করোনা আতঙ্কে বন্ধ শিল্পাঞ্চলে খবরের কাগজ বিতরণ

0
248

নিজস্ব সংবাদদাতা, দুর্গাপুরঃ- সারা বিশ্বজুড়ে যখন করোনাভাইরাস এর দাপটে লকডাউন পরিস্থিতি তৈরী হয়েছে। তখন আমাদের দেশ ভারতবর্ষ আজ থেকে আরও বেশ কয়েকদিন লকডাউন পরিস্থিতিতে থাকার অনুরোধ জানিয়েছেন দেশের প্রধানমন্ত্রী ও রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী। এমত অবস্থায় ছাড় দেওয়া হয়েছে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্র দুধ, ফল ও কাঁচা সবজির দোকান গুলিকে।

দুর্গাপুর শহরে প্রত্যেকদিন সবমিলিয়ে প্রায় ৮০,০০০ বিভিন্ন ভাষার খবরের কাগজ দুর্গাপুরের মানুষের বাড়ির দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতেন দুর্গাপুরে হকাররা। কিন্তু বেশ কয়েকদিন হলো তারা নিজেদের মধ্যে আলাপ আলোচনা করে সেই খবরের কাগজ বিতরণের ব্যবস্থাটি সম্পূর্ণভাবে বন্ধ করে দিয়েছেন আগামী ৩১ মার্চ পর্যন্ত। দুর্গাপুর শহরে মোট ৪০০ জন হকার খবরের কাগজ বিতরনের কাজে নিযুক্ত আছেন বলে জানা গেছে। দুর্গাপুর শহরের মূলত দুটি জায়গা থেকে সমস্ত খবরের কাগজ বিতরণ করা হয় একটি দুর্গাপুর স্টেশন এবং দ্বিতীয়টি গান্ধী মোড় থেকে। এই কয়েকদিন ধরে খবরের কাগজ না পেয়ে যখন হকারদের ফোন করে জানতে চান শিল্পাঞ্চলবাঁশি, কেন খবরের কাগজ তারা নিয়মিত পাচ্ছেন না? তখন তারা জানান যে করোনাভাইরাস এর আতঙ্কে তারা আতঙ্কিত এবং সেই জন্যই তারা সমস্ত রকম খবরের কাগজ বিতরণ থেকে বিরত থাকছেন ৩১ মার্চ পর্যন্ত। এরপর তারা আলোচনার মাধ্যমে সিদ্ধান্ত নেবেন আগামী দিনে তারা কিভাবে খবরের কাগজ বিতরণ করবেন।

মুদ্রিত খবরের কাগজ থেকে করোনা ভাইরাস ছড়ায় না এমনই মত বিশেষজ্ঞদের। কিন্তু সাধারণ মানুষের মনে করোনাভাইরাস এর জন্য যে আতঙ্ক তৈরি হয়েছে তার জন্যই তারা খবরের কাগজ বিতরণ বা গ্রহণ করতে অনিচ্ছা প্রকাশ করছেন। বিভিন্ন বড় বড় সংবাদপত্র অফিস গুলির পক্ষ থেকে বারবার প্রচার করা হচ্ছে যে তারা সমস্ত রকম সাবধানতা অবলম্বন করে তাদের পাঠকদের বাড়িতে খবরের কাগজ পৌঁছে দিতে চান। সেই জন্য তারা হকারদের হ্যান্ড গ্লাভস, মাক্স ও বিতরণ করেছেন। কিন্তু তাও হকারদের মন থেকে করোনা ভাইরাসের আতঙ্ক যাচ্ছে না। পুরো দুর্গাপুর শিল্পাঞ্চল জুড়ে তাই ব্যাহত হয়েছে খবরের কাগজ বিতরনের কাজ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here