বাঁকুড়া পৌরসভার চেয়ারম্যান মহাপ্রসাদ সেনগুপ্তের সঙ্গে বিজেপি কাউন্সিলর প্রকাশ্যে বচসার সাক্ষী শহরবাসী

0
538

সংবাদদাতা, বাঁকুড়া :-

২০২০ সালে বাঁকুড়া পৌরসভায় ভোট। তার আগে শাসক দলের দখলে থাকা এই পৌরসভার চেয়ারম্যান মহাপ্রসাদ সেনগুপ্তের সঙ্গে ১৬ নম্বর ওয়ার্ডের বিজেপি কাউন্সিলর তথা দলের জেলা সহ সভাপতি নীলাদ্রি শেখর দানার প্রকাশ্যে বচসার সাক্ষী থাকলেন শহরবাসী। চেয়ারম্যান মহাপ্রসাদ সেনগুপ্ত শুক্রবার ঐ ওয়ার্ডে পরিদর্শণে যান। খবর পেয়ে পৌঁছে যান বিজেপির ঐ কাউন্সিলরও। সেখানেই ওয়ার্ডবাসী ও সংবাদমাধ্যমের ক্যামেরার সামনে উন্নয়ন ও অনুন্নয়নের তরজায় মেতে উঠলেন শাসক-বিরোধী দলের দুই শীর্ষ স্থানীয় নেতা।

প্রসঙ্গত, লোকসভা ভোটের ফলাফলের নিরিখে দীর্ঘদিন তৃণমূলের দখলে থাকা বাঁকুড়া পৌরসভায় পিছিয়ে রয়েছে তারা। বাঁকুড়া লোকসভা কেন্দ্রটি নিজেদের দখলে আনার পাশাপাশি পৌরসভার অধিকাংশ ওয়ার্ডেই এগিয়ে বিজেপি। এই অবস্থায় পৌরসভা দখলের লক্ষ্যে বিজেপি যেমন রণকৌশল তৈরীতে ব্যস্ত, তেমনি শাসক তৃণমূলও নিজেদের গড় রক্ষায় উঠে পড়ে লেগেছে।

এদিন পরে বিজেপি কাউন্সিলর ও দলের বাঁকুড়া জেলা সহ সভাপতি নীলাদ্রী শেখর দানা বলেন, সাড়ে বছরে ১৬ নম্বর ওয়ার্ডে চেয়ারম্যানকে দেখা যায়নি। এখন ভোটের আগে উনি এলাকায় এসেছেন। এই ওয়ার্ডটি বিরোধীদের দখলে থাকায় ‘গায়ের জোরে’ কোন উন্নয়নমূলক কাজ করতে দেওয়া হয়নি বলে তার অভিযোগ। একই সঙ্গে তার অভিযোগ, ‘উন্নয়নের নামে দ্বিচারিতি ও ভণ্ডামি, লুঠতরাজ চলছে’। তার এলাকায় পানীয় জল, রাস্তা, আলো, পুকুর সংস্কার সহ অন্যান্য বিষয়ে পৌরপ্রধানকে লিখিত আবেদন জানিয়েও বিরোধী দলের দখলে এই ওয়ার্ড থাকার কারণে কোন কাজ হয়নি। একই সঙ্গে তিনি আরো বলেন, লোকসভা ভোটের ফলাফলের ভিত্তিতে শাসক দল ভয় পেয়েছে। তাই চেয়ারম্যান রাস্তায় নেমেছেন।

অন্যদিকে চেয়ারম্যান মহাপ্রসাদ সেনগুপ্ত ২৪ টি ওয়ার্ডে ঘুরে মানুষের অভাব-অভিযোগ শুনছেন দাবী করে বলেন, বিজেপির দখলে থাকা ১৬ ও ১৯ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলররা কোন কাজ করেননি। মানুষের ন্যুননতম পরিষেবার ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট কাউন্সিলরকে অধিকার দেওয়া আছে। পর্যাপ্ত শ্রমিক তাদের হাতে আছে। তবুও নিকাশী নালা সংস্কার, পাইপ লাইন মেরামতের মতো কাজও ওরা করেননি। নির্বাচনের জন্য আলাদা করে ঘোরার বা প্রচারের দরকার নেই, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দু’হাত ভরে বাঁকুড়ার উন্নয়নে অর্থ বরাদ্দ করেছেন, সেই মোতাবেক কাজ হয়েছে। মানুষ জানেন কারা কাজ করেন। সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, ‘ওরা দিবা স্বপ্ন দেখুক, দিবাস্বপ্ন দেখা ভালো। বিজেপির পৌরসভা দখলের স্বপ্ন অধরাই থেকে যাবে দাবী করে বলেন, যে দুটি ওয়ার্ড ওদের হাতে আছে সেগুলোও এবার হাতছাড়া হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here