প্রান বাঁচাতে মৃত কিশোর কে হাসপাতালের সামনে দুধ খাওয়ানোর চেষ্টা এলাকায় চাঞ্চল্য

0
443

সংবাদদাতা, কোচবিহারঃ- চিকিৎসক মৃত ঘোষনা করে দিয়েছেন। কিন্তু কিছুতেই তা মানতে রাজি নন মৃতের পরিবার। হাসপাতালের জরুরি বিভাগের সামনে প্রায় চার ঘন্টা ধরে মৃত দেহটিকে রেখে দু লিটার গরম দুধ খাওয়ানোর চেষ্টা করলেন মৃতের পরিবার। এমনকি শুধু তাই নয়, হাসপাতালের মেন গেটের সামনে অনেকক্ষন ধরে মৃত দেহটির পায়ে তেল মালিশ করে শুরু করা হয় তুকতাক এবং ঝাঁড়ফুক। এই চাঞ্চল্যকর ঘটনাটি ঘটেছে কোচবিহার মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে।
হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা গেছে, মৃত ওই কিশোরের নাম বিশাল বর্মন (১৯)। মৃত কিশোরের মা বাসন্তী বর্মন এবং বাবা সোরেন বর্মন জানান, বানেস্বর এলাকায় একটি পুকুরে মাছ ধরবে বলে জল ছেঁচতে পাম্প লাগায় বিশাল। ঠিক তখনই বিশাল বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়, সঙ্গে সঙ্গে বিশাল কে তার মা, বাবা কোচবিহার মেডিক্যাল হাসপাতালে ভর্তি করে। কিন্তু হাসপাতালের চিকিৎসকেরা বিশাল কে মৃত বলে ঘোষনা করেন। কিন্তু বিশালের পরিবারের অভিযোগ হাসপাতালে বিশালের পর্যাপ্ত পরিমানে চিকিৎসা করা হয়নি। এও জানা গেছে মারা যাওয়ার আগে ওই কিশোর বাড়িতে দুধও খেয়েছিল। বেলা ১ টা পর্যন্ত এই কান্ড চলার পর অবশেষে বাড়ির লোক কিশোরের মৃতদেহ নিয়ে হাসপাতাল থেকে বাড়ির পথে রওনা দেন।
কোচবিহার মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের সুপার রাজীব প্রসাদ বলেন, ওই কিশোর কে হাসপাতালের জরুরি বিভাগে আনার আগেই তার মৃত্যু হয়েছে। কিন্তু মৃতের পরিবার এই ব্যাপারটি মানতে কিছুতেই রাজি ছিলেন না। এমনকি মৃতের পরিবার বিশাল কে গরম দুধ খাওয়ানোর চেষ্টা করে। কিন্তু হাসপাতালের মেন গেটের সামনে দীর্ঘক্ষণ ধরে দেহ রেখে ঝাঁড়ফুকের পরও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের তরফ থেকে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হল না কেন? এই প্রশ্নের উত্তর দিতে এড়িয়ে যাচ্ছেন হাসপাতাল এবং পুলিশ বিভাগ। পরে অবশ্য পুলিশ মৃত্যুর সত্যতা যাছাই করতে কিশোরের দেহটি কে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here