ফের বিজ্ঞপ্তিঃ দুর্গাপুর ব্যারাজে নতুন করে ভারি যান নিষিদ্ধ হচ্ছে ২১ দিন

0
528

মনোজ সিংহ, দুর্গাপুরঃ– দু’মাস গড়ানোর আগেই নতুন করে ফের যান চলাচলে নিষেধাজ্ঞা জারি দুর্গাপুর ব্যারাজে। সেই মর্মে নতুন একটি বিজ্ঞপ্তিও জারি করল বাঁকুড়া জেলা প্রশাসন, যা আবার কপালে ভাঁজ ফেলেছে বাঁকুড়া, পশ্চিম মেদিনীপুর আর পশ্চিম বর্ধমানের পরিবহন ব্যবসায়ীদের। চিন্তায় সাধারন ব্যবসায়ী, নিত্যযাত্রী থেকে বড়জোড়া শিল্প তালুকের পণ্যবাহী সংস্থাগুলির ও।
রাজ্য সেচ দপ্তরের দামোদর হেডওয়ার্কসের কায্য নির্বাহী বাস্তুকারের অনুরোধে, বাঁকুড়ার জেলা শাসক ডঃ উমাশংকর এস ব্যারাজে যান নিয়ন্ত্রনের যে নতুন বিজ্ঞপ্তি জারি করেছেন, তাতে স্পষ্ট করে বলা হয়েছে- ৪ নভেম্বর থেকে ১১ নভেম্বর রাত্রি ১১ টা থেকে ভোর ৩ টা পর্যন্ত কেবলমাত্র রোগী বহনকারি অ্যাম্বুলেন্স ও জুরুরিকালীন দমকলের গাড়ী ছাড়া সব ধরনের যানবাহন চলাচল নিষিদ্ধ করা হচ্ছে। তবে, ওই সপ্তাহকাল ভোর ৩ টা থেকে রাত ১১ টা পর্যন্ত পণ্যবাহী ভারি যান নিষিদ্ধ করা হলেও, দিনের বেলায় যাত্রীবাহী বাসকে ছাড় দেওয়া হয়েছে।
জেলাশাসকের নতুন বিজ্ঞপ্তিটি আরো জানাচ্ছে, ১২ নভেম্বর থেকে ২৫ নভেম্বর অব্দি দুর্গাপুর অভিমুখে আসার সিঙ্গঁল লাইনটি ভোর ৩টা থেকে রাত্রি ১০ টা অব্দি পণ্যবাহী ভারি যান ছাড়া সব ধরনের গাড়ির জন্য খুলে দেওয়া হবে। আবার ১২ নভেম্বর থেকে সংশ্লিষ্ট ১৪ দিনের জন্য রাত্রি ১০ টা থেকে ভোর ৩ টা অব্দি অবশ্য পন্যবাহী লরি সহ সব গাড়ীকেই দুর্গাপুরমুখী দক্ষিন লেন দিয়ে পারাপার করার ছাড় দেওয়া হয়েছে।
নতুন করে যান নিয়ন্ত্রনের বিজ্ঞপ্তির বিষয়ে বাঁকুড়ার জেলা শাসক ডঃ উমাশংকর এস বলেন, ” গত ১ অক্টোবর সেচ দপ্তরের দামোদর হেডওয়ার্কসের নির্বাহী বাস্তুকার দুর্গাপুর ব্যারাজের ওপর দিয়ে ১৬ অক্টোবর থেকে ২৩ অক্টোবর পর্যন্ত সব ধরনের যান চলাচলের নিষেধাজ্ঞা চেয়ে একটি আবেদন করেন”। তিনি জানান, ” ব্যারাজের সেতুর সড়কের ২ নম্বর লেনে জুরুরি মেরামতের জন্যই সেচ বিভাগ এই নিষেধাজ্ঞা চেয়েছে”। ব্যারাজের ২৯ নম্বর থেকে ৩৪ নম্বর গেট বরাবর সেতুর যে সড়ক তার মেরামতির জন্যই এখন উঠেপড়ে লেগেছে সেচ দপ্তর।
উল্লেখ্য, মেরামতির প্রয়োজনে দুর্গাপুর ব্যারাজের ওপর দিয়ে প্রথম নিষেধাজ্ঞা জারি হয় ৭ সেপ্টেম্বর। টানা পাঁচদিনের ওই নিষেধাজ্ঞার ধাক্কা সরাসরি লাগে বাঁকুড়ার বড়জোড়া শিল্প তালুকের কারখানাগুলির পাশাপাশি দক্ষিন ভারত থেকে আসানসোল দুর্গাপুরে আসা পণ্য পরিবহনেও।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here