আতঙ্কে ঘরছাড়া তৃণমূলের পঞ্চায়েত প্রধান সহ ৮৩ জন কর্মী

0
338

সংবাদদাতা,বাঁকুড়া:- তৃণমূলের আতঙ্কে বিজেপি কর্মীদের ঘরছাড়া, গ্রাম ছাড়ার খবর বার বার সংবাদ শিরোনামে উঠে এসেছে। কিন্তু স্থানীয় পঞ্চায়েত সমিতি থেকে গ্রাম পঞ্চায়েত তৃণমূলের দখলে থাকা সত্ত্বেও তৃণমূলেরই একাংশের আতঙ্কে প্রায় দু’ বছর ধরে ঘরমুখো হতে পারছেন না ৮৩ জন তৃণমূল কর্মী। শুধু তাই নয়, খোদ গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধানেরও দিন কাটছে গ্রাম থেকে দূরে ভাড়া বাড়িতে। স্থানীয় ব্লক প্রশাসন থেকে শুরু করে দলের জেলা নেতৃত্ব সর্বত্র দরবার করেও ঘরে ফিরতে পারছেন না ঘরছাড়ারা। এহেন উলট পুরাণের ছবি ধরা পড়েছে বাঁকুড়ার বিষ্ণুপুর ব্লকের উলিয়াড়া গ্রাম পঞ্চায়েতের বেলিয়াড়া গ্রামে।

কিন্তু কেন ঘটলো এই ঘটনা? জানা গেছে বছর দুয়েক আগে তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দে খুন হন প্রাক্তন পঞ্চায়েত প্রধান শেখ বাবর আলি । খুনের ঘটনায় নাম জড়ায় উলিয়াড়া গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রাক্তন প্রধান তাসমিনা খাতুনের স্বামী রহিম মন্ডল ও তার অনুগামীদের। পালটা হামলার আশঙ্কায় খুনের রাতেই পরিবার পরিজন নিয়ে ঘর ছাড়েন বর্তমান পঞ্চায়েত প্রধান সহ বেলিয়াড়া গ্রামের প্রধানের অনুগামী ত্রিশটিরও বেশি তৃণমূল কর্মীর পরিবার। তারপর থেকে কেউ আর গ্রাম মুখো হতে পারেননি আতঙ্কে। এমনকি পঞ্চায়েত প্রধান গ্রাম পঞ্চায়েতে যেতে চাইলেও গত দুবছর ধরে তার অনুমতি দিচ্ছে না পুলিশ ও প্রশাসন, এমনটাই অভিযোগ।

এদিকে গত দুবছরে অভিযুক্তরা সকলেই জামিনে মুক্তি পেলেও গ্রামে ফিরতে পারেনি। ফলে ঘরছাড়ারা কেউ ভাড়া বাড়িতে আবার কেউ দিনের পর দিন আত্মীয়ের বাড়িতে আশ্রয়ে রয়েছেন । কেউ সামান্য ফেরি করে আবার কেউ অন্যের কাছ থেকে ভাড়ায় নেওয়া টোটো চালিয়ে কোনোরকমে দিন গুজরান করছেন। এদিকে গ্রামে ফিরতে না পারায় মিলছে না রেশন পাশাপাশি শিশুরা বঞ্চিত হচ্ছে পড়াশুনার সুযোগ থেকে। অন্যদিকে পঞ্চায়েত প্রধান দীর্ঘদিন ধরে পঞ্চায়েত অফিসে যেতে না পারায় ব্যাহত হচ্ছে একাধিক পরিসেবা। ঘরছাড়াদের দাবি গ্রামে ফেরার আর্জি নিয়ে বারবার স্থানীয় বিষ্ণুপুর থানা, বিডিও ও দলের বিষ্ণুপুর সাংগঠনিক জেলার নেতাদের দরজায় কড়া নেড়েছেন তারা। কিন্তু ঘরছাড়াদের ঘরে ফেরানোর জন্য কেউই উদ্যোগ নেয়নি বলে অভিযোগ।

এদিকে পুলিশ ও প্রশাসন বিষয়টি নিয়ে মুখ খুলতে চায়নি। আর তৃণমূলের জেলা নেতৃত্বের দাবি একসাথে সকলকে না ফিরিয়ে গন্ডগোল এড়াতে ধীরে ধীরে ঘরছাড়াদের গ্রামে ফেরানো হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here