আধার কার্ড সংশোধন – এক জীবন যন্ত্রণা

0
261

জ্যোতি প্রকাশ মুখার্জ্জী,কলকাতাঃ- সরকারি বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা পাওয়ার ক্ষেত্রে বর্তমানে প্রতিটি ভারতবাসীর জীবনের অন্যতম অপরিহার্য অঙ্গ হয়ে উঠেছে আধার কার্ড। বিকল্প হিসাবে কোনো কোনো ক্ষেত্রে আছে প্রাপ্ত বয়স্ক নাগরিকদের ভোটার কার্ড, র‍্যাশন কার্ড, ব্যাংকের পাস বই এবং আরও হরেকরকমের সরকারি পরিচয় পত্র। সেগুলি পাওয়ার জন্য নিয়ম মেনে আবেদন পত্র জমা দিতে হয়। ছবি তোলার ব্যাপার থাকলে আর এক টেনশন। কার্যত সারাদিন লাইনে দাঁড়িয়ে ছবি তুলতে হবে। আধার কার্ডে যে ছবি উঠবে অধিকাংশ গ্রাহক সেটা দেখে আঁতকে উঠতে বাধ্য। এমন ছবি ওঠে যেটা দেখে কার্ডের মালিক নিজেই নিজেকে চিনতে পারেনা। অথচ প্রযুক্তি এখন যথেষ্ট উন্নত। একরাশ মানসিক চাপ সহ্য করে যখন সেগুলো গ্রাহকদের হাতে পৌঁছাবে দেখা যাবে সেখানে একগুচ্ছ ভুল অপেক্ষা করছে। কারও নাম বা পদবীর বানান ভুল, কারও বা ঠিকানায় ভুল। কিভাবে সেই ভুল সংশোধন করা যাবে সেটা ভেবে নতুন করে চাপ বাড়বে। অর্থাৎ সঠিক তথ্য দিয়েও যাবতীয় কাজ ফেলে গ্রাহকদের ছুটে বেড়াতে হবে। কোথায় কিভাবে আধার কার্ড সংশোধন করা হবে সেটা ভেবে সাধারণ মানুষ কুলকিনারা খুঁজে পায়না। অথচ সঠিক আধার কার্ড না থাকলে কোনো সরকারি সুযোগও পাওয়া যাবেনা।

জানা যাচ্ছে বর্তমানে রাজ্য সরকারগুলি এইসব কাজ বেসরকারি সংস্থাকে দিয়ে করিয়ে নেয়। প্রশ্নটা এখানেই উঠতে শুরু করেছে – জনগণের করের টাকা দেওয়া হচ্ছে বেসরকারি সংস্থাগুলিকে, তাহলে ভুল সংশোধনের দায়িত্ব কেন তাদের দেওয়া হবেনা? কাজের বিনিময়ে তারা অর্থ পাচ্ছে। তাসত্ত্বেও কেন তাদের ভুলের মাশুল সাধারণ মানুষকে গুনতে হবে? কেন পঞ্চায়েত বা পৌরসভার সাহায্য নিয়ে সেগুলি তাদের সংশোধন করতে বাধ্য করা হবেনা?

কয়েক মাস আগে একটি পোস্ট অফিসে আধার কার্ড সংশোধনের কথা ঘোষণা করা হয়। শুধু সংশ্লিষ্ট ব্লকের নয়, আধার কার্ড সংশোধনের জন্য অন্য ব্লক থেকেও মানুষরা ছুটে আসে। করোনা আতঙ্ককে সঙ্গী করে ভোর থেকেই সেখানে দীর্ঘ লাইন পড়ে যায়। বহু মানুষ হতাশ হয়ে ফিরে যেতে বাধ্যও হয়। লাইনের দৈর্ঘ্য দেখে সহজেই অনুমান করা যায় কি বিপুল সংখ্যক মানুষের কাছে আছে ভুলে ভরা আধার কার্ড। জালিয়াতি বন্ধ করার ক্ষেত্রে আধারের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ হলেও ভুলে ভরা আধার কার্ড সংশোধনের জন্য সরকারের ভূমিকা সন্তোষজনক নয়।

ভুলে ভরা আধার কার্ড সংশোধনের জন্য দীর্ঘ ২-৩ বছর ধরে কার্যত দিশেহারা হয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছেন মঙ্গলকোটের জনৈক গ্রামীণ ডাক্তার । তার বক্তব্য – ভুলে ভরা আধার কার্ডের তথ্য সংগ্রহ করুক স্থানীয় প্রশাসন। তারপর ‘দুয়ারে সরকার’ এর মত প্রতিটি পঞ্চায়েত ও পৌর এলাকায় ‘দুয়ারে আধার কার্ড সংশোধন’ এর মত ক্যাম্প করে সেগুলি সংশোধনের ব্যবস্থা করা হোক। এতে সাধারণ মানুষের হয়রানি অনেকটাই কমবে। তার আরও বক্তব্য – যেহেতু বায়ো-মেট্রিক বিষয়টি আগেই হয়ে আছে তাই যেভাবে ভোটার কার্ড সংশোধন করা হচ্ছে সেভাবেই আধার কার্ডের ভুলগুলো সংশোধন করা যেতে পারে। এক্ষেত্রে যেসব সংস্থা ভুল করেছে তাদেরও বাধ্য করা যেতে পারে।

আধার কার্ডের সঙ্গে যুক্ত জনৈক আধিকারিকের বক্তব্য – যেভাবে আধার কার্ডের ভুল সংশোধন নিয়ে রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে মানুষের হয়রানির খবর পাওয়া যাচ্ছে তাতে বিষয়টি নিয়ে ভাববার সময় হয়েছে। জেলার মধ্যে মাঝে মাঝে একটা দুটো ব্যাংক বা পোস্ট অফিসের উপর দায়িত্ব না চাপিয়ে প্রাথমিকভাবে প্রতিটি পঞ্চায়েত ও পৌর এলাকায় সংশোধনের জন্য এবং পরে প্রতিটি ব্লকে পৃথক দপ্তরের ব্যবস্থা করতেই হবে। নাহলে সরকারি পরিষেবা পাওয়ার ক্ষেত্রে আধার কার্ডের বাধ্যতামূলক ব্যবহারের সিদ্ধান্ত ব্যর্থ হবে। তাছাড়া যেহেতু আধার কার্ডের বিষয়টি চলমান এবং এখনো অনেকেরই আধার কার্ড তৈরি হয়নি তাই এটা নিয়ে ভাবতেই হবে। যেসব সংস্থাগুলি ভুলগুলো করে চলেছে তাদের কাছেও কৈফিয়ত চাওয়ার সময় হয়েছে।

এখন দেখার সরকারের পক্ষ থেকে আধার কার্ড সংশোধনের ক্ষেত্রে সত্যিই কোনো অর্থবহ ভূমিকা নেওয়া হয় কিনা।

       
      
      

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here