দুর্গাপুরে সিপিএম কার্যালয়ে আগুন, একের পর এক আগুনের উৎসের খোঁজে ব্যর্থ পুলিশ

0
1165

নিউজ ডেস্ক, এই বাংলায়ঃ ভোটের আবহেই মধ্যেই এবার আগুন আতঙ্ক দুর্গাপুরে। এবার দুর্গাপুরের এক সিপিএম কার্যালয়ে অগ্নিকান্ডের ঘটনা। জানা গেছে, শনিবার দুর্গাপুরের গ্যামন ব্রিজ সংলগ্ন এসবিএসটিসি বাস গ্যারেজ সিপিআইএম শ্রমিক সংগঠনের কার্যালয়ে আচমকায় আগুন লেগে যায়। আগুন লাগার ঘটনা জানতে পেরেই স্থানীয়রা দমকলে খবর দিলে দমকলের একটি ইঞ্জিন ঘটনাস্থলে গিয়ে বেশ কিছুক্ষনের চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। ঘটনাকে কেন্দ্র করে ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে এলাকায়। ভোটের মধ্যে এভাবে সিপিএমের কার্যালয়ে আচমকায় অগ্নিকান্ডের ঘটনায় ষড়যন্ত্রের আঁচ করছে বাম শিবির। হঠাৎ কী করে আগুন লাগলো, নাকি পরিকল্পনা করেই কেউ বা কারা এই আগুন লাগিয়েছে তা নিয়ে শুরু হয়েছে চাপানউতোর। কারণ, লোকসভা ভোটের নির্ঘন্ট প্রকাশ হওয়ার পর থেকেই শিল্পশহরে একের পর এক অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে চলেছে। কখনও স্টীল টাউনশিপ আবার কখনও বিধাননগর পার্শবর্তী এলাকায় রাতের অন্ধকারে দাঁড়িয়ে থাকা একাধিক দুচাকা ও চার চাকা গাড়ি রহস্যজনকভাবে পুড়ে ছাই হয়েছে। সম্প্রতি দুর্গাপুরের নিউটাউনশিপ থানা এলাকার ঘটনাকেই তোলা যায় এপ্রসঙ্গে। নিউটাউনশিপ থানা এলাকার সঞ্চিতা পার্কে এক ব্যাঙ্ককর্মী প্রতিবেশী একজনের বাড়ির গ্যারেজে রেখেছিলেন। কিন্তু মাঝরাতে কেউ বা কারা তাঁর বাইকটি আগুন ধরিয়ে দেয়। আগুনের জেরে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল আরও দুটি বাইকও। এছাড়াও এই একই ঘটনা চাক্ষুস করে দুর্গাপুর টাউনশিপ এলাকারও মানুষ। ফলে, হঠাৎ করে দুর্গাপুরের বুকে এভাবে একের পর এক রহস্যজনক অগ্নিকান্ডের ঘটনায় স্বভাবতই আতঙ্কে দুর্গাপুরবাসী। শহরের একাংশের মনে এও প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে তাহলে কি ভোটের মুখে রাজনৈতিক দলগুলির মধ্যে টানাপোড়েনই এই আগুনের উৎস নয়তো? অনেকেই আবার সরাসরি বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের যোগসাজশের অভিযোগও তুলেছেন। কিন্তু আসল ঘটনা যাই হোক না কেন। একের পর এক এইধরনের ঘটনা ঘটে চললেও শহরের পুলিশ প্রশাসন সেই আগুনের উৎস খুঁজতে ব্যর্থ। এখনও পর্যন্ত আগুন লাগার কোনও ঘটনার কিনারা করতে পারেনি পুলিশ। স্বভাবতই পুলিশের এই ব্যর্থতা শহরবাসীর মনে আতঙ্ক বাড়িয়েছে কয়েকগুণ।