ছট পুজোয় মানুষের ঢল নামল বাঁকুড়া,পান্ডবেস্বর, ও দুর্গাপুরের

0
764

সংবাদদাতা, বাঁকুড়া, পান্ডবেস্বর ও দুর্গাপুর:- ছট পুজো উপলক্ষে মানুষের ঢল নামল গন্ধেশ্বরী ও দারকেশ্বরের নদী গর্ভে। আজ বিকাল থেকে ধীরে ধীরে ভিড় জমতে শুরু করে ওই দুই নদীর গর্ভে। পুজোর উপাচার ডালায় নিয়ে অসংখ্য ব্রতী এদিন নদী গর্ভে হাজির হয়ে সুর্য দেবের উদ্যেশ্যে তাদের অর্ঘ্য নিবেদন করেন। ছট পুজো উপলক্ষে এদিন গন্ধেশ্বরী নদী বক্ষ সাজানো হয় পুরসভার তরফে। ছট পুজোর সময় কোনোরকম অপ্রিতিকর ঘটনা এড়াতে দুই নদী ঘাটে রাখা হয় পর্যাপ্ত পুলিশ বন্দোবস্ত ৷ শুধু বিহারী সম্প্রদায়ের লোক নয় এই উৎসবে শামিল হয় বাঁকুড়া বিভিন্ন ধর্ম বিভিন্ন বর্ণের মানুষ। তিনদিন বিভিন্ন উপাচারের মধ্য দিয়ে পালিত হয় হয় উৎসব। নাওয়া খাওয়া,লোহান্ডা, পেহেলি আরত,দুসরি আরত সহ বিভিন্ন ধরনের উপাচার এর মধ্য দিয়ে পালিত হলো সূর্যের অর্ঘ্য দেওয়ার এই উৎসব ।

দুর্গাপুরের ছট উৎসবে সতর্ক প্রশাসন। দীপাবলি শেষে হতেই ছট উৎসবে মেতে উঠেছেন দুর্গাপুরের মানুষজন। দূর্গাপুরের দামোদর নদে ও দুর্গাপুর কুমার মঙ্গলম পার্কের, ঘাটে শুরু হয়েছে ছট উৎসব। শেষ বেলার প্রস্তুতি। শনিবার বিকেল থেকে প্রায় ২ হাজার মানুষের জনসমাগম হয়। দুর্গাপুর পুরসভার তরফ থেকে পানীয় জল,বাথরুম,পুরুষ ও মহিলাদের  কাপড় বদলের জায়গা করা হয়।

সারা রাজ্যের সাথে মহা ধুমধামের সাথে পান্ডবেস্বরের কুমার ডিহি তে ধুমধামের সঙ্গে পালিত হচ্ছে ছট উৎসব। প্রধানত ছট উৎসব অবাঙালি বিহারী ভাইদের হলেও এখন আর সেটা শুধুই তাদের মধ্যে সীমাবদ্ধ নেই। রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে অনেক বাঙালি ও অনি সম্প্রদায়ের লোকেরা ও এই ছট মাইয়ার পুজো করতে ভিড় জমায় । ব্যতিক্রম নয় পান্ডবেস্বরের কুমার ডিহী । এখানেও বিকাল তিনটে থেকে ভক্তরা ছট মাইয়া পুকুরে পুজোর সামগ্রী নিয়ে মায়ের বন্দনা করেন । প্রায় হাজার খানেক মানুষ এই পুকুরে পাড়ে মায়ের আরাধনায় মগ্ন হন । পুজো শেষে নিজের নিজের বাড়ী ফিরে যান । আগামীকাল সূর্য্য ওঠার আগেই সকলেই আবার এই পুকুরে পাড়ে এসে ছট মাইয়ার পুজোর উদযাপন করবেন । সাইটের ভোরের ঠান্ডা উপেক্ষা করেই ভক্তির টানেই ভোর ভোর পুকুরের এক গলা জলে ডুবে অপেক্ষা করেন সূর্য্য ওঠার । সূর্যুদেবের উদিত হবার পরই তার বন্দনা করে সমাপ্তি হয় ছট মাইয়ার পুজোর ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here