মোনালিসাকে ঘিরে নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ে অভিযানে মীনাক্ষীরাঃ তদন্ত দাবি

0
189

বিশেষ সংবাদদাতা, আসানসোলঃ- মোনালিসা কোথায় ? কেনই বা পালিয়ে বেড়াচ্ছেন তিনি ? -এই দাবিতে বৃহস্পতিবার সকাল থেকে দফায় দফায় আসানসোলের কাজী নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ে তুমুল আন্দোলন চালালো সিপিএম। আন্দোলনের আঁচ পেয়ে এদিন অবশ্য বিশ্ববিদ্যালয় মুখোই হননি উপাচার্য সাধন চক্রবর্তী।

বৃহস্পতিবার রাজ্য মন্ত্রিসভা থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে প্রাক্তন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে। তারই ঘনিষ্ঠ বান্ধবী এই মোনালিসা দাস আবার নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের প্রধান। তার শিক্ষাগত যোগ্যতার পাশাপাশি আরো কয়েকজন শিক্ষক ও শিক্ষা কর্মীর শিক্ষাগত যোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন তুলে এদিন ‘পরিচ্ছন্ন বিশ্ববিদ্যালয়’ গড়ার ডাক দেয় সিপিএম। যে আন্দোলনের পুরোভাগে ছিলেন দলের যুব সংগঠন ডি ওয়াই এফ আই এর রাজ্য সম্পাদক মীনাক্ষী মুখার্জি। তার দাবি “রাজ্যের অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো এখানেও চাকরির ক্ষেত্রে স্বজনপোষণ, ঘুষ, দুর্নীতিকে প্রশ্রয় দেওয়া হয়েছে। লক্ষ লক্ষ টাকার বিনিময়ে সরকারি চাকরি বিক্রি হয়েছে। এর পেছনে বড় চক্রান্ত আছে।” মীনাক্ষীর দাবি “এই ষড়যন্ত্রের মাথা রাজ্যের এক মন্ত্রী, এই বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য আর অবশ্যই মোনালিসা।”

পার্থ চট্টোপাধ্যায় কাণ্ডে তার ঘনিষ্ঠ দুই বান্ধবী অর্পিতা মুখার্জি আর মোনালিসা দাস এর নাম ইতিমধ্যেই চর্চিত। সেই মোনালিসা গত এক সপ্তাহ ধরেই বেপাত্তা। অভিযোগ, এই মোনালিসাকে ধরেই নিজের কার্যালয়ের মেয়াদ বাড়িয়ে নিয়েছেন উপাচার্য সাধন। সিপিএম তদন্ত চায় তারও ।

এদিন সিপিএমের আন্দোলনের সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের গেট বন্ধ করে দিলেও, ধাক্কা দিয়ে গেট খুলে ভেতরে ঢোকে বিক্ষোভকারীরা। ছিলেন প্রাক্তন বিধায়ক গৌরাঙ্গ চট্টোপাধ্যায়ও। তিনি বলেন, “কবি কাজী নজরুলের নামে বিশ্ববিদ্যালয় খুলে পুকুর চুরি করছে এরা।” একটি সূত্র জানায়, বিশ্ববিদ্যালয় আন্দোলনের প্রস্তুতি নিচ্ছে বিজেপিও।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here