একসাথে তিন মাসের অগ্রিম মাইনে না পেয়ে ডাক্তার ও ডাক্তার পত্নীকে মার ড্রাইভারের, ঘটনাস্থলেই মৃত্যু ডাক্তার পত্নীর বর্ধমানে

0
485

সংবাদদাতা, বর্ধমানঃ- একসাথে তিন মাসের অগ্রিম মাইনে না পাওয়ায় শহরের এক নামী চিকিৎসকের বাড়িতে তাণ্ডব চালালো তার গাড়ির চালক। ঘটনাটি সোমবার বিকেলের । একটি লাঠি দিয়ে অভিযুক্ত ড্রাইভার পিটিয়ে মেরেই ফেলেল ওই ডাক্তারের স্ত্রীকে। ড্রাইভার এর বেপরোয়া মারের গুরুতর আহত ডাক্তার ও তার সেবিকাকে এখন আশঙ্কাজনক অবস্থায় বর্ধমান মেডিকেল কলেজে ভর্তি।

বর্ধমান থানার ঠিক পিছনেই শহরের অভিজাত এলাকা খসবাগান। সেখানেই চারতলা বাড়ি ডক্টর সুব্রত নাগের। কর্মসূত্রে তার ছেলে থাকেন আমেরিকায়। স্ত্রী মৌসুমী,,পরিচালিকা জবা পরামানিক আর সেবিকা ফিরোজ মল্লিককে নিয়ে সংসার ডঃ নাগের। তার গাড়ি চালানোর কাজে নিযুক্ত ছিলেন তপন দাস নামে এক ড্রাইভার। আজ সেখানে বেলা সাড়ে চারটে নাগাদ ঘটলো বিপত্তি।

ডক্টর নাগের পরিচারিকা জবাব বলেন ” বাইরে থেকে মদ খেয়ে এসে ড্রাইভার তপন দাস ম্যাডামের কাজ থেকে তিন মাসের মাইনে অগ্রিম চাই, ম্যাডাম টাকা দিতে না চাইলে শুরু হয় জোর কথাকাটাকাটি। সেই সময় হাতের একটি লাঠি দিয়ে ম্যাডামের মাথায় বুকে বারবার মারতে থাকে তপন দাস ড্রাইভার। তাই দেখে ডাক্তার বাবু ও তার সেবিকা ফিরোজা মল্লিক ম্যাডাম কে বাঁচাতে গেলে তাদেরকেও বেধড়ক মারে তপন দাস। ঘটনাস্থলেই লুটিয়ে পড়েন ডঃ সুব্রত নাগ তার স্ত্রী মৌসুমী নাগ ও সেবিকা ফিরোজা মল্লিক”।

এদিকে পরিস্থিতি বেগতিক দেখে থানায় ফোন করেন পরিচালিকা জবা পরামানিক। কয়েক মিনিটের ভিতরেই পুলিশ এসে গ্রেপ্তার করে অভিযুক্ত ড্রাইভার তপন দাস কে। তবে তার আগেই ঘটনাস্থলে মারা যান ডাক্তার পত্নী মৌসুমী নাগ । বর্ধমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আশঙ্কাজনক অবস্থায় এখনও চিকিৎসাধীন রয়েছেন ডঃ নাগ ও তার সেবিকা ফিরোজা মল্লিক ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here