প্রবল বৃষ্টিতে কলকাতা একাংশ বিপর্যস্ত, বৃষ্টির জমা জলে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে রাজ্যে প্রাণ গেলো ১২ জনের

0
244

নিজস্ব সংবাদদাতাঃ- প্রবল বৃষ্টির জেরে কলকাতা-সহ আশেপাশে বিভিন্ন রাস্তায় জল জমে গেছে । বৃষ্টির সেই জমা জলের দুর্ভোগের মধ্যেই মানুষের দুশ্চিন্তা বাড়িয়েছে রাস্তায় পড়ে থাকা বিদ্যুতের খুঁটি ও তার। এর জেরে গত কয়েক দিনে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে রাজ্যে মৃত্যু হয়েছে প্রায় ১২ জনের। এর মধ্যে বুধবার রাত এবং বৃহস্পতিবার সকালে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে তিন জনের মৃত্যু হয়েছে। মৃতদের এক জনের বাড়ি মালদহে। অন্য দু’জন বেলঘরিয়া এবং আগরপাড়ার বাসিন্দা।

বুধবার রাতে আগরপাড়ার তারাপুকুর অঞ্চলে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মৃত্যু হয় দীপক চৌধুরী নামের এক ব্যক্তির। তার বয়স ৬৫ বছর। বৃহস্পতিবার সকালে বেলঘরিয়ার টেক্সম্যাকো কারখানার জমা জলে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মৃত্যু হয়েছে সেখানকার এক শ্রমিকের। মৃত ব্যক্তির নাম সোনা রায় (৪০)। মৃতের সহকর্মীদের অভিযোগ, সোনাকে জমা জলের মধ্যেই কাজ করতে বাধ্য করেন কারখানা কর্তৃপক্ষ। এই মৃত্যুর জন্য কর্তৃপক্ষের উদাসীনতাকে দায়ী করে বিক্ষোভও দেখিয়েছেন শ্রমিকরা।

বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে মালদহের মোথাবাড়ি থানার সারাফততোলায়। এনিয়ে এলাকায় ব্যাপক উত্তেজনা ছড়িয়েছে । পরিস্থিতি সামাল দিতে সেখানে পাঠানো হয় বিশাল পুলিশবাহিনী। মৃতের নাম সিদ্দিকি শেখ (৬০)। স্থানীয়দের অভিযোগ, বিদ্যুৎ দফতরের কর্মীরা কাজ করে চলে যাওয়ার পর মাটিতে পড়েছিল বিদ্যুতের তার। তাতেই বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে ওই ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে বলে দাবি গ্রামবাসীদের।

হবিবপুর থানা রিসিপুর এলাকায় জল আনতে গিয়ে এক গৃহবধূর মৃত্যু হয়েছে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে। মৃতের নাম তুলসী সিংহ। বুধবার মালদহের গাজোলে হরপ্রসাদ ভট্টাচার্য নামের এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। চাষের কাজে যাওয়ার পথে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হন তিনি।

বুধবার দমদমে দুই কিশোরীর মৃত্যু হয় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে। মৃতদের নাম অনুষ্কা নন্দী (১৪) এবং স্নেহা বণিক (১২)। অনুষ্কা বান্ধবনগরের বাসিন্দা এবং স্নেহা মতিঝিলের। রাস্তায় জমা জল পেরিয়ে যাওয়ার সময় একটি বিদ্যুতের খুঁটিতে হাত দিয়েছিল অনুষ্কা। তখনই সে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয় বলে অভিযোগ। তাকে বাঁচাতে গিয়ে মৃত্যু হয় স্নেহারও। আজ সেখানে যান রাজ্যের মন্ত্রী ব্রাত্য বসু এবং তৃণমূল সংসদ সৌগত রায় | তারা সেখানে বিক্ষোভের মুখে পড়েন |

মঙ্গলবার খড়দহে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে একই পরিবারের তিন জনের মৃত্যু হয়েছে। মৃতেরা হলেন রাজা দাস (৩৯), পৌলমী দাস (৩৫), শুভ দাস (১১)। নিজেদের বাড়িতেই বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মৃত্যু হয়েছে তাঁদের।

সোমবার রাতে ত্রাণ দিতে যাওয়ার সময় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মারা গিয়েছেন দুই যুবক। পূর্ব মেদিনীপুরের ভগবানপুর ১ নম্বর ব্লকের ভুপতিনগর থানার ইটাবেড়িয়া এলাকায় ঘটেছিল এই ঘটনা। মৃতদের নাম প্রদীপ মাইতি (৩১) এবং নন্দন মণ্ডল (২৬)। তাঁদের বাড়ি ভূপতিনগর থানার বাগদিবাঁধ গ্রামে |

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here