জাল ডাক্তার কাণ্ডে আসলি-নাকলি দুই সরদারই শুধু এক গ্রামেরই নয় , পড়তোও সেই একই স্কুলেই

0
515

বিশেষ প্রতিনিধি, বাঁকুড়াঃ- তার ‘নেমসেক’ জাল ডাক্তার কে নিয়ে বিরম্বনার শেষ নেই ডাঃ সুদীপ্ত সর্দারের। কারণ গুচ্ছ গুচ্ছ প্রেসক্রিপশন, লেটারহেড এবং অন্তত কয়েক ডজন ডেথ সার্টিফিকেট এর হদিস ইতিমধ্যেই মিলেছে যাতে জালিয়াত সুদীপ্ত সরদার আসল ডাঃ সুদীপ্ত সরদারের নাম, রেজিস্ট্রেশন নম্বর দেদার ব্যবহার তো করেইছে , বিভিন্ন হাসপাতালে, নার্সিং হোমের সাথে ভুরিভুরি চিকিৎসা সংক্রান্ত চুক্তি করে বসে আছে , যার আঁচ এসে পড়েছে বাঁকুড়ার বড়জোড়ায় ।

বুধবার জাল ডাক্তারকে বাঁকুড়া কোর্টে হাজির করানো হচ্ছে । বাঁকুড়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বিবেক ভার্মা জানান “ওকে আরও সাত দিনের জন্য রিমান্ডে চাইব আমরা। লোকটার জালিয়াতির জাল আরো কত দূর বিস্তৃত ছিল, কারা কারা তাকে সাহায্য করতো , তার ব্যাংকে কিভাবে এবং কার মারফত টাকা জমা পড়ত- সে সব জানা বাকি আছে ।”

মঙ্গলবার সন্ধ্যা পর্যন্ত পুলিশি জেরায় জাল সুদীপ্তের কাছ থেকে যা জানা গেছে- দুই সুদীপ্ত’র বাড়ি শুধু বারুইপুরে, তাই নয় , ওরা দুজনেই একই স্কুলের ছাত্র । জাল সুদীপ্ত এরপর কলকাতার সেন্ট জেভিয়ার্স কলেজ থেকে বাণিজ্য বিভাগে স্নাতকের ডিগ্রি অর্জন করে। তারপর সে কম্পিউটার হার্ডওয়ার এর ডিপ্লোমা করার পর মেডিকেল রিপ্রেজেন্টেটিভ এর চাকরি নেয়। ঘুরতো বিভিন্ন নামী ডাক্তারের চেম্বারে চেম্বারে। এরই মাঝে যখন সে জানতে পারে তার স্কুলের একই নামের অন্য এক সুদীপ্ত সরদার ডাক্তারি পাশ করেছে , তখনই তার মাথায় জালিয়াতির দুর্বুদ্ধি খেলে যায় । ইতিমধ্যেই আসল ডাঃ সুদীপ্ত সরদার বাঁকুড়ার বড়জোড়া সুপার স্পেশালিটি হাসপাতাল মেডিকেল অফিসার হিসেবে যোগ দিলে, জাল ডাক্তার হাওড়ার বালি, শিলিগুড়ি, বর্ধমান সহ কলকাতার কয়েকটি পাড়ায় আসল ডাক্তারের নাম, রেজিস্ট্রেশন নম্বর ব্যবহার করে প্র্যাকটিস শুরু করে দেয় । বালির নার্সিংহোমে দুই কোভিদ রোগীর মৃত্যুর সংশয় পত্র হাতে পেয়ে আসল ডাঃ সুদীপ্ত সরদার গত ২৪ শে সেপ্টেম্বর বড়জোড়া থানায় জালিয়াতের বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগ দায়ের করলে, সোমবার জালিয়াতকে জলপাইগুড়ির রায়গঞ্জ থেকে গ্রেপ্তার করে বাঁকুড়ায় ধরে আনে জেলা পুলিশ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here