বাঁকুড়ায় রাতের অন্ধকারে সোনার দোকানে দুঃসাহসিক চুরি

0
1588

নিউজ ডেস্ক, এই বাংলায়ঃ ফের বাঁকুড়ায় চুরির ঘটনা। এবার রাতের অন্ধকারে সোনার দোকানের সাটার ভেঙে দুঃসাহসিক চুরির ঘটনা ঘটল বাঁকুড়ার পাত্রসায়র থানার রসুলপুরে। জানা গেছে, দোকানের সিমেন্টের গাঁথনি ভেঙে সাটার খুলে দোকানে থাকা আলমারি ভেঙে, সোনা ও রূপোর গয়না সর্বস্ব নিয়ে চম্পট দিয়েছে দুষ্কৃতিরা। দোকান মালিক রামমোহন কর্মকার জানান, রবিবার সন্ধ্যে সাড়ে সাতটা নাগাদ দোকান বন্ধ করে বাড়ি চলে গিয়েছিলেন তিনি। এরপর রাত প্রায় দুটো নাগাদ তার কাছে ফোন আসে দোকানে কে বা কারা ডাকাতি করেছে। ঘটনার খবর পেয়ে তিনি দোকানে গিয়ে দেখেন সাটার ভাঙা এবং দোকানের আলমারিতে রাখা সমস্ত সোনা ও রুপোর অলঙ্কার উধাও। তবে আনুমানিক কত টাকার গয়না চুরি গেছে সেবিষয়ে তিনি সঠিক করে কিছু বলতে পারেননি। ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। খবর পেয়ে সোমবার সকালে ঘটনাস্থলে যায় পাত্রসায়র থানার পুলিশ। চুরির ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। তবে এই চুরির ঘটনা বাঁকুড়া জেলায় প্রথম নয়। সম্প্রতি একের পর এক এলাকায় লাগাতার চুরির ঘটনায় ঘুম উড়েছে বাঁকুড়াবাসীর। কখনো ফাঁকা বাড়ি, আবার কখনো স্কুলের তালা ভেঙেও একাধিক চুরির ঘটনা ঘটেছে বাঁকুড়া জেলায়। অথচ পুলিশ প্রশাসন সেই চুরির এখনও কিনারা করতে পারেনি। রবিবার রাতে ফের সোনার দোকানে চুরির ঘটনা পুলিশ প্রশাসনের ব্যর্থতার ছবি আরও স্পষ্ট করে দিল। উল্লেখ্য, শুধু বাঁকুড়া জেলা বলেই নয়, সম্প্রতি দুর্গাপুর ও পার্শবর্তী পান্ডবেশ্বর ও অন্ডাল এলাকাতেও একের পর এক বাড়িতে ও দোকানে চুরির ঘটনা ঘটে চলেছে অথচ প্রশাসন দুস্কৃতিদের ধরতে এখনও ব্যর্থ। পরপর চুরির ঘটনা ঘটে চললেও এখনও পর্যন্ত একজনকেও গ্রেফতার করতে পারে নি পুলিশ। আর পুলিশের এই ব্যর্থতার সুযোগকে কাজে লাগিয়েই দিনের পর দিন বেপরোয়া হয়ে উঠছে দুষ্কৃতিদল। কোথাও ফাঁকা বাড়ি আবার কোনো দোকান কোনও জায়গায় সুরক্ষিত থাকছে না।