বর্ধমানের আইনি পরিষেবা কেন্দ্রকে ১ হাজার ৫০০ টাকা জরিমানা করলেন বিচারক

0
1030

সংবাদদাতা, বর্ধমানঃ- খুনের মামলায় সাক্ষীরা হাজির থাকলেও জেলা আইনি পরিষেবা কেন্দ্র আইনজীবী নিয়োগ করেনি। তার ফলে মামলার শুনানি হয়নি। সাক্ষীদের হয়রানি হতে হয়েছে। সে জন্য আইনি পরিষেবা কেন্দ্রকে ১ হাজার ৫০০ টাকা জরিমানা করলেন বিচারক। জরিমানার টাকা সাক্ষীদের যাতায়াতের খরচ বাবদ দেওয়ার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন বিচারক। আইনি পরিষেবা কেন্দ্র আইনজীবী নিয়োগ না করায় ক্ষুব্ধ বিচারক নিজেই আইনজীবীকে সুদর্শনা ঘোষকে নিয়োগ করেছেন। বৃহস্পতিবার বর্ধমানের চতুর্থ জেলা ও দায়রা বিচারক পার্থপ্রতিম দত্ত এই নির্দেশ দিয়েছেন।আদালত সূত্রে জানা গিয়েছে, ২০১৬ সালের ২৪ এপ্রিল আগুনে পুড়ে মারা যান ববি হেমব্রম নামে এক মহিলা। আউশগ্রাম থানার হরগড়িয়াডাঙায় তাঁর বাড়ি। ঘটনার দিন ভোর ৪টে নাগাদ স্থানীয় বাসিন্দারা তাঁর ঘরের বাইরে আগুন জ্বলতে দেখেন। তড়িঘড়ি আগুন নেভান তাঁরা। ততক্ষণে অবশ্য আগুনে পুড়ে মারা যান ববি। পুলিস দেহটি উদ্ধার করে ময়না তদন্তে পাঠায়। ঘটনার বিষয়ে মৃতার আত্মীয়া সুকোল মুর্মু আউশগ্রাম থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। তাঁর অভিযোগ, কাকার মেয়েকে খুন করে প্রমাণ লোপাটের জন্য পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। তার ভিত্তিতে খুন ও প্রমাণ লোপাটের ধারায় মামলা রুজু করে পুলিস। তদন্তে নেমে পুলিস বীরভূমের ইলামবাজার থানার নওয়ানা গ্রামের যুবক সোম মুর্মুকে সেই বছরের ১৫ সেপ্টেম্বর গ্রেপ্তার করে। তাকে হেফাজতেও নেয় পুলিস। তদন্তে নেমে পুলিস জেনেছে, মহিলার বাড়িতে সোমের যাতায়াত ছিল। ঘটনার কিছুদিন আগে মহিলার সঙ্গে তাঁর অশান্তি হয়। মহিলা তার সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করে দেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে মহিলাকে খুন করে সোম। তদন্ত সম্পূর্ণ করে সেই বছরেরই ৫ অক্টোবর খুন ও প্রমাণ লোপাটের ধারায় চার্জশিট পেশ করেন তদন্তকারী অফিসার সজল মল্লিক। সেই মামলার বিচার চলছে চতুর্থ জেলা ও দায়রা আদালতে।এদিন মামলায় সাক্ষী দিতে হাজির হয়েছিলেন কালোমণি হেমব্রম ও লক্ষ্মণ মুর্মু। অভিযুক্ত আইনজীবী দিতে না পারায় আইনি পরিষেবা কেন্দ্র থেকে তার হয়ে মামলা লড়ার জন্য আইনজীবী নিয়োগ করা হয়। সেই আইনজীবী হাজির না হওয়ায় মামলাটি ঝুলে রয়েছে। গত ৭ ডিসেম্বর আইনজীবীকে সরিয়ে দেওয়ার জন্য নিের্দশ দেন বিচারক। এছাড়াও যাতায়াতের জন্য সাক্ষীদের যাতায়াতের খরচ বাবদ ১ হাজার ৫০০ টাকা দেওয়ার জন্য আইনি পরিষেবা কেন্দ্রের সেক্রেটারিকে নিের্দশ দেন বিচারক। নিের্দশে বিচারক মন্তব্য করেছেন, সাক্ষীরা অত্যন্ত গরীব। তাঁদের যাতায়াত খরচ জোগানোর মতো সামর্থ্য নেই। এভাবে দিনের পর দিন তাঁদের আদালত থেকে ঘুরে যেতে হলে বিচার ব্যবস্থা ক্ষতিগ্রস্ত হবে। এ ব্যাপারে জেলা আইনি পরিষেবা কেন্দ্রের দায়িত্ব রয়েছে। কিন্তু তারা সেই দায়িত্ব পালন করছে না। সুপ্রিম কোর্ট বারবার বিষয়টি দেখার জন্য বলেছে। সে কারণে আইনি পরিষেবা কেন্দ্রকে জরিমানা করা হল। জরিমানার টাকা ৪ সাক্ষীকে দিতে হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here