“জঙ্গল কেটে খাদান নয়” হুঁশিয়ারি দিল আদিবাসী গাঁওতা

0
142

বিশেষ প্রতিনিধি, সিউড়িঃ-

সরকারের মনোভাব যতো দৃঢ় হচ্ছও, একাট্টা হচ্ছঅ, ততো বীরভূমের পাঁচামি ডেউচার আদিবাসী পরিবারগুলি। এখন নিজেদের ঘর বাড়ি থেকে উচ্ছেদের মুখে জঙ্গল অধ্যুষিত শ্রমজীবী মানুষেরা ফের জানিয়ে দিলো জোর করে তুলে দিতে এলে মরণপণ লড়াই এ যাবে জল জঙ্গলের মানুষ । হাতে তুলে নেবে তীর-ধনুক। প্রস্তাবিত ডেউচার -পাঁচামি খোলামুখ খনির প্রকল্পের জন্য প্রয়োজন ১১০০ একর জমি। ওই জমির মাটির তলার কয়লা কাটতে হলে তুলে দিতে হবে .৩৪ টি গ্রাম। ভিটেমাটি, চাষবাদ, ছেড়ে ছিন্নমূল হবে কম করে দশ হাজার মানুষ। আর এখানেই থমকে গিয়েছে দেশের বৃহত্তম কয়লা খনির ভবিষ্যৎ।

এলাকার আদিবাসীরা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের ঘোষণা করা পূনর্বাসনের প্রকল্পে বিশেষ সাড়া দিচ্ছেন না। আদিবাসীদের দাবি জঙ্গল কেটে কয়লা খনি প্রকল্প চলবেনা । গতকাল আদিবাসী গাঁওতা একটি বৈঠক ডাকে । তাতে যোগ দেয় বামপন্থী সংগঠন “সেভ ডেমোক্রেসি ফোরাম” সেখানে সিদ্ধান্ত একটাই কয়লা খনি চাইনা জঙ্গল থাক যেমন আছে । সাগরবান্দি গ্রামের গণেশ কিস্কু ,দাবা বাথানের ফেলারাম হাসদা , মানি হাসদা সাফ বলেন আমাদের খুবই অভাব, খুবই কষ্ট ,তবুও জঙ্গলকে ধরেই বেঁচে থাকতে চাই।

আদিবাসী গাঁওতা আর “সেভ ডেমোক্রেসি ফোরামের” লোকজনরা দুদিন ধরে ঘুরছেন গ্রামে গ্রামে। তাদের কাছে ৩৪ টি গ্রামের আদিবাসী মানুষেরা মনের কথা জানিয়েছেন শ্যামা চাঁদ বেশ্রা, বাবুলাল টুডু, খোকন মান্ডি ও স্বপন মান্ডি। আদিবাসী গাঁওতার সাধারণ সম্পাদক সুনীল সোরেন বলেন “আমাদের সাথে এলাকার সব আদিবাসীরা আছেন সেভ ডেমোক্রেসি ফোরামকে নিয়ে ৯ নভেম্বর আমরা হরিণডাঙ্গা গ্রামে গন কনভেনশনের ডাক দিয়েছি। সেখানে পাকাপাকিভাবে আমরা সরকারকে জানাবো কয়লা খাদান করতে জঙ্গল কাটা আমরা মানবো না।”

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here