বিয়ে করতে গিয়ে পাত্রী ও পাত্রপক্ষ হাতাহাতি, টেবিল, চেয়ার ভাঙচুর, থানায় অভিযোগ দায়ের

0
180

সংবাদদাতা, ক্যানিং:- বিয়ে করতে গিয়ে পাত্রী পক্ষের ওপর ব্যাপক হামলা চালাল পাত্রপক্ষ। এই চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটেছে দক্ষিন ২৪ পরগনার ক্যানিংয়ে। এই অত্যাচারের বদলা নিতে কনেপক্ষ পাত্রপক্ষকে বেশ কিছুক্ষন আটকেও রাখে। কিছুক্ষন পর অবশেষে পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হয়।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায় যে, দক্ষিন ২৪ পরগনার সোনারপুরের বাসিন্দা এক যুবকের সাথে ক্যানিংয়ের জয়মাখালির এক তরুণীর বিয়ে ঠিক হয়েছিল। দুই পরিবারের তরফ থেকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল যে ১ লা ডিসেম্বর এই বিবাহ সম্পন্ন হবে। তাই সেই মতোই করা হয়েছিল আয়োজন। রবিবার সকাল থেকেই শুরু হয় কনেপক্ষের বাড়িতে আত্মীয় স্বজনের ভিড়। চলছিল রান্নাবান্না, সেজে উঠেছিল বিয়ের মণ্ডপও। ঠিক সময় তো পাত্রপক্ষও পৌঁছায় বিয়ে বাড়িতে। কিন্তু হঠাৎই ঘটে বিপত্তি। বিয়ের মণ্ডপে শুরু হয় চিৎকার চেঁচামেচি। দেখা যায় যে, পাত্রপক্ষ কোনো কথাই শুনতে রাজি নন কনেপক্ষের। রাগের বশে বিয়ের টেবিল, চেয়ার ভাঙচুর করে পাত্রপক্ষ। লাথি মেরে ফেলে দেওয়া হয় পাত্রীকে, কনেপক্ষের অনান্য সদস্যদেরও ব্যাপক মারধর করা হয়। কনেপক্ষ থেকে ঘটনার প্রতিবাদ করতে গেলে দুতরফ থেকেই শুরু হয় বেমালুম হাতাহাতি। সুযোগ বুঝে কনেপক্ষ পাত্র পক্ষকে একটি ঘরে বন্দি করে ফেলে। এরপর কনেপক্ষ ক্যানিং থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হলে গভীর রাত্রে পাত্রপক্ষ নিজের নিজের বাড়ি ফেরে। কিন্তু কেন এই রকম অবাস্তব ঘটনা ঘটল বিয়ে মন্ডপে তা নিয়ে এক রহস্য দাঁনা বেঁধেছে।
স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, পাত্রপক্ষ কনেপক্ষের থেকে ২৫ হাজার টাকা নগদ দাবি করেছিল। কিন্তু কনেপক্ষ সেই টাকাটা দিতে পারেনি। আবার এটাও জানা গেছে যে কনেপক্ষ যে খাওয়া দাওয়ার আয়োজন করেছিল তাতে পাত্রপক্ষ সন্তোষ্ট হয়নি। তাই নিয়ে এই অশান্তি। বিয়ের মন্ডপে এহেন ঘটনায় ভেঙে পড়েছেন কনেপক্ষ। পুলিশের তরফ থেকে জানানো হয়ছে, এই ঘটনায় এখনো পর্যন্ত কোনো লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়নি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here