বন্ধুর ও তিন প্রকার ভাগ আছে, আপনার জীবনে আপনি কোন প্রকার বন্ধুদের পেয়েছেন জেনে নিন

0
529

বহরমপুর থেকে সঙ্গীতা চৌধুরীঃ- জীবনে চলার পথে আমাদের অনেক রকম বন্ধুর সাথে ই সাক্ষাৎ হয়। বন্ধুর তিন রকম প্রকারভেদ আছে। ১) বন্ধু, ২) সখা, ৩) সুহৃদ

বন্ধুঃ- এরা অনেকটা বসন্তের কোকিলের মত। এক একটা সময় আসে কিন্তু সারা জীবনের জন্য স্থায়ী হয় না।যেমন স্কুল জীবনে আপনার কিছু নির্দিষ্ট সংখ্যক বন্ধু ছিল আবার কলেজে উঠে নির্দিষ্ট সংখ্যক আবার বিশ্ববিদ্যালয় উঠে নির্দিষ্ট সংখ্যক। এই সকল বন্ধুদের মধ্যে বেশিরভাগ বন্ধুরাই স্কুল,কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় উত্তীর্ণ হওয়ার পর আপনার আর খোঁজ নেয়নি। তাদের সাথে আর আপনার যোগাযোগ ও নেই। এদের কে বন্ধু বলা হয়। একটা সময় আসে আবার একটা সময় পরে চলে যায়। এই বন্ধুই আমাদের জীবনে বেশি থাকে।
সখাঃ- বন্ধু যেমনই হোক সর্বাবস্থায় তার পাশে থাকা। সে ভুল জেনেও তাকে সঙ্গ দেওয়া। এরাই হয় সখা। আপনি ভুল করছেন জেনেও যারা নিজের প্রাণের অধিক আপনাকে ভালোবাসে। যেমন কর্ণ আর দূর্যোধন। দূর্যোধন খারাপ জেনেও কর্ণ মৃত্যুর মুহূর্ত অবধি দুর্যোধনের সঙ্গ দিয়েছেন। দুর্যোধনের জন্য নিজের সমস্ত কিছু ত্যাগ করেছেন তিনি চাইলেই যুধিষ্ঠির তাকে মাথায় করে রাখতেন। কিন্তু তিনি নিজে সেই অগ্রজের অধিকার দাবি করেননি। দুর্যোধনের সখা হয়েই তিনি তার পাশে থেকেছেন। এরকম বন্ধু আমরা সকলেই চাই কিন্তু ভাগ্য থাকলেই এরকম বন্ধু মেলে।
সুহৃদঃ- সুহৃদ সেই যে আসলেই আপনার ভালো চায়। আপনার কাছে বিখ্যাত হওয়া তার স্বপ্ন নয়। আপনাকে ভালো করবার জন্য সে আপনার কাছে খারাপ হতেও প্রস্তুত। আপনার ভালো কাজের যেমন সে প্রশংসা করে তেমনি আপনি খারাপ করলেও সে আপনাকে আপনার ভুলটা চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দেয়। এই সম্পর্ক জন্ম-জন্মান্তরেও স্থায়ী হয়। যেমন- কৃষ্ণ আর অর্জুন। অর্জুনের সকল ভুল কৃষ্ণ দেখিয়ে দিয়েছিলেন। একেই বলা হয় সুহৃদ। এরকম সুহৃদ পাওয়া সত্যিই দুর্লভ। একমাত্র ভগবানই আমাদের প্রকৃত সুহৃদ। আমরা না জেনেই তার কাছে কতকিছু চেয়ে বসি। কিন্তু তিনি আমাদের সেই জিনিসটাই দেন যাতে আমাদের মঙ্গল। আমাদের মঙ্গল করবার জন্য তিনি আমাদের কষ্ট দিতেও পিছুপা হন না। জীবনের একটা স্তরে গিয়ে আমরা ভগবানের সকল কাজের মধ্যে আমরা সেই মঙ্গলময় সত্তাই খুঁজে পাই।বুঝতে পারি তিনি আমাদেরকে যা দেননি তা আসলে আমাদের মঙ্গলের জন্যই দেননি। আর তিনি আমাদের কৃপা পূর্বক যে যন্ত্রনা দিয়েছেন,তাও আমাদের শিক্ষা দেওয়ার জন্যই। অর্জুন ও কি জীবনে যন্ত্রণা পাননি? কিন্তু তিনি কখনোই ভগবানের মতো সুহৃদ কে ত্যাগ করেননি। ঠিক সেই রকম ভাবেই আমাদেরও সুহৃদকে আঁকড়ে ধরা উচিত। কারণ বন্ধু জীবনে প্রচুর পাওয়া যাবে। সখা মিললেও মিলতে পারে। কিন্তু সুহৃদের সন্ধান পেলে জীবনটাই বদলে যাবে। একজন সুহৃদ আপনার আত্মোন্নতি ঘটাতে সাহায্য করবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here