অভিনব কায়দায় সাধারণ মানুষকে প্রতারনা করে চম্পট “সালিমার ট্রেডার্স”-র

0
3178

নিউজ ডেস্ক, এই বাংলায়ঃ ফের সাধারণ মানুষের সঙ্গে প্রতারণার অভিযোগ উঠল এক সংস্থার বিরুদ্ধে। সালিমার ট্রেডার্স নামক ওই সংস্থার বিরুদ্ধে আর্থিত দূর্নীতির অভিযোগ তুলে বৃহস্পতিবার সরব হলেন সাধারণ মানুষ। ঘটনা বাঁকুড়া জেলার বিষ্ণুপুর শহরের ময়রাপুকুর এলাকার। সাধারণ মানুষের বয়ান থেকে জানা গেছে, গত জুন মাসের প্রথম দিকে সালিমার ট্রেডার্স নামে এই সংস্থা ক্রেতাদের উদ্দেশ্যে প্রচার করে ঘর সাজানোর জিনিসপত্র যেমন-খাট, আলমারি, ড্রেসিং টেবিল সহ অন্যান্য নানান সামগ্রী অফারে বাজারের থেকে অর্ধেক দামে ক্রেতাদের কাছে বিক্রি করবে। কিন্তু সংস্থার তরফে এও শর্ত রাখা হয় যে, ক্রেতা যেই জিনিসই কিনুন না কেন তার সম্পূর্ণ ক্রয়মূল্য ক্রেতাকে আগেই ওই সংস্থাকে মিটিয়ে দিতে হবে। এরপর টাকা জমা দেওয়ার ১৫ দিন পর ক্রেতা তার জিনিস হাতে পাবেন। সংস্থার শর্ত মতো এবং অর্ধেক দামে প্রয়োজনীয় জিনিস পেয়ে যাওয়ার লোভে বহু এলাকাবাসী তাদের কষ্টার্জিত টাকা ওই সংস্থার হাতে তুলে দেয়। জানা গেছে, এলাকার প্রায় ৫ থেকে ৬ হাজার মানুষ ওই সালিমার ট্রেডার্সের ওপর ভরসা করে তাদের প্রয়োজনীয় জিনিসের অর্ডার দিয়ে টাকাও দিয়ে দিয়েছিলেন। কিন্তু বৃহস্পতিবার ওই সমস্ত ক্রেতা সালিমার ট্রেডার্সে তাদের পাওনা সামগ্রী আনার জন্য গিয়ে দেখেন সালিমার ট্রেডার্স নামে ওই শোরুমে তালা বন্ধ, আশেপাশে ব্যবসায়ীদের জিজ্ঞাসা করলেও তারা কিছুই বলতে পারেন নি। এরপর সাধারণ মানুষ বুঝতে পারেন তাদের সঙ্গে আর্থিক প্রতারনা করে চম্পট দিয়েছে ওই সংস্থা। প্রায় কয়েক লক্ষ টাকা প্রতারিত হয়ে বর্তমানে মাথায় হাত পড়েছে প্রতারিতদের। এই খবর ছড়িয়ে পড়তেই এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে। ঘটনার খবর পেয়ে বিষ্ণুপুর থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। পুলিশের তরফে তদন্ত শুরু হয়েছে। কিন্তু এখানে প্রশ্ন উঠছে সাধারণ মানুষের মানসিকতায়। এর আগেও সাধারণ মানুষ বহুবার লোভের ফাঁদে পা দিয়ে বিভিন্নভাবে প্রতারিত হয়েছেন। সরকারী ও নানান সমাজসেবী সংস্থার তরফে সাধারণ মানুষকে বারবার সচেতন করা হলেও কোনওভাবেই তাদের বোঝানো যাচ্ছে না। ফলস্বরূপ বিভিন্ন সময়ে ভুয়ো সংস্থার কাছে প্রতারিত হয়েও সাবধান করা যাচ্ছে না সাধারণ মানুষকে।