অন্ডালে খোলামুখ খনি আর বিস্ফোরণে অতিষ্ঠ এলাকার জনজীবন

0
650

নিউজ ডেস্ক, এই বাংলায়ঃ খোলামুখ খনির রমরমা কারবার আর কয়লা উত্তোলনের জন্য খনিগর্ভে দিনের পর দিন ব্লাস্টিং আর এই দুইয়ের জোড়া দাপটে সধারণ জনজীবন অতিষ্ঠ অন্ডাল থানার সিদুলি সংলগ্ন শঙ্করপুর খোলামুখ খনি এলাকার। অভিযোগ, খোলামুখ খনি থেকে দিনের পর দিন কয়লা উত্তোলনের ফলে যে ব্লাস্টিং হচ্ছে তার জেরে কোলিয়ারি এলাকার স্থানীয় বাসিন্দাদের বাড়ি-ঘর ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। এর মধ্যে বেশ কিছু বাড়িতে ব্লাস্টিংয়ের জেরে ইতিমধ্যে ফাটল দেখা দেওয়ায় যেকোনো সময় বাড়িঘর ভেঙে পড়ার আশঙ্কায় ভুগছেন এলাকাবাসী। তবে এখানেই শেষ নয়, খোলা মুখ খনির জেরে শঙ্করপুর খনি এলাকায় ব্যাপক জলসংকট দেখা দিয়েছে। স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, পুকুর, কুয়ো এমনকি কলের জলের স্তরও অত্যাধিক নিচে নেমে যাওয়ায় পানীয় জলের জন্য নাকাল হতে হচ্ছে তাদের। এরই অভিযোগে ইএসিএলের বিরুদ্ধে বিরোধিতায় সরব হয়ে স্থানীয় দিঘির পাড়া, মাঝি পাড়া ও মিয়া পাড়া সহ অন্যান্য এলাকার মানুষ এক হয়ে বিক্ষোভে সামিল হন। ইসিএলের খোলামুখ খনির জেরে যখন বিপর্যস্ত কোলিয়ারি এলাকার বাসিন্দাদের স্বাভাবিক জীবনযাপন তখন গোঁদের ওপর বিষ ফোঁড়ার মতো তাদের সঙ্গী হয়েছে লোডশেডিংয়ের বাড়বাড়ন্ত। দিনের বিভিন্ন সময়ে আচমকায় এক নাগাড়ে লোডশেডিং আর তীব্র গরমে নাভিশ্বাস অবস্থা এলাকাবাসীদের। অভিযোগ, ইসিএল কর্তৃপক্ষকে একাধিকবার আবেদন-নিবেদন করেও কোনও কাজ না হওয়ায় বাধ্য হয়ে তারা বিক্ষোভে সামিল হয়েছেন। সিপিআই নেতা প্রভাত রায়ের বক্তব্য, মাঝিপাড়া, মিয়াপাড়া ও দিঘির পাড়া এলাকায় খনির ব্লাস্টিং-এর জেরে ঘরবাড়ির ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে। ইসিএল কর্তৃপক্ষ কোনও পদক্ষেপ না করায় মানুষ বাধ্য হয়ে বিক্ষোভে সামিল হয়েছেন। অন্যদিকে অবিলম্বে সমস্যার সমাধান না হলে খোলামুখ খনির উৎপাদন বন্ধ করে বৃহত্তর আন্দোলন নামার হুমকি দিয়েছেন এলাকাবাসীরা।