হাতির গতিবিধি বুঝতে তৈরি হয়েছে ওয়াচ টাওয়ার, বেড়েছে সোনামুখী জঙ্গলের সৌন্দর্য

0
476

সংবাদদাতা, বাঁকুড়াঃ- সোনামুখী জঙ্গল লাগোয়া মানিক বাজার,কওরাশলি, মুশলো, বেলডাঙ্গা, পাথরমোড়া সহ বিস্তীর্ণ এলাকার সাধারণ মানুষের সারা বছরই কমবেশি হাতির আতঙ্কে রাত কাটাতে হয়। অনেক সময় হাতিকে বাগে আনতে রীতিমতো হিমশিম খেতে হয় বনদপ্তরের আধিকারিকদের। আর সে কারণে হাতির গতিবিধি সঠিকভাবে নির্ণয় করার জন্য সোনামুখী জঙ্গলে তৈরি করা হয়েছে এই “এলিফ্যান্ট ওয়াচ টাওয়ার” যেখান থেকে সহজেই হাতির গতিবিধি অনুভব করা সম্ভব।

বাঁকুড়া উত্তর বন বিভাগের আর্থিক সহযোগিতায় এবং সোনামুখী বনদপ্তরের উদ্যোগে সোনামুখী জঙ্গলে এই “এলিফ্যান্ট ওয়াচ টাওয়ার” তৈরি করা হয়েছে। এর ফলে বেড়েছে সোনামুখী জঙ্গলের সৌন্দর্য। প্রাথমিকভাবে দেখলে মনে হতেই পারে এটা কোনো ছোটখাটো একটা রিসোর্ট। কিন্তু তা নয় এটা একটা “এলিফ্যান্ট ওয়াচ টাওয়ার”। এই সৌন্দর্য দেখতে বিভিন্ন সময়ে সাধারণ মানুষ চলে আসছেন জঙ্গলে। যদিও সোনামুখী বনদপ্তরের পক্ষ থেকে সাধারণ মানুষের উদ্দেশ্যে বার্তা দেওয়া হয়েছে গভীর জঙ্গলে সাধারণ মানুষ যাতে না আসে। কেননা এতে যেকোনো সময়ে বিপদের আশঙ্কা থাকতে পারে। বনদপ্তরের এই উদ্যোগকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন সোনামুখী জঙ্গল লাগোয়া বিভিন্ন এলাকার সাধারণ মানুষ। এর ফলে বনদপ্তরের আধিকারিকরা হাতির গতিবিধি সহজেই অনুধাবন করতে পারবেন এবং লোকালয়ে হাতির অনুপ্রবেশ রুখতে পারবেন।

সোনামুখী বনাধিকারিক দয়াল চক্রবর্তী বলেন, হাতির গতিবিধি অনুভব করতে এবং হাতি লোকালয়ে প্রবেশ করছে কিনা তা বুঝতে এই “এলিফ্যান্ট ওয়াচ টাওয়ার” তৈরি করা হয়েছে। যাতে করে আমরা আগে থেকেই সাধারণ মানুষকে সচেতন করতে পারি। তবে সাধারণ মানুষকে জঙ্গলে না আসার বার্তা দিয়েছেন তিনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here