আজ সব থেকে সুন্দর জাতীয় পতাকার জন্মদিন

0
150

এই বাংলায় ওয়েব ডেস্কঃ– আজ, ২২ জুলাই পৃথিবীর সব থেকে সুন্দর জাতীয় পতাকা তথা ভারতের জাতীয় পতাকার জন্মদিন। যে কোনও দেশের জাতীয় পতাকা ওই দেশের সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য বহন করে। কিন্তু গেরুয়া,সাদা, সবুজ- তিন রঙে রাঙানো এই কাপড়ের টুকরো ভারতবাসীর কাছে শুধু সংস্কৃতি বা ঐতিহ্য নয়। এই তেরঙ্গার সঙ্গে জড়িয়ে রয়েছে প্রত্যেক ভারতবাসীর আবেগ। ১৯৪৭ সালের ২২ জুলাই আমাদের জাতীয় পাতাকার বর্তমান রূপটি ভারতীয় গণ পরিষদে গৃহীত হয় এবং ডমিনিয়ন অফ ইন্ডিয়ার অফিসিয়াল ফ্ল্যাগ হিসেবে চিহ্নিত হয়। ১৯৪৭ সালের ১৫ অগস্ট স্বাধীন ভারতে প্রথমবার এই পতাকাটি উত্তোলিত হয়।

স্বাধীনতার আগে জাতীয় কংগ্রেস স্বরাজ ফ্ল্যাগ হিসেবে যে পতাকা ব্যবহার করত অনেকটা তারই মতো দেখতে আমাদের বর্তমান জাতীয় পতাকা। ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল কংগ্রেসের স্বরাজ ফ্ল্যাগটি নকশা তৈরি করেছিলেন পিঙ্গলি ভেংকাইয়া। এরপর কংগ্রেসের পক্ষ থেকে তাঁকেই জাতীয় পতাকার নকশা তৈরির জন্য অনুরোধ করা হলে তিনি তাতে সম্মত হন। তিনিই ভারতের জাতীয় পতাকার রূপকার। ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনের অন্যতম পথিকৃত ছিলেন পিঙ্গলি ভেঙ্কাইয়া।

জাতীয় পতাকার ব্যবহারের নির্দিষ্ট নিয়ম কানুন রয়েছে। জাতীয় পতাকা ব্যবহারের বিধি ‘ভারতীয় পতাকাবিধি’ ও জাতীয় প্রতীকাদি সংক্রান্ত অন্যান্য আইন অনুসারে নিয়ন্ত্রিত হয়। সরকারি বিধি অনুসারে, জাতীয় পতাকা কখনোই মাটি বা জল স্পর্শ করবে না। এটিকে টেবিলক্লথ হিসেবে বা কোনো প্ল্যাটফর্মের সামনে আচ্ছাদন হিসেবে ব্যবহার করা চলবে না। জাতীয় পতাকা দিয়ে কোনও মূর্তি, নামলিপি বা শিলান্যাস প্রস্তর আবরিত করা যাবে না। জাতীয় পতাকা কখনই উলটো অবস্থায় প্রদর্শিত করা বা উত্তোলন করা অনুচিত। কোমরের ওপরের অংশে পরিধেয় বস্ত্রে জাতীয় পতাকা ব্যবহারের অনুমতি থাকলেও কোমরের নিচের অংশে কখনোই তা ব্যবহার করা যায় না।

নিজের জন্মদিন বা কাছের মানুষদের জন্মদিন তো আমাদের সবারই মনে থাকে। কিন্তু যে তেরঙ্গাকে নিয়ে ১৩০ কোটি মানুষের আবেগ জড়িত, যার সামান্যতম অসম্মান আমাদের কষ্ট দেয়, সেই জাতীয় পাতাকার জন্ম দিবসটি আমরা কতজন মনে রাখি?

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here