ওয়ার্ডের কাজ বন্ধের হুমকি দিয়ে বিতর্কে তৃণমূল ব্লক সভাপতি, ভাইরাল ভিডিও

0
109

সন্তোষ মণ্ডল, আসানসোলঃ- এবার দলীয় কাউন্সিলরদের হুমকি দিয়ে বিতর্কে জড়ালেন কুলটির তৃণমূল ব্লক সভাপতি বিমান আচার্য। শহীদ দিবসের প্রস্তুতি সভায় দলের কাউন্সিলরদের হুমকি দেওয়া একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে স্যোশাল মিডিয়ায়। যেখানে ব্লক সভাপতিকে বলতে শোনা যাচ্ছে “২১ জুলাই লোক নিয়ে যাওয়াতে কুলটি প্রথম হবে । প্রতি ওয়ার্ডে দু’টো করে বাস যদি দেওয়া হয়, দশ-বিশটা লোকে হবে না । বাসটা ভর্তি করতে হবে । আমরা তদন্ত করব কে খাটছে আর কে খাটছে না । যদি দেখি কেউ খাটছে না, বা কোনও ওয়ার্ডে দেওয়াল লিখন হয়নি, তাহলে সেই ওয়ার্ড শাস্তি পাবে । সেই ওয়ার্ডের কাউন্সিলর যাতে কোনও কাজ না পায় সেই চেষ্টা করব।” এই বক্তব্য ভাইরাল হতেই শোরগোল পড়ে গিয়েছে । এমনকি কুলটি ব্লক সভাপতির এহেন মন্তব্যে রীতিমতো অস্বস্তিতে দলীয় নেতৃত্ব। পাশাপাশি বিষয়টি নিয়ে তৃণমূলকে বিঁধতে ছাড়েনি বিরোধীরা।

তবে এখানেই শেষ নয়। ওই ভিডিওতে বিমান আচার্যের বক্তব্যে দলের লবিবাজির বিষয়টিও সামনে চলে এসেছে। যেখানে তাকে বলতে শোনা যায়, “আজ যদি আমি আর উজ্জ্বলদা মিলে থাকি, তাহলে আসানসোলের নেতারা ঠান্ডা হয়ে যাবে। দু‘জন যদি এক হয়ে যাই, ওদের চিন্তাভাবনা করতে হবে।” তবে কি তিনি এভাবে আসলে তৃণমূলের আসানসোল লবিকে হুঁশিয়ারি দিলেন? প্রশ্ন করা হলে ভোল বদলে বিমানবাবু বলেন, “আসানসোলের কিছু চুনোপুঁটি নেতা প্রসঙ্গে বলেছি । মলয় ঘটক বা বিধান উপাধ্যায়কে না-মানলে দলে থাকার কোনও অধিকার নেই আমার।” পাশাপাশি কাউন্সিলরদের হুমকি প্রসঙ্গে বিমানবাবু জানান, কাউন্সিলরদের চাপে রাখতেই তিনি এ কথা বলেছেন । তবে ওয়ার্ডের উন্নয়ন স্তব্ধ করে দেওয়ার কথা বলা উচিৎ হয়নি বলে তিনি স্বীকার করে নেন। তার মতে ওটা বলা ভুল হয়ে গেছে, স্লিপ অফ টাং। পাশাপাশি তিনি এটাও দাবি করেন তার কথায় কি মেয়র কাজ বন্ধ করে দেবেন! তিনি একজন সাধারণ ব্লক সভাপতি। দলের শক্তি বৃদ্ধি করতেই দলীয় নেতা নেত্রীদের উপর চাপ দিয়েছিলেন তিনি।

বিষয়টি নিয়ে দলের নেতা তথা আই এন টি টি ইউ সি জেলা সভাপতি অভিজিৎ ঘটকের জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, এই ধরণের মন্তব্য করা হয়েছে কিনা তিনি জানেন না। তবে যদি কেউ করে থাকে তবে সেটা তার ব্যক্তিগত মন্তব্য। এটা দলের নির্দেশ নয়। দলের কথা বলার জন্য মুখপাত্র রয়েছে। আর যারা এধরণের ব্যক্তিগত মন্তব্য করবে দল তাদের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেবে।

অন্যদিকে তৃণমূল ব্লক সভাপতির করা বিতর্কিত মন্তব্য নিয়ে শাসকদলকে বিঁধতে ছাড়েনি বিরোধীরা। বিজেপি নেতা দিলীপ দে বলেন, “সারা পশ্চিম বঙ্গে তৃণমূলের দুটো লবি চলছে। একটা দিদির লবি, একটা ভাইপোর লবি। কে কোন লবিতে আছে সেই বিষয়টা রয়েছে এর মধ্যে। ওরা তো আগে জনগণকে হুমকি দিচ্ছিল ভোটারদের হুমকি দিচ্ছিল এখন তার সাথে সাথে নিজেদের পার্টির লোকেদের হুমকি দিচ্ছে। ওটা ওদের কালচারে এসে গেছে। এটা ওদের কাছে স্বাভাবিক। সারা পশ্চিমবঙ্গেই এটা চলছে। কুলটিতে তারই উদাহরণ আমরা দেখতে পাচ্ছি।”

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here