শপথ নিয়েই ‘বেয়াড়া ‘ পুলিশ জব্দ করা শুরু মমতার, এক দিনেই বদলি ২৭ আই.পি.এস

0
651

বিশেষ সংবাদদাতা, কলকাতাঃ- তৃতীয়বারের জন্য মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েই রাজ্যের কিছু’ বেবাগা ‘পুলিশ অফিসারদের সম্পর্কে তার কড়া মনোভাবের পরিচয় দিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বুধবারই। এই দিনই তিনি দূর ডজনেরও বেশি আই.পি.এস অফিসারকে রাজ্যের এ প্রান্ত থেকে ও প্রান্তে বদলি করলেন । কাউকে জবাব সই চালান করলেন দ্বীপান্তরে তো কাউকে পছন্দ সই প্রাইজ পোস্টিং দিয়ে রাখলেন ভরসার জায়গায়।

রাজ্যে ৮ দফা নির্বাচন চলাকালীনই মমতা’র চোখে লাগে বেশ কিছু থানার ওসি ,ফাঁড়ির ইনচার্জ থেকে আই.পি.এসের আচমকা ভোল বদল। বিভিন্ন জনসভায় প্রচারের ফাঁকে ফাঁকে তিনি মাঝে মধ্যেই পুলিশের ‘বদলে যাওয়া’ এবং রং বদলে চোখ রাঙানির কথা বলেও আসছিলেন। কলকাতায় তৃণমূল ভবনে দলের বিজয়ী বিধায়কদের সাথে প্রথম বৈঠকের প্রাক্কালে গতকালই তিনি জানিয়ে দেন- বেশ কিছু পুলিশ অফিসারের ‘আচরণ’ সম্পর্কে তিনি তার মনস্থির করে রেখেছেন। মমতা বলেন “কিছু পুলিশ অফিসারের আচরণ আমার মাথায় আছে। প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেব।” একথার ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই, শপথের দিনই ২৭ জন আই.পি.এস কে বদলি করে তিনি ইঙ্গিত দিলেন- থানা- ফাঁড়ির ওসি, আই.সিদের ওপরও এবার খাঁড়া নেমে আসতে চলেছে। তৃণমূল কংগ্রেসের এক শীর্ষস্থানীয় নেতা এ দিন জানান ” রাজ্যের বিভিন্ন জেলা, শহর ও ব্লকের বহু রসে বসে থাকা পুলিশ অফিসার যারা এতদিন তৃণমূল কংগ্রেসের নেতাদের নাম ব্যবসা করে তোলাবাজি করে আসছিলেন, তারাই হঠাৎ নির্বাচন ঘোষণার পর মোদি-ভক্ত হয়ে সরাসরি অথবা গোপনে বিজেপির সুবিধা করে দেওয়ার জন্য ভোটের সময় উঠেপড়ে লাগে। কারো কারো কোয়াটারে গত দু’মাস ধরে বিজেপি এবং আর এস এস এর নেতা, হাফ নেতারা রীতিমতো আড্ডা দিচ্ছিল। কেউ কেউ বেপরোওয়া ভাবে তৃণমূলের স্থানীয় নেতা কর্মীদের শাসানি দেওয়াও শুরু করে। দল এসবই নজরে রাখছিল, সেটা ওরা বুঝতে পারেনি ।”

বুধবার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে রাজ্যের ইন্সপেক্টর জেনারেল অব পুলিশ (পার্সোনাল) যে বদলির তালিকা প্রকাশ করেছেন, তাতে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ জেলার পুলিশ সুপার ও পুলিশ জেলার পদস্থ আধিকারিকের পাশাপাশি পুলিশ কমিশনারদের কার্যত ‘গ্যারেজ পোস্টিং’ হয়েছে। আবার কয়েক মাস ধরে গ্যারেজে ঘুমানো কিছু আই.পি.এস ফের জেলা সদরে পুলিশ সুপারের পদ পেয়েছেন। নতুন নির্দেশিকায় এইরকম সাজাপ্রাপ্ত পুলিশ অফিসারদের তালিকা রয়েছেন পূর্ব মেদিনীপুরের পুলিশ সুপার সুনিল যাদব, বারাসাতের ডি.আই.জি -শ্রী মুকেশ, ডায়মনড হারবার পুলিশ জেলার সুপার অরিজিৎ সিনহা ও বাঁকুড়ার পুলিশ সুপার কোটেশ্বর রাও ‘গ্যারেজ পোস্টিং’ গেলেন।

এ দিনের বদলির ঝড়ে সরিয়ে দেওয়া হল আসানসোল-দুর্গাপুর পুলিশের কমিশনার মিতেশ জৈন কেও । নির্বাচন কমিশনই তাকে আসানসোলে বসিয়েছিলেন। অন্যদিকে একটি বিশেষ সূত্র থেকে জানা যায় যে কুচবিহারের পুলিশ সুপার দেবাশীষ ধরকে সন্ধের সময় বদলির নির্দেশ দেওয়া হয় এবং তাকে তৎক্ষণাৎ সাসপেন্ড করা হয় বলে জানা যাচ্ছে । কুচবিহারের নতুন এসপি হলেন কে কান্নান। ভোট চলাকালীন শীতলকুচির একটি ভোটদান কেন্দ্রের গুলি চালানোর ঘটনায় অসন্তুষ্ট মুখ্যমন্ত্রী এই সিদ্ধান্ত নিলেন বলে ওয়াকিবহাল মহল মনে করছেন। আবার বর্ধমান, বাঁকুড়া পুরুলিয়া বীরভূমের পুলিশ সুপারদের সরিয়ে দেওয়া হয়েছে এ দিনই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here