মা গঙ্গার জলের মতো পবিত্র ইস্কন মন্দির ও তাঁর সাধু-সন্তরা – মন্তব্য উত্তম মুখার্জীর, দেখুন ভিডিও

0
1153

নিজস্ব প্রতিনিধি, দুর্গাপুরঃ ইস্কন মন্দির গঙ্গা জলের মতো পবিত্র। মা গঙ্গা যখন আপন প্রবাহে বয়ে যায় তখন তাঁরও প্রবাহ পথে অনেক দূষিত জিনিস ও আবর্জনা বয়ে যায় কিন্তু তাসত্বেও গঙ্গা জলের পবিত্রতা কিন্তু নষ্ট হয় না। আমরা সেই নোংরা-দূষিত জিনিস সরিয়ে গঙ্গায় ডুব দিয়ে নিজেদের পবিত্র করি। সোমবার ইস্কন মন্দিরে বিজেপির রাজনৈতিক জনসভা বিতর্ক নিয়ে সাংবাদিক সম্মেলনে এইভাবেই গোটা ঘটনাকে ব্যাখ্য করলেন তৃণমূল কংগ্রেসের পশ্চিম বর্ধমান জেলা সভাপতি উত্তম মুখার্জী। তাঁর বক্তব্য, ইস্কন মন্দির গঙ্গা জলের মতোই পবিত্র। কোনও ব্যতিক্রমী ঘটনা ইস্কন মন্দিরের সেই পবিত্রতাকে নষ্ট করতে পারে না। তিনি আরও জানান, গত শুক্রবার ইস্কন মন্দিরের সাধু-সন্তদের বিজেপির রাজনৈতিক সভায় যোগ দেওয়া প্রসঙ্গে তিনিও ইস্কন মন্দিরের সেইসমস্ত সাধু-সন্তদের বিরুদ্ধে কিছু কুমন্তব্য করেছিলেন। সেই ভুল তিনি একবাক্যে স্বীকার করে জানান, সেইদিনের সেই বক্তব্যের জন্য তিনি গভীরভাবে দুঃখিত ও অনুতপ্ত। সেই ভুলের প্রায়শ্চিত্ত স্বরূপ তিনি কোনও একদিন সকালে স্নান সেরে নতুন বস্ত্র পরিহিত অবস্থায় সকাল থেকে রাত্রি পর্যন্ত ইস্কন মন্দিরে ভগবান শ্রীকৃষ্ণের সেবায় নিজেকে নিয়োজিত করতে চান বলে জানান তিনি। উত্তম মুখার্জীর বক্তব্য, ইস্কন মন্দিরের সমস্ত সাধু-সন্তদেরই একটাই লক্ষ্য হওয়া উচিত, তা হল ঈশ্বর সাধনায় নিজেকে নিয়োজিত করা। এর বাইরে কোনও কিছুই তাঁদের মনকে যেন প্রভাবিত করতে না পারে। ২রা ফেব্রুয়ারি বিজেপির জনসভায় ইস্কন মন্দিরের সাধুদের যোগদান এক আবেগপ্রবণ দুর্ঘটনা বলে আখ্যা দেন তিনি। সেই ঘটনাকে ভুলে সামনে এগিয়ে যাওয়ায় আমাদের মূল লক্ষ্য হওয়া উচিত। কারণ, যে স্থানে স্বয়ং ঈশ্বর বিরাজ করছেন, সেখানে কোনওভাবেই রাজনীতি বা তার পারিপার্শিক কিছু প্রবেশ করতে পারে না। আমাদের উচিত রাজনীতিকে ইস্কন মন্দিরের বাইরে রাখা।

তাঁর বক্তব্যকে সমর্থন জানিয়ে দুর্গাপুরের ইস্কন মন্দিরের প্রধান অভুধার্য চন্দ্র দাস ব্রহ্মচারী মহারাজ জানান, তাঁরাও এই ঘটনায় খুবই মর্মাহত যে তাঁদের এক আবেগপ্রবণ মুহুর্তের জন্য দুর্গাপুরে তাঁদের হাজারও ভক্তদের মধ্যে এক ভুল বার্তা পৌঁছেছে। তিনি একবাক্যে স্বীকার করে নেন, সেইদিন তাঁরা বিজেপির রাজনৈতিক জনসভায় যোগ দিয়ে এক ভুল বার্তা ভক্তদের মধ্যে ছড়িয়ে দিয়েছেন। সংবাদমাধ্যমের সামনে করজোড়ে তিনি সেইসব ইস্কন মন্দিরের ভক্তদের কাছে ক্ষমা চেয়ে নেন যে তিনি তাঁদের প্রধান হিসেবে একটি ভুল পদক্ষেপ নিয়েছিলেন ২রা ফেব্রুয়ারি বিজেপির রাজনৈতিক সভায় যোগদান করে। সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তিনি জানান, ভবিষ্যতে এইরকম ঐতিহাসিক ভুল যাতে আর না হয় তার দিকে তিনি সতর্ক দৃষ্টি রাখবেন ও সবরকম রাজনৈতিক দল থেকে সমপরিমাণ দূরত্ব বজায় রাখবেন এবং নিজেদেরকে শ্রীমদভগবদগীতার প্রচারেই নিয়োজিত করবেন। চ্যানেল এই বাংলায় ওয়েব পোর্টালের পক্ষ থেকে দুর্গাপুরের ইস্কন মন্দিরের প্রধান অভুধার্য চন্দ্র দাস ব্রহ্মচারী মহারাজকে শ্রদ্ধা জানিয়ে ও তাঁর মতকে সম্মান জানিয়ে আমাদের সমস্ত পাঠকদের কাছে বিনীত অনুরোধ ভুল মানুষ মাত্রই হয়, যখন মানুষ ভুল করে স্বীকার করে নেন তখন তিনি শ্রদ্ধা ও প্রশংসার পাত্র হন, কারণ নিজের ভুলকে স্বীকার করা এক মহৎ ব্যক্তির পক্ষেই সম্ভব। চ্যানেল এই বাংলায় কখনোই কারোর ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত করে না, ভবিষ্যতেও করবে না। সংবাদমাধ্যমের দায়িত্ব হিসেবে যেকোনো খবর তুলে ধরাই আমাদের প্রধান উদ্দেশ্য। আর সেই তাগিদেই গত শুক্রবার এই খবর প্রকাশিত হয়েছিল এই বাংলায় ওয়েব পোর্টালে। আমরা সবসময় সমস্ত মানুষের ধর্মকে সমান সম্মান জানিয়ে আমাদের পাঠকদের কাছে অনুরোধ করব তাঁরা যেন ইস্কনকে শুধুমাত্র একটি কৃষ্ণনাম প্রচার সংস্থা হিসেবেই শ্রদ্ধা করেন এবং তাঁদের সাথে কৃষ্ণনামের সাথে ঐক্যবদ্ধ হতে পারেন। হরে কৃষ্ণ, হরে কৃষ্ণ, কৃষ্ণ কৃষ্ণ হরে হরে……হরে রাম, হরে রাম, রাম রাম হরে হরে……।