পুরো মাসের মাইনের টাকায় শতাধিক দুঃস্থ পরিবারকে ফুড কুপন শিক্ষক দম্পতির

0
514

সংবাদদাতা, অন্ডালঃ- দীর্ঘ কয়েক মাস ধরে করোনা মহামারির প্রকোপে লক ডাউন এর পরিস্থিতিতে যে ভাবে সাধারণ মানুষ কঠিন সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছেন তা যথেষ্ট বেদনাদায়ক। পশ্চিম বর্ধমান জেলা অন্তর্গত অন্ডালও এর ব্যতিক্রম নয়।  এখানে এক দিকে অনেকের  যেমন কাজ বন্ধ তেমনি অন্যদিকে হেঁসেলে দুবেলা হাঁড়ি চাপাতে হিমশিম খাচ্ছেন সাধারণ নিম্নবিত্তের পরিবার গুলি। রেশনে পাওয়া চাল বেশি দিন যেমন চলে না তাদের তেমনি রান্নার অন্যান্য সামগ্রীও কেনা দুঃসাধ্য একপ্রকার। কারোর আবার দুধের শিশু বাচ্চার নূন্যতম শিশুখাদ্য জোটে না, কেউ বৃদ্ধ বয়সে খাদ্যর অভাবে হাড় কঙ্কাল বেরিয়ে পড়া শরীরে অবহেলিত। এমতাবস্থায় এসব দুর্দশার কথা জানতে পেরে নিঃস্বার্থ ভাবে অন্ডাল স্টেশন সংলগ্ন কিছু এলাকার দুঃস্থ মানুষদের খাদ্য সংকট দুর করতে অণ্ডালের শিক্ষক দম্পতি। স্বামী শিক্ষক শোভন সরকার ও তার স্ত্রী শিক্ষিকা প্রিয়াঙ্কা সরকার।পূর্ব বর্ধমান সদর পশ্চিম চক্র অন্তর্গত জিয়ারা অবৈতনিক প্রাথমিক বিদ্যালয় এর শিক্ষক শোভন বাবু। তার স্ত্রী  প্রিয়াঙ্কা পশ্চিম বর্ধমান এর উখড়া চক্র অন্তর্গত দামোদর কলোনি অবৈতনিক প্রাথমিক বিদ্যালয় এর একজন প্রাথমিক শিক্ষিকা। প্রায় শতাধিক দুঃস্থ পরিবারগুলিকে পুরো মাসের মাইনের টাকায়  ফুড কুপন  তুলে দেন এই শিক্ষক দম্পতি। প্রয়োজন অনুসারে কাউকে ২৫০,কাউকে ৫০০ আবার কাউকে ১০০০টাকার ফুড কুপন দেওয়া হয়। যা দিয়ে স্থানীয় একটি মুদিখানা দোকানে ওই মূল্যের যে কোনো প্রয়োজনীয় সামগ্রী নিয়ে নিজেদের খাদ্য সংকট মেটাতে পারবে তারা। ইতিমধ্যেই প্রায় এক লাখের কাছাকাছি অর্থ দিয়ে  এ যাবত সেবা কাজ করছেন। স্থানীয় কুলডাঙ্গা, দাসপাড়া, শ্রীপল্লী, একের সাত কলোনী তে গিয়ে নিজেরাই এই কুপন বিলি করেছেন। এই শিক্ষক দম্পতি বলেন, “ঘরে বসে পুরো মাইনে পেয়ে নিজেদের সংসার লক ডাউনের সংকটকালে স্বচ্ছল ভাবে চালানোর চেয়ে প্রকৃত দুঃস্থ অনাহারে দিন চলা পরিবার গুলি কে খাদ্য সামগ্রীর যোগান দেওয়া আমাদের সামাজিক দায়বদ্ধতার মধ্যে পড়ে বলে মনে করি। “শিক্ষক নেতা ও সমাজসেবী চিরন্জিত ধীবর বলেন, “এই মহান কাজ আমি স্বচক্ষে দেখে এটুকুই বলতে পারি যে শিক্ষকরা কিন্তু এখনও সমাজের মেরুদন্ড। এই শিক্ষক দম্পতি কে কুর্নিশ জানাই তাদের এই মহানুভবতার জন্য। অনেকেই শুধুই নিজেদের কথা ভাবেন ও ঘরে বসে সমালোচনা করে যান তাদের আজ  কিন্তু শিখিয়ে দিয়ে গেলেন এই মহান ও উদার শিক্ষক দম্পতি তাদের সেবা কাজের মাধ্যমে। “

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here