পশ্চিম বর্ধমানের প্রথম করোনা আক্রান্ত রোগী সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরলেন

0
2026

নিজস্ব সংবাদদাতা, দুর্গাপুর:- সারাদেশে যখন লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা, তখন আমাদের পশ্চিমবঙ্গেও তার ব্যতিক্রম নয়। তবুও অন্য সমস্ত রাজ্য থেকে পশ্চিমবঙ্গের সংক্রমণের সংখ্যা অনেকটাই কম। রাজ্য সরকারের তৎপরতার কারণেই এটা বলে মনে করছেন ওয়াকিবহাল মহল।

আমাদের রাজ্যের বেশ কয়েকটি জেলাকে ইতিমধ্যেই হটস্পট জোন ও ক্লাস্টার ভুক্ত জোন হিসেবে চিহ্নিত করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। পশ্চিম বর্ধমান জেলাকে ও অরেঞ্জ জোন বা নন স্পট জোন হিসেবে চিহ্নিত করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। পশ্চিম বর্ধমান জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে তৎপরতার সাথে করোনাভাইরাস মোকাবেলায় সচেষ্ট হয়েছে বিভিন্ন সরকারি দপ্তর ও স্বাস্থ্যকর্মীরা। জেলাতে খোলা হয়েছে একাধিক কোয়ারেন্টাইন সেন্টার। এরই মধ্যে পশ্চিম বর্ধমান জেলা থেকে বেশ কয়েকজনের দেহে করোণা সংক্রমণ লক্ষ্য করা গিয়েছিল। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে দ্রুততার সাথে তাদেরকে দুর্গাপুরে সরকারের নির্ধারিত কোভিড হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা চালানো হচ্ছে।

এরই মধ্যে একটি খবরে আশায় বুক বেঁধেছেন পুরো শিল্পাঞ্চল সহ পশ্চিম বর্ধমান জেলা। এই প্রথম কোন করোনা ভাইরাস আক্রান্ত রোগী সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেলেন দুর্গাপুরের সরকার নির্ধারিত কোভিড হাসপাতাল থেকে। জানা গেছে ৪০ বছর বয়স্ক এক পুরুষ রোগী আসানসোলের গোধূলি মোড়, জি টি রোড,থেকে গত ৬ এপ্রিল তারিখে আসানসোল জেলা হাসপাতালে ও পশ্চিম বর্ধমানের সি.এম.ও.এইচ পক্ষ থেকে ভর্তি করানো হয় দুর্গাপুরের সরকার নির্ধারিত কোভিড হাসপাতাল,সনোকা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে। ওই ব্যক্তির নমুনাতে ৪ এপ্রিল করোনা সংক্রমণ ধরা পড়েছিল। দুর্গাপুরের সরকার নির্ধারিত কোভিড হাসপাতাল, সনোকা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে ৭ দিন ভর্তি করে চিকিৎসা পর ১৩ ই এপ্রিল তার আবার করোনা পরীক্ষা করা হয়। ওই রোগীর এবার করোনা পরীক্ষায় ফল নেগেটিভ রেজাল্ট আসে ICMR-NICED, Kolkata থেকে। ১৫ ই এপ্রিল তার আবার নমুনা সংগ্রহ করে পাঠানো হয় ICMR-NICED, Kolkata পরীক্ষার জন্য। এইবারও সেটি নেগেটিভ রেজাল্ট এসেছে ICMR-NICED, Kolkata থেকে। এইমত অবস্থায় পরপর দুবার তার করোনা পরীক্ষায় ফল নেগেটিভ রেজাল্ট আশায় তাকে হাসপাতাল থেকে ডিসচার্জ করা হলো ১৬ ই এপ্রিল। ওই রোগীকে আরও ১৪ দিন তার বাড়িতে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার পরামর্শ দিয়েছেন জেলা স্বাস্থ্য আধিকারিকরা ও পশ্চিম বর্ধমানের সি.এম.ও.এইচ এর পক্ষ থেকে। এর থেকে আবার প্রমান হল রাজ্য সরকারের স্বাস্থ্য দপ্তরের সনোকা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালকে, কোভিড হাসপাতাল হিসেবে চিহ্নিত করা যথাযথ হয়েছে। এই খবর ছড়িয়ে পড়ার সাথে সাথে গোটা শিল্পাঞ্চলে এক আনন্দের বাতাবরণ তৈরি হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here