ক্ষতি হওয়ার মুখে চাষীরা। যদিও কৃষি দপ্তর থেকে এখনও ক্ষয়ক্ষতির বিষয়ে কিছু জানানো হয়নি। জেলা কৃষি আধিকারিক জগন্নাথ চট্টোপাধ্যায় জানিয়েছেন, জেলার প্রতিটি ব্লকেই কৃষি দপ্তরের উদ্যোগে সার্ভে চলছে। এখনও রিপোর্ট এসে পৌঁছায়নি। অন্যদিকে, কার্যত পাকা ধানে মই-এর মুখে চাষীরা। কারণ আর দু-তিন সপ্তাহ পর থেকেই ধান কাটার কাজ শুরু হওয়ার কথা। তার আগে পাকা ধানের গাছ জমিতে নুইয়ে পড়েছে। জলে ডুবে রয়েছে পাকা ধানের গাছ। ফলে মাটিতে নুইয়ে পড়া সেই ধান আর ঘরে তুলতে পারবেন না বলে আশঙ্কা চাষীদের। ব্যপক ক্ষতির আশংকা গলসী, ভাতার, রায়না, খন্ডঘোষ, বর্ধমান ১ ও বর্ধমান ২ এর চাষীরা। ফসলের ব্যাপক ক্ষতির আশংকা রয়েছে কালনা ও কাটোয়ার বেশ কিছু অঞ্চলেও। যদিও এখনও জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ক্ষয়ক্ষতির হিসাব সম্পর্কে কিছু জানানো হয়নি। উল্লেখ্য, এবছর ধানরোপণের সময় পর্যাপ্ত বৃষ্টিপাত না হওয়ায় এবং জলাধারে জল কম থাকায় অনেক চাষীকেই অতিরিক্ত টাকা দিয়ে সাবমার্সিবলের জলে চাষ করতে হয়েছে। ফলন ভালো হলেও বুলবুলের প্রভাবে ঝোড়ো হাওয়া ও বৃষ্টিতে সেই ধান নষ্ট হতে বসেছে।আবার কোথাও জমি থেকে জল নেমে গেলে কিছুটা ফসল পাওয়ার আাশা থাকলেও তা মেশিনে কাটা যাবে না। দিনমজুর দিয়ে ফসল কাটাতে হবে। ফলে খরচ উঠবেনা বলেই জানাচ্ছেন চাষীরা। মাথায় হাত চাষীদের। তারা কি করবেন তা বুঝতে পারছেন না। একইসঙ্গে চাষীরা জানিয়েছেন, জলের মধ্যে ধান ডুবে থাকলে চালে দাগ হওয়ার সম্ভাবনা। এমনকি পাকা ধানে অঙ্কুর গজিয়ে যাবারও আশংকা রয়েছে। ফলে ধানের দাম না পাওয়ারই আশংকা করছেন চাষীরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here