সিঁড়ি একটি, চলে এল দুটি ট্রেনঃ হুড়োহুড়িতে সিঁড়ি থেকে প্যাল্টফর্মে পড়ে বর্ধমানে জখম ১১ { দেখুন ঘটনার সময়কার লাইভ ভিডিও }

0
1469

মান্তু কর্মকার, বর্ধমানঃ- দুটি প্যাল্টফর্মে দুটি ট্রেন। প্ল্যাটফর্মে পৌঁছানোর ওভারব্রীজের দুটি সিঁড়ির একটি বন্ধ। এই অবস্থায় কাতারে কাতারে রেলযাত্রী একসাথে একটি সিঁড়ি দিয়ে ওঠানামা করতে গিয়ে চরম বিপত্তি বর্ধমান জংশন রেল স্টেশনে। শুক্রবার দুপুরে। সন্ধ্যা পর্যন্ত খবরে জানা গেছে, মোট ১১ জন আহত যাত্রীকে বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তবে, রেল সূত্রের খবর, স্বল্প আহত কিছু রেলযাত্রী নিজেরাই প্রাথমিক চিকিৎসার পর চলে গেছেন অন্যত্র।

বর্ধমান রেল ষ্টেশনের কয়েকটি প্ল্যাটফর্মে চলমান সিঁড়ি লাগানোর কাজ চলছে। ফলে, যাত্রী সাধারনের ওঠা নামায় অসুবিধায় সমস্যা বেশ কয়েক মাসের।

এরই মাঝে, শুক্রবার দুপুরে ঘটে গেল ভয়ঙ্কর দুর্ঘটনা। ষ্টেশনের ৪ নং ও ৫ নং প্যাল্টফর্মে সংযোগকারী একটি সিঁড়ি থেকে কংক্রিটের প্যাল্টফর্মে ওপর থেকে নিচে পড়ে গেলেন বহুযাত্রী। ট্রেন ধরার হুড়োহুড়িতে।

বেলা ৩:১০ টায় ষ্টেশনের ৫ নং প্যাল্টফর্মে এসে দাঁড়াল হাওড়াগামী ডাউন পূর্বা এক্সপ্রেস। ট্রেনটি চলছিল ৩ মিনিট দেরীতে। ও দিকে, ৫ নং লাগোওইয়া ৪ নং প্যাল্টফর্মে তখনি এসে দাঁড়ায় পুরুলিয়া লোকাল। ট্রেনটি আসে বর্ধমান কারশেড থেকে। বর্ধমান ষ্টেশন থেকে আসানসোল অভিমুখে ওই আপ ট্রেনটির ছাড়ার নির্ধারিত সময় ৩:২৫ টা।

মূলতঃ আসানসোলগামী পুরুলিয়া লোকালটি ধরার জন্য সে সময় কয়েকশ যাত্রী একসাথে ওভার ব্রীজে ওঠেন। কিন্তু, যেহেতু দুটি সিঁড়ির একটি বন্ধ করে ভেঙে ফেলা হয়েছে চলমান সিঁড়ি বসানোর জন্য, তাই একটি সিঁড়ি ব্যবহার করেই একসাথে ওই যাত্রীরা ৪ নং প্যাল্টফর্মে নামতে চান। আবার, ওই একটি মাত্র চালু সিঁড়ি ব্যবহার করেই ৫ নং প্যাল্টফর্মে আসা ডাউন পূর্বা এক্সপ্রেসের যাত্রীরাও ষ্টেশনের বাইরে যাওয়ার চেষ্টা করেন। তখনি দু’দল যাত্রী কার্যতঃ গতিরুদ্ধ হয়ে পড়েন সিঁড়িতেই। তখনি শুরু হয় ধাক্কাধাক্কি।

“এসময়ই এক যাত্রী অসুস্থ হয়ে পড়েন। বসে পড়েন সিঁড়ির ওপর। তখনি হুড়োহুড়ি পড়ে যায়” বললেন চন্দন দত্ত নামে প্রত্যক্ষদর্শী যাত্রী। তিনি দুর্গাপুর যাবার জন্য প্ল্যাটফর্মেই ছিলেন। তিনি বলেন, ” কিছু বুঝে ওঠার আগেই, অসুস্থ ওই যাত্রীকে মাড়িয়ে তার ওপর দিয়ে কাতারে কাতারে যাত্রী সিঁড়ি বেয়ে নামতে চান”। আরেক প্রত্যক্ষদর্শী বিনোদ বর্মণ প্যাল্টফর্মেই ছিলেন উত্তরবঙ্গেঁ যাওয়ার ট্রেন ধরবেন সন্ধ্যায়। তিনি বলেন, ” দেখলাম বিকট আর্তনাদ করে একের পর এক যাত্রী সিঁড়ি থেকে লাফ মারছেন। পড়ে যাচ্ছেন প্যাল্টফর্মে”।

ঘটনার দরুন ষ্টেশনে প্রায় চল্লিশ মিনিট ট্রেন চলাচল বন্ধ রাখা হয়। রেল পুলিশের আর. পি. এফ এবং জি. আর. পি এক জোট হয়ে দ্রুত পরিস্থিতি মোকাবিলায় নামলেও ঘটনার বিভৎসতায় তারাও কার্যতঃ দিশাহারা হয়ে পড়েন।
পড়ে বর্ধমান সদর থানা থেকে অতিরিক্ত পুলিশ বাহিনী এসে পরিস্থিতি সামাল দেয়। বর্ধমান থানার ওসি পিন্টু সাহা বলেন, “মোট ১১ জন আহত রেল যাত্রীকে হাসপাতালে পাঠানো হয়। এরপরই ওভারব্রীজের সিঁড়ি দিয়ে যাত্রী ওঠানামা নিয়ন্ত্রন করতে রেল পুলিশের পাশাপাশি আমাদেরও ডেকে পাঠানো হয়”।
বর্ধমান ষ্টেশনের ম্যানেজার স্বপন দত্ত নিজে দৌড়ে যান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে। তিনি বলেন, ” ওই ওভারব্রীজে দুটি সিঁড়ির একটিতে কাজ চলায় এই বিপত্তি। ঘটনার পর থেকে ওভারব্রীজ দিয়ে পারাপার করার কাজে পুলিশের সাহায্য নেওয়া হয়েছে। এক শ্রেনীর যাত্রী আতঙ্কিত হয়ে পড়ায় গোলমালের শুরু”।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here