আসালসোলের মেয়র পদে নাম ঘোষণার পরই শুরু রাজনৈতিক জল্পনা ও বিতর্ক

0
788

সংবাদদাতা, আসানসোলঃ– শুক্রবার তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কালীঘাটের বাড়িতে দলের শীর্ষনেতৃত্বের বৈঠকের পর আসানসোলের পরবর্তী মেয়র হিসেবে বারাবনির বিধায়ক বিধান উপাধ্যায়ের নাম ঘোষণা করা হয় । এর পাশাপাশি ডেপুটি মেয়র পদে অভিজিৎ ঘটক ও ওয়াসিমুল হক এবং চেয়ারম্যান পদে অমরনাথ চ্যাটার্জির নাম ঘোষণা করা হয়। এদিকে এই নাম ঘোষণার পরই শুরু হয়েছে রাজনৈতিক বিতর্ক ও জল্পানা। অন্যদিকে মেয়র পদে নাম ঘোষণা নিয়ে কটাক্ষ করতে ছাড়েনি বিরোধীরাও।

প্রসঙ্গত, পুরভোটের ফল ঘোষণার পরেই মেয়র কে হবেন তা নিয়ে শুরু হয় জল্পানা। উঠে আসে অমরনাথ চট্টোপাধ্যায়, অভিজিৎ ঘটক, উজ্জ্বল চট্টোপাধ্যায়, তপন বন্দ্যোপাধ্যায়, অমিতাভ বসু প্রমুখের নাম। তবে এই জল্পনায় ছিল না বারাবনির বিধায়কের নাম। কারণ, তিনি পুরভোটে প্রার্থী ছিলেন না।

তৃণমূল সুপ্রিমো বার বার দলে এক ব্যক্তি এক পদ নিয়ে সরব হয়েছেন। কিন্তু সে সবকিছু উপেক্ষা করেই আসানসোলের মেয়রের নাম ঘোষণা করা হল। বারাবনির বিধায়ক বিধান উপাধ্যায় আসানসোল পুরনিগমের ষষ্ঠ মেয়র হতে চলেছেন। আবার এই মুহুর্তে বিধান উপাধ্যায় পশ্চিম বর্ধমান জেলা তৃণমুল কংগ্রেসের সভাপতি পদেও রয়েছেন। অন্যদিকে, ডেপুটি মেয়র হিসাবে দু’জনের নাম ঘোষণা করা হয়েছে, অভিজিৎ ঘটক ও ওয়াসিমুল হক। অভিজিৎ ঘটক আবার বর্তমানে পশ্চিম বর্ধমান জেলা আইএনটিটিইউসির সভাপতি।

তবে শুধু এক ব্যক্তি এক পদ নয়, মেয়র হিসাবে বিধান উপাধ্যায়ের নাম ঘোষণা হওয়ায় নান জল্পনাও শুরু হয়েছে। প্রসঙ্গত এবারের পুর নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেননি বিধান। পাশাপাশি তিনি আসানসোল পুর এলাকার ভোটার নন, বারাবনির ভোটার। তবে পাঁচগাছিয়ার বাসিন্দা হলেও বর্তমানে আসানসোলের সৃষ্টিনগরে থাকেন তিনি। যে হেতু এই পুরনির্বাচনে লড়ে কাউন্সিলর হিসেবে জিতে আসেননি, তাই নিয়ম অনুযায়ী, মেয়র পদে শপথ নেওয়ার অন্তত ছ’মাসের মধ্যে কোনও একটি ওয়ার্ড থেকে তাকে জিততে হবে।

এদিকে,বিধান উপাধ্যায়ের নাম মেয়র হিসাবে ঘোষণা হওয়ায় কটাক্ষ করতে ছাড়েননি বিরোধীরাও। তাদের মতে দলের অন্তর্ঘাত সামলানোর জন্যই জয়ী ৯১ জন কাউন্সিলরের মধ্যে এক জনকেও মেয়র করতে পারল না শাসক দল। তা ছাড়া, বিধান উপাধ্যায় পঞ্চায়েত এলাকার বাসিন্দা।

রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের একাংশও মনে করছেন বিধান উপাধ্যায় দলের কোনও গোষ্ঠীতে না থাকায় শীর্ষ নেতৃত্ব আসানসোলের মেয়র হিসাবে তাঁর নাম ঘোষণা করেছেন। এতে দলের সাংগঠনিক ভারসাম্যও রক্ষা হবে।

তবে বিধান উপাধ্যায় মেয়র হবার খুশিতে বারাবনি থেকে শুরু করে সালানপুর পর্যন্ত আনন্দ উৎসবে মেতে উঠেন কর্মীসমর্থকরা। যদিও আসানসোলে দলীয় কর্মীদের সেভাবে মেতে উঠতে দেখা যায়নি।

অন্যদিকে জন্মদিনের দিন মেয়র পদ উপহার পেয়ে খুশি বিধান উপাধ্যায় এদিন বলেন, “মেয়র হবার সম্মান পেয়ে আমি সত্যিই খুবই খুশি। আমার একদমই আশা ছিল না, যে আমি মেয়র পদের জন্য নির্বাচিত হবো। দল আমার প্রতি সম্মান জানিয়েছে। আমাদের নির্বাচনী ইস্তেহারে যা যা বলা হয়েছে, সেগুলি আগামীদিনে সবই করা হবে।”

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here