বঙ্গীয় সাহিত্য সম্মেলনে যোগদান করতে এসেছিলেন দুর্গাপুরে ১৯৯৫ এ পৌষ মাসে, সেই দিনের সাক্ষাৎকারের সময়ের কথা স্মৃতিচারণ করলেন ‘এই বাংলায়’ সম্পাদক মনোজ সিংহ

0
577

নিজস্ব প্রতিনিধি, দুর্গাপুরঃ- ভারতবর্ষের ত্রয়োদশ রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায় প্রয়াত হলেন আজ। সোমবার বিকেল সাড়ে ৫টা নাগাদ পুত্র অভিজিত্ মুখোপাধ্যায় টুইট করে জানালেন, বাবা আর নেই। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৮৪ বছর। সোমবার দিল্লির সেনা হাসপাতালে প্রয়াত হলেন ভারতের প্রাক্তন ত্রয়োদশ রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়৷ গত ১০ অগাস্ট থেকে দিল্লির সেনা হাসপাতালেই চিকিৎসাধীন ছিলেন বাঙালি তথা ভারতের গর্ব প্রণব মুখোপাধ্যায়৷

প্রণব মুখোপাধ্যায় ১১ ডিসেম্বর ১৯৩৫ সালে জন্ম গ্রহণ করেন। ৩১ আগস্ট ২০২০ সোমবার প্রয়াত হলেন। ভারতের ত্রয়োদশ রাষ্ট্রপতি হয়ে জুলাই, ২০১২-এ কার্যভার গ্রহণ করেন। তাঁর রাজনৈতিক কর্মজীবন ছয় দশকব্যাপী। তিনি ছিলেন ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের প্রবীণ নেতা। বিভিন্ন সময়ে ভারত সরকারের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রকের ভারপ্রাপ্ত মন্ত্রীর দায়িত্বও পালন করেছিলেন। ২০১২ সালের রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের আগে প্রণব মুখোপাধ্যায় ছিলেন ভারতের অর্থমন্ত্রী ও কংগ্রেসের শীর্ষস্থানীয় সমস্যা-সমাধানকারী নেতা।

প্রণব মুখোপাধ্যায়ের জন্ম অধুনা পশ্চিমবঙ্গের বীরভূম জেলার কীর্ণাহার শহরের নিকটস্থ মিরিটি গ্রামে। তার পিতার নাম কামদাকিঙ্কর মুখোপাধ্যায় ও মাতার নাম রাজলক্ষ্মী দেবী। প্রণব মুখোপাধ্যায় সিউড়ির বিদ্যাসাগর কলেজের ছাত্র ছিলেন। এই কলেজটি সেই সময়ে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত ছিল। প্রণব মুখোপাধ্যায় প্রায় পাঁচ দশক ভারতীয় সংসদের সদস্য। ১৯৬৯ সালে তিনি প্রথম বার কংগ্রেস দলের প্রতিনিধিস্বরূপ রাজ্যসভায় নির্বাচিত হন। এরপর ১৯৭৫, ১৯৮১, ১৯৯৩ ও ১৯৯৯ সালেও তিনি রাজ্যসভায় নির্বাচিত হয়েছিলেন। ১৯৭৩ সালে কেন্দ্রীয় শিল্পোন্নয়ন উপমন্ত্রী হিসেবে তিনি প্রথম ক্যাবিনেটে যোগদান করেন। এনডিএ প্রার্থী লোকসভার সাবেক স্পিকার মেঘালয়ের ভূমিপুত্র পিএন সাংমাকে ৭১ শতাংশের বেশি ভোটে হারিয়ে ভারতের রাষ্ট্রপতি পদে ইউপিএ প্রাথী প্রণব মুখার্জি নির্বাচিত হন। ২৫ জুলাই ২০১২ সালে আনুষ্ঠানিকভাবে রাষ্ট্রপতি হিসেবে শপথ নেন তিনি।

প্রণব মুখোপাধ্যায়ের রাজনৈতিক কর্মজীবন ছয় দশকব্যাপী। তিনি ছিলেন ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেসের প্রবীণ নেতা। ১৯৯৫ সালের পৌষ মাসে বঙ্গীয় সাহিত্য সম্মেলনে যোগ দিতে আসেন প্রণব মুখোপাধ্যায় দুর্গাপুরে। তার সঙ্গে ছিলেন উড়িষ্যার তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী বিজু পট্টনায়ক। সেই সময় তরুণ সাংবাদিক হিসেবে চ্যানেল ‘এই বাংলায়’ সম্পাদক মনোজ সিংহ সেই অনুষ্ঠানটি কভার করার দায়িত্ব পেয়েছিলেন। একটি একান্ত স্বল্পদৈর্ঘ্যের সাক্ষাৎকারে প্রণব মুখোপাধ্যায় সেই সময় তরুণ সাংবাদিক ও আজকের ‘এই বাংলায়’ ওয়েব পোর্টালের সম্পাদক মনোজ সিংহ কে বাংলাভাষা ও বাংলার ঐতিহ্যবাহী সংস্কৃতির সম্বন্ধে বিস্তারিত আলোচনা করেন। সম্পাদক মনোজ সিংহ সেই দিনের তার স্মৃতিচারণা করতে গিয়ে উল্লেখ করেন যে ” বহু বাঙালির সাথেই আমার ছোট্ট সাংবাদিক জীবনে সাক্ষাৎকার নিয়েছি, কিন্তু প্রণব মুখোপাধ্যায়ের মতন একজন নিষ্ঠাবান বাঙালি ও বিশ্বব্যাপী বাঙালি ও বাংলা ভাষার সম্মান অর্জনের যে আকুলতা দেখেছিলাম তা আর কারো মধ্যেই দেখিনি। তার ব্যক্তিত্ব ছিল খুব কঠোর কিন্তু তিনি কথা বলার সময় অত্যন্ত মৃদু ভাষায় জবাব দিয়েছিলেন আমার সমস্ত প্রশ্ন উত্তর। দু-একবার ইংরেজির দু একটি শব্দ ব্যবহার করায় তিনি মনোক্ষুন্ন হয়ে বলেন যে আপনারা বঙ্গীয় সাহিত্য সম্মেলন কভার করতে এসেছেন তাই শুদ্ধ বাংলাতেই প্রশ্ন করুন এবং বাংলা ভাষাকে সম্মান দিতে শিখুন । সেই দিনকার সেই সব কথা আজ খুব মনে পড়ছে । প্রয়াতঃ প্রণব মুখোপাধ্যায়ের সেই সব কথা আজ আমার জীবনের চলার পথে একটি দৃষ্টান্ত হয়ে রয়েছে। তার বিদেহী আত্মার চিরশান্তি কামনা করি। গভীর শোকের সঙ্গেই গোটা দেশ প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের দুর্ভাগ্যজনক মৃত্যুসংবাদ পেয়েছে৷ গোটা দেশের সঙ্গে আমিও তাঁকে শ্রদ্ধা জানাই৷ তাঁর শোকস্তব্ধ পরিবার এবং বন্ধুদের আমি গভীর সমবেদনা জানাই৷’ সেই অনুষ্ঠানের চিত্রগ্রাহক হিসেবে আমার সাথে ছিলেন বেনাচিটি বাজারের শালবাগানের নিবাসী তরুণ চিত্রগ্রাহক গৌতম মন্ডল । তার তোলা কিছু দুর্লভ ছবি আজ আমাদের ‘এই বাংলায়’ পাঠকদের জন্য তুলে ধরলাম। এই ছবিগুলি আমার জীবনের চির স্মরণীয় হয়ে থাকবে”।

প্রণব মুখোপাধ্যায়ের মৃত্যুতে ভারত হারালো একজন বিজ্ঞ ও দেশপ্রেমিক নেতাকে আর বাংলা হারালো একজন আপনজনকে। তিনি উপমহাদেশের রাজনীতিতে এক উজ্জ্বল নক্ষত্র হয়ে বেঁচে থাকবেন। প্রাক্তন রাষ্ট্রপতির মৃত্যুতে ৭ দিনের রাষ্ট্রীয় শোক ঘোষণা করা হয়েছে কেন্দ্রের তরফে। আগামীকাল সকাল ১০ টায় প্রণব মুখোপাধ্যায়ের পার্থিব শরীর তাঁর বাসভবনে নিয়ে আসা হবে। সেখানে অন্তিম দর্শনের জন্য তাঁর দেহ শায়িত থাকবে। কোভিড প্রোটোকল অনুযায়ী, তাঁর শেষকৃত্য সম্পন্ন হবে। জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত থাকবে। নিয়ম অনুযায়ী প্রাক্তন রাষ্ট্রপতির মৃত্যু হলে সাত দিনের রাষ্ট্রীয় শোক পালন করা হয়। সেই মতো সোমবার ৩১ অগস্ট থেকেই শুরু হবে সেই সাত দিন। চলবে আগামী ৬ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত।

দেশের প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের মৃত্যুতে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় গভীর শোকপ্রকাশ করেছেন। তার স্মরণে রাজ্যের সব সরকারি দফতর ও সরকারি পোষিত অফিস, প্রতিষ্ঠান ১ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার বন্ধ থাকবে। এ ছাড়া প্রয়াত প্রাক্তন রাষ্ট্রপতির যেদিন শেষকৃত্য সম্পন্ন হবে সেইদিনটিও একইভাবে সম্মান জানানো হবে। একইসঙ্গে জানানো হয়েছে, ১ সেপ্টেম্বর ছিল পুলিশ দিবস। তাই পুলিশ দিবস আগামী ৮ সেপ্টেম্বর পালিত হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here