দেবীর বোধনের সময় পালনীয় রীতি, এই বছর বোধনের সময়

0
423

বহরমপুর থেকে সঙ্গীতা চৌধুরীঃ- আমরা প্রত্যেকেই জানি যে ষষ্ঠীর দিন দেবীর বোধন হয়।দেবীর জাগরণ কেই দেবীর বোধন বলা হয়। মহাষষ্ঠীর দিন গোধূলি লগ্নে দেবীকে জাগ্রত করতে হয় -এটিই বোধন। আজ ২১ অক্টোবর অর্থাৎ ৪ ঠা কার্তিক- দুপুর ২টো ৪৫ র পর মহাষষ্ঠীর তিথি লাগছে।আজ দুপুরে র পরই দেবীর বোধন হবে। দেবী পরিবার নিয়ে মর্ত্যে আসেন মহাষষ্ঠী তে। এইদিন দেবীর মুখের আবরণ সরিয়ে দেওয়া হয়। দেবীর মুখমন্ডল উন্মোচন করা হয় যাতে সকলে মাতৃ মুখ দর্শন করতে পারেন এই রীতিকে বলা হয় কল্পারম্ভ। কল্পারম্ভের পর দেবীর বোধন হয়। সকল শাস্ত্রীয় রীতি মেনে ঘট ও জলভর্তি তাম্রপাত্র মন্ডপের একপাশে রেখে দেবী দুর্গা ও চন্ডীর পুজো করেন পুরোহিত। এরপর দেবী র জাগরণ অর্থাৎ বোধন হয় এরপর হয় অধিবাস ও আমন্ত্রণ। দেবীকে আমন্ত্রণ জানানো হয় বিল্ব শাখার মধ্যে। দেবীকে পুজা গ্রহণ করার জন্য আবেদন করাকেই বলা হয় আমন্ত্রণ করা। এরপর ই দেবীর উদ্দেশ্যে উৎসর্গকৃত জিনিস দেবী গ্রহণ করেন। আর অধিবাসের ক্ষেত্রে একটি গন্ডি কাটা হয়। লাল সুতো দিয়ে চারটে কঞ্চির মাথা বেঁধে গন্ডি দেওয়া হয়। এই গণ্ডির ভিতর অশুভ শক্তি প্রবেশ করতে পারে না এমনটাই মনে করে গন্ডি বাধা হয়ে থাকে। অধিবাসের রীতি পালনে বেলপাতা আবশ্যক। অধিবাসের ক্ষেত্রে ২৬ টি জিনিস মায়ের পায়ে ছুঁইয়ে রাখতে হয়। এইভাবেই ষষ্ঠীর দিন সম্পূর্ণ নিষ্ঠা সহকারে ভক্তির সঙ্গে দেবীর বোধন আমন্ত্রণ আর অধিবাস হয়‌।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here