ভারতীয় মজদুর সংঘের লাগাতার আন্দোলনের জের, ডিএসপি আধুনিকীকরণে ৮৬০ কোটি টাকা বিনিয়োগের সিদ্ধান্ত কেন্দ্রের

0
706

নিজস্ব সংবাদদাতা, দুর্গাপুরঃ- দুর্গাপুর ইস্পাত কারখানা সম্প্রসারণ এবং আধুনিকীকরণে ৮৬০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করতে চলেছে কেন্দ্রীয় ইস্পাত মন্ত্রক। গত ১৬ সেপ্টেম্বর দিল্লিতে এক্সিকিউটিভ ফেডারেশন অফ ইন্ডিয়ার কর্তাদের সঙ্গে এক জরুরি বৈঠকে এই সিদ্ধান্তের কথা জানান সেইলের চেয়ারম্যান সোমা মণ্ডল। ইস্পাত মন্ত্রকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ধাপে ধাপে এই বিনিয়োগ হবে বলে জানা গিয়েছে। আগামী বছরের জানুয়ারি মাস থেকে আধুনিকীকরণের কাজ শুরু হয়ে যাবে বলে খবর। আর আধুনিকীকরণের কাজ ২৬ মাসের মধ্যে শেষ হবে বলেও জানা গিয়েছে। এই খবরে স্বভাবতই খুশির জোয়ার শ্রমিক মহলে। তাদের আশা এবার লাভের মুখ দেখবে ডিএসপি।

জানা গিয়েছে কারখানায় বার এবং রড মিল, ব্লাস্ট ফার্নেস, অক্সিজেন প্লান্ট, স্টেন চার্জিং ব্যাটারি ছাড়াও নতুন বয়লার বসানো হবে পাওয়ার প্ল্যান্টে। ফলে মুনাফা দ্বিগুণ হবে বলে আশা করা হচ্ছে। এছাড়াও শ্রমিক এবং অফিসারদের বেতন পুনর্বিন্যাস করা হবে, যা ২০১৭ সাল থেকে বাকি পড়ে রয়েছে। কারখানা ছাড়াও ৬৬০ শয্যার ডিএসপি হাসপাতালটিকেও ঢেলে সাজানোর অর্থ বরাদ্দ হবে। ডিএসপি মেইন হাসপাতালে অভিজ্ঞ চিকিৎসক সহ বিভিন্ন বিভাগের পরীক্ষার জন্য নতুন মেশিনপত্র আনা হবে। পাশাপাশি বার্নপুরের ইসকো কারখানার মতো পুরনো ভেঙে পড়া আবাসনগুলি ভেঙে নতুন বহুতল আবাসন তৈরির প্রস্তাব রাখা হয়েছে। প্রসঙ্গত ইতিমধ্যে বার্নপুরের ইসকো কারখানার জমিতে বহুতল আবাসন গড়ে তোলার সম্মতি জানিয়েছে সেইল বোর্ড।

এবিষয়ে অল ইন্ডিয়া স্টিল ফেডারেশনের, ভারতীয় মজদুর সংঘ (বিএমএস) এর নেতা তথা সর্বভারতীয় সহ সভাপতি অরূপ রায় জানিয়েছেন ডিএসপি-কে বাঁচানোর জন্য তাদের লাগাতার প্রচেষ্টার কারণেই অবশেষে এই সফলতা এসেছে। তিনি জানান বিএমএস-এর লাগাতার আন্দোলন ও বিএমএস-এর কেন্দ্রীয় নেতা ডি কে পাণ্ডেজির আপ্রাণ প্রচেষ্টার ফসল কেন্দ্রের এই বিনিয়োগের সিদ্ধান্ত। কেন্দ্রীয় বিএমএস নেতৃত্বের হস্তক্ষেপে বারবার ইস্পাত মন্ত্রী ও সেইল কর্তৃপক্ষকে চিঠি লেখা হয়। এমনকি ডিআইকেএস-এর পক্ষ থেকে দিল্লিতে গিয়ে কেন্দ্রীয় ইস্পাত মন্ত্রীর সঙ্গে এই প্রসঙ্গে বৈঠকও করা হয় বলে জানান অরূপবাবু। তানি বলেন, বিগত চার বছর ধরে তারা মূলত ডিএসপি ও এএসপির আধুনিকীকরণ ও সম্প্রসারণ ও কারখানার অব্যবহৃত জমি ও আবাসনগুলি লিজ অথবা লাইসেন্সের মাধ্যমে রক্ষা করার দাবি জানিয়ে আন্দোলন করে আসছিলেন। অবশেষে তাদের সেই আন্দোলন সফল হল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here