অন্ডালে এক রাতে পাঁচটি দোকানে দুঃসাহসিক চুরি, আতঙ্কে ব্যবসায়ীরা

0
1231

সোমনাথ মুখার্জী, অন্ডাল- আবারও একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি অন্ডালে, একই রাতে পরপর পাঁচটি দোকান ত্থেকে সর্বস্ব লুঠ করে চম্পট দিল দুষ্কৃতিরা। ঘটনা অন্ডালের শ্যামসুন্দরপুর কোলিয়ারি এলাকার। ঘটনার জেরে ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে ওই কোলিয়ারি এলাকায়। জানা গেছে, শুক্রবার রাতে শ্যামসুন্দরপুর কোলিয়ারি এলাকার মাধাইগঞ্জ রাস্তার পাশে অবস্থিত দোকানগুলিতে হামলা চালায় একদল দুষ্কৃতি। দোকানের অ্যাসবেসটসের ছাদ কেটে দোকানের ভেতরে ঢোকে দুষ্কৃতিরা। এরপর পরপর পাঁচটি দোকান থেকে নগদ টাকা ও মূল্যবান সামগ্রী লুঠ করে চম্পট দেয় তারা। সন্দীপ  প্রসাদ বার্ণওয়াল  নামে এক ব্যবসায়ীর দাবী দোকানের ছাদ কেটে নগদ টাকা ও সামগ্রী মিলিয়ে  প্রায় ৫০ হাজার টাকা চুরি গেছে। আরও এক ব্যবসায়ী অজয় কুমার সাউ জানান, তার দোকান থেকেও নগদ ৬ থেকে ৭ হাজার টাকা নিয়ে চম্পট দিয়েছে দুষ্কৃতিরা। শনিবার সকালে ওই এলাকার বাসিন্দারা পরপর পাঁচটি দোকানে দুষ্কৃতি তান্ডব দেখে রীতিমতো আতঙ্কে ভুগছেন। ব্যবসায়ীদের বক্তব্য, এভাবে এক রাতে পরপর চারটি দোকানে দুঃসাহসিক চুরির ঘটনা ঘটে গেল অথচ কেউ টের পর্যন্ত পেল না। চুরির খবর পেয়ে শনিবার সকালে ঘটনাস্থলে পৌছায় উখড়া  ফাঁড়ির পুলিশ। যদিও এলাকাবাসীদের বয়ান থেকে স্পষ্ট যে তারা পুলিশ প্রশাসনে ভরসা রাখছেন না। এলাকাবাসীদের বক্তব্য, শুক্রবার রাতে এই চুরিই প্রথম নয়, এর আগেও অণ্ডাল, পান্ডবেশ্বর এলাকায় দিনের পর দিন কখনও বন্ধ ঘর থেকে, আবার কখনও গাড়ির শোরুমে একাধিক চুরির ঘটনা ঘটেছে। এই নিয়ে পুলিশ প্রশাসনের কাছে বহুবার দুষ্কৃতিদের গ্রেফতারের দাবী জানানো হয়েছে। কিন্তু পুলিশ এখনও পর্যন্ত একটা চুরির ঘটনার কিনারা করতে পারেনি আজও। এরকম পরিস্থিতিতে পুলিশের ওপর থেকে সম্পূর্ণ আস্থা হারিয়েছেন অন্ডালের বাসিন্দারা। যদিও ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। তবে শুধু অন্ডাল বা পান্ডবেশ্বর এলাকা বললেও ভুল হবে, কারণ দুর্গাপুর, কাঁকসা, বাঁকুড়ার বিভিন্ন জায়গায় গত কয়েক মাসে একের পর এক মন্দির, স্কুল, সরকারী ভবনে চুরির ঘটনা ঘটেছে, দুর্গাপুরের সিটিসেন্টারে দাঁড়িয়ে থাকা গাড়ির কাঁচ ভেঙে টাকা লুঠের ঘটনাও তার মধ্যে রয়েছে। কিন্তু ব্যতিক্রমী একটি ছাড়া আর কোনও চুরির কিনারা এখনও পর্যন্ত করতে পারেনি পুলিশ।