অন্ডালের সোনাচূড়া রুটে অবাধে লোহা চুরির জেরে বন্ধ রেল পরিষেবা

0
1065

সোমনাথ মুখার্জী ,অন্ডালঃ লোহা চোরেদের দাপটে বন্ধ রেল পরিষেবা। ঘটনা অন্ডাল সোনাচূড়া রেল রুটের। জানা গেছে মঙ্গলবার গভীর রাতে পলাশবন এলাকার দু নম্বর রেলগেটের সামনে অন্ডাল সোনাচূড়া রুটের ওপর জে কে রোপওয়ের লোহা চুরি করতে গিয়ে ঘটে বিপত্তি। লোহা চুরি করতে গিয়ে রেলের ট্র্যাকের ওপর পড়ে যায় লোহার তার। যার জেরে ফলে বন্ধ অন্ডাল সোনাচূড়া রুটের রেল পরিষেবা। খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন ইসিএল আধিকারিক গন ও রেলের আধিকারিকরা। আসানসোল ডিভিশনের এডিআরএম আর কে বার্নওয়াল জানান, প্রায় ১০ বছর আগে জে কে রোপওয়ের ডুলির মাধ্যমে বালি সরবরাহ হতো কোলিয়ারিগুলিতে বালি প্যাকিংয়ের জন্য। কিন্তু বর্তমানে জে কে রোপওয়ের লোহার জিনিসপত্র চুরির জন্য দুষ্কৃতীরা লোহার পিলার গুলি কেটে ফেলায় লোহার বড় বড় তার মাঝমধ্যেই রেলওয়ে ট্র্যাকের ওপর এসে পড়ছে। ফলে ব্যাহত হচ্ছে রেল পরিষেবা। জানা গেছে, এই রুট দিয়েই রাতের বেলা অন্ডাল-জসিডি নামে একটি যাত্রীবাহী ট্রেন চলাচল করে। কিন্তু যেভাবে দিনের পর দিন লোহা চোরেরা লোহার যন্ত্রাংশ কাটাছে এর ফলে যেকোনো সময় লোহার তার বা লোহার পিলার রেল ট্র্যাকের উপর পড়ে ভয়াবহ দুর্ঘটনা ঘটে পারে। মঙ্গলবার রাতেও অল্পের জন্য সেই দুর্ঘটনা এড়ানো গিয়েছে বলে জানা গেছে। এরকম পরিস্থিতিতে আপাতত ওই রুটে সমস্ত রেল পরিষেবা বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে রেল। মঙ্গলবার রাতের ঘটনার পর সেই তার সরানোর কাজে লেগেছে রেলের কর্মীরা। যদিও স্থানীয়দের প্রশ্ন, জে কে রোপওয়ের নিরাপত্তারক্ষী মোতায়েন থাকা সত্ত্বেও এত বড় বড় লোহার যন্ত্রাংশ চুরি করছে কি করে দুষ্কৃতীরা? ঘটনায় সর্ষের মধ্যেই ভূত রয়েছে বলে মনে করছেন স্থানীয় বাসিন্দাদের একাংশ। তাদের কথায় অন্ডাল এলাকায় লোহা চোরেরা এতটাই বেপরোয়া হয়ে গেছে যে, বড় বড় লোহার টাওয়ার কাটতেও পিছুপা হচ্ছে না তারা।