চতুর্থ দফা ভোটে রাজ্যের দুর্গাপুর-বর্ধমান লোকসভা কেন্দ্রের কিছু টুকরো ছবি

0
3223

নিউজ ডেস্ক, এই বাংলায়ঃ ২৯শে এপ্রিল সোমবার রাজ্যে চতুর্থ দফার ভোট গ্রহণ। একাধিক রাজ্যের পাশাপাশি পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমান-দুর্গাপুর লোকসভা কেন্দ্রেও এখনও চলছে ভোটগ্রহন। তীব্র তাপপ্রবাহের সঙ্গে বিক্ষিপ্ত অশান্তির আঁচ। এরই মধ্যে সকাল থেকে ভোটের লাইনে ভোটাধিকার প্রয়োগে সাধারণ মানুষ। সকাল থেকে বিভিন্ন কেন্দ্রে ভোটগ্রহণের খন্ডচিত্র রইল এই বাংলায়।

ঘটনা ১ : অন্ডালের উখরা ১৯১ নম্বর বুথে ভিভিপ্যাট মেশিন খারাপ থাকায় বেশ কিছুক্ষনের জন্য বন্ধ ভোট গ্রহণ।
ঘটনা ২ : অন্ডালের বহুলা উচ্চ বিদ্যালয়ে ৯৭/২৭৫ নং বুথে ইভিএম মেশিন খারাপ থাকায় নির্ধারিত সময়ে শুরু হল না ভোটগ্রহণ।
ঘটনা ৩ : সোমবার সকালে ভোটগ্রহণের শুরু থেকেই খবরের শিরোনামে দুর্গাপুরের জেমুয়া। কেন্দ্রীয় বাহিনীর দাবিতে ভাদুবালা বিদ্যাপীঠে ব্যাপক বিক্ষোভ ভোটারদের। কেন্দ্রীয় বাহিনী না আসা পর্যন্ত ভোটগ্রহণ বন্ধ রাখার দাবিতে বিক্ষোভ গ্রামবাসীদের।
ঘটনা ৪ : পান্ডবেশ্বরের বৈদ্যনাথপুর পঞ্চায়েতের কলেজ পাড়ার ৫৬ নং বুথে ভোটারদের প্রভাবিত করতে চপ, মুড়ি বিতরণের অভিযোগ তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে। ভোটারদের প্রভাবিত করতেই চপ মুড়ি বিতরণ করছে বলে অভিযোগ করে বিজেপি। অভিযোগ অস্বীকার তৃণমূল কংগ্রেসের।
ঘটনা ৫ : ভোটের ডিউটি না করে লটারির দোকানে টিকিট কাটতে ব্যস্ত নিরাপত্তারক্ষী। পাণ্ডবেশ্বর রেল স্টেশন সংলগ্ন এলাকায় এমনই ছবি ধরা পড়ল ক্যামেরায়। সাংবাদিকরা প্রশ্ন করতেই তড়িঘড়ি লটারির দোকান থেকে সরে পরার চেষ্টা করেন নিরাপত্তারক্ষীরা।
ঘটনা ৬ : লাউদোহা গোগলা অঞ্চলে ১৩৭, ১৪৭, ১৪১ এবং অন্যান্য বুথ দখলের অভিযোগ উঠল শাসক দলের বিরুদ্ধে।
ঘটনা ৭ : জেমুয়ায় তীব্র গরমে দীর্ঘক্ষন লাইনে দাঁড়িয়ে থাকায় ভোট দিয়ে বেরিয়ে অসুস্থ হয়ে পড়লেন এক ভোটার। পুলিশি তৎপরতায় তাঁকে হাসপাতালে পৌঁছানো হয়।
ঘটনা ৮ : দুর্গাপুরের ধান্ডাবাগ ২১ নং বুথে ইভিএম মেশিন খারাপ হয়ে যাওয়ায় তিন ঘণ্টা বন্ধ হয়ে পড়ল ভোটগ্রহণ প্রক্রিয়া।
ঘটনা ৯ : ভোট তদারকি করতে এসে গ্রামবাসীদের বিক্ষোভের মুখে পড়লেন আসানসোলের বিজেপি প্রার্থী বাবুল সুপ্রিয়। পাণ্ডবেশ্বর থানার ঘোষ পাড়ায় বাবুলের গাড়ি ঘিরে বিক্ষোভ। বাবুলের উদ্দেশ্যে গো ব্যাক স্লোগান এলাকাবাসীদের।
ঘটনা ১০ : আসানসোলের বারাবনিতে বিজেপি প্রার্থী বাবুল সুপ্রিয়র গাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগ, ভোট প্রদানকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা। জনতাকে ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশের লাঠিচার্জের অভিযোগ।