চলন্ত ট্রেন থেকে ছিটকে পড়ে গুরুতর জখম মহিলা এবং সন্তান

0
538

সংবাদদাতা, হুগলিঃ- চলন্ত ট্রেন থেকে সন্তান কে কোলে নিয়ে ছিটকে পড়লেন মা। ওই গৃহবধূ তার সন্তান কে কোলে নিয়ে জখম এবং রক্তাত্ত অবস্থায় প্রায় ঘন্টাখানেক পড়ে রইলেন রেল লাইনে। এই চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটেছে আরামবাগের তালপুর ষ্টেশনে। পিরু দাস নামে ওই গৃহবধূ তার সন্তান কে কোলে নিয়ে তারকেশ্বর থেকে ট্রেনে আরামবাগের বাড়িতে ফিরছিলেন। কিন্তু ট্রেনটি তালপুর ষ্টেশন থেকে ছেড়ে গতিবেগ নিলেই ওই মহিলাটি সন্তান সমেত ট্রেন থেকে ছিটকে পড়ে যান। প্রায় অনেকক্ষন ধরে রেল লাইনে পরে আর্তনাদ করেন ওই মহিলা। কাঁদতে থেকে অবলা শিশুটিও। অভিযোগের ভিত্তিতে জানা যায়, প্রায় কয়েকঘন্টা ধরে ওই মহিলা ও শিশুর দিকে কেউই সাহায্যের হাত বাড়াতে যায়নি। দেখা মেলেনি আর পি এফের ও। তাই অযথা বাধ্য হয়ে ওই মহিলাই রক্তাত্ত অবস্থায় শিশুটি কে নিয়ে প্রায় দেড় কিলোমিটার হেঁটে ষ্টেশনে পৌঁছান। এই দীর্ঘপথে দেখা মেলেনি পুলিশেরও। ষ্টেশনে পৌঁছলে অনান্য যাত্রীরা রক্তাত্ত এবং জখম অবস্থায় দেখে ওই মহিলা এবং শিশুটি কে। তৎক্ষনাৎ কিছু যাত্রী মহিলা এবং শিশুটি কে তারকেশ্বর গ্রামীন হাসপাতালে ভর্তি করে। কিন্তু অবস্থার অবনতি ঘটতে থাকায় তাদের কে তারকেশ্বর মহকুমা হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়। পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, ট্রেনের কামরায় ওই মহিলার আরো এক ছেলে ছিল। তাকে উদ্ধার করে বাড়ি পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। তারকেশ্বর মহকুমা হাসপাতালের চিকিৎসক বলেন, পিরু দেবী এবং তার ছেলের চোট গুরুতর। পুলিশ পিরু দেবীর পরিবারের লোকেদের সাথে কথা বলেছে। ঘটনার দরুন রেল পুলিশের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে সাধারন মানুষ। এমনকি রেল লাইনে কেন কোনো নজরদারি নেই আর পি এফের সেই প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে রেলের অন্দরেও। পূর্ব রেল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, কেন ওই মহিলা সাহায্য চেয়েও পেলেন না সে বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here