দ্রৌপদীর পড়ানো রাখির মান রাখতেই কৌরবসভায় বস্ত্র দান করেন কৃষ্ণ, ত্রাতা রূপে আবির্ভূত হন

0
384

বহরমপুর থেকে সঙ্গীতা চৌধুরীঃ- দ্রৌপদীর চরম বিপদে দ্রৌপদীকে রক্ষা করেছিলেন ভগবান শ্রীকৃষ্ণ। হস্তিনাপুরে শকুনির শঠতার দ্বারা পাণ্ডবরা যখন পরাজিত হলেন পাশা খেলায়, তখন ভরা সভায় দুর্যোধনের আদেশে দুঃশাসন চেষ্টা করলেন দ্রোপদীর বস্ত্রহরণ করার। সমগ্র পরিস্থিতি তখন দ্রৌপদীর প্রতিকূল। দ্রৌপদীর স্বামী রা পর্যন্ত নির্বাক দর্শক হয়ে রইলেন। সহায় হলেন একমাত্র শ্রীকৃষ্ণ। এখন দ্রৌপদীর বিপদে শ্রীকৃষ্ণ সহায় হয়েছিলেন আমাদের বিপদে হন না! এরকম প্রশ্ন আমাদের মনেও আসে। কিন্তু জানেন কি দ্রোপদী শ্রীকৃষ্ণকে আত্মীয়তার সম্বন্ধে বেঁধেছিলেন। হ্যাঁ একবার এক যুদ্ধে শ্রীকৃষ্ণ যখন আহত হন এবং তার কব্জি থেকে রক্তক্ষরণ হতে শুরু করে তখন দ্রোপদী নিজের আঁচল থেকে বস্ত্র ছিড়ে শ্রীকৃষ্ণের হাতে বেঁধে দেন। এরপর শ্রীকৃষ্ণ এই বস্ত্র খন্ডকে রাখি হিসেবে গ্রহণ করেন ও দ্রৌপদীকে আজীবন রক্ষা করার ও এর প্রতিদান ফিরিয়ে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি করেন। দ্রৌপদীকে শ্রীকৃষ্ণ সেই মুহূর্তে নিজের ভগিনী রূপে গ্রহণ করেছিলেন। আর তাই চরম সংকটের মুহূর্তে একমাত্র ত্রাতা রূপে মধুসূদনের আবির্ভাব হয়েছিল। তাই আজ রাখি বন্ধনের শুভ উৎসবে ভগবানের হাতেই রাখি বাঁধুন। তিনি সর্ব অবস্থায় আপনাকে রক্ষা করবেন।ভগবানের সঙ্গে আত্মীয়তার সম্পর্ক স্থাপন করলে সেই সম্পর্ক জন্ম-জন্মান্তরেও চিরস্থায়ী হয়। আর মানুষ তো আগে নিজের প্রাণের কথা চিন্তা করে। তাই আজকের দিনে ভগবানকে রাখি পড়ান। তাকে বন্ধুরূপে, ভাই রূপে গ্রহণ করুন। তিনি সর্ব অবস্থায় আপনার সহায় হবেন। হরে কৃষ্ণ। হরিবোল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here