নামেই পত্রিকা, তাই চালাতেই বছরে ২০ লক্ষ টাকা খরচ পুরুলিয়া প্রশাসনের

0
1371

বিশেষ প্রতিনিধি, পুরুলিয়াঃ- সরকারি সাময়িক পত্রিকা চালানোর জন্য লক্ষ লক্ষ টাকার তহবিল তছরুপের হদিশ দিল আউট রিপোর্ট। সেই আউট রিপোর্ট কে ঘিরে চাঞ্চল্য জেলার প্রশাসনিক মহলে। প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে – রাজনৈতিক চাপেই কি লক্ষ লক্ষ টাকা জলের মতো খরচ করলেন জেলা প্রশাসনের কর্তারা, নাকি প্রশাসনেই সর্ষের ভেতর ভূতের বাস?
‘একশো’য় একশো’ – এই নামে, একশ দিনের কাজের সাফল্যের খতিয়ান তুলে ধরতে রাজ্যের বেশ কিছু জেলায় সরকারি টাকায় সাময়িক পত্রিকা চালু করে মমতা বন্দোপাধ্যায়ের তৃনমূল কংগ্রেস পরিচালিত সরকার। পুরুলিয়া জেলাতেও প্রকাশিত হতে থাকে ওই পত্রিকা। যদিও নজরে বিশেষ পড়ে না, তবে, সম্প্রতি একটি আউট রিপোর্ট সকলকে চমকে দিয়ে চর্চার কেন্দ্র বিন্দুতে এখন ‘একশোয় একশ’।
কি আছে ওই আউট রিপোর্টে? এক কথায় দুর্নীতি, টাকা লুঠে সত্যি সত্যিই ১০০ তে ১০০ পেয়েছে পত্রিকা। আউট রিপোর্ট মোতাবেক, ২০১৮ সালের অগষ্ট, সেপ্টেম্বর – এই দু’মাসে পত্রিকা চালানোর জন্য খরচ হয়েছে ১১ লক্ষ ৭৫ হাজার টাকা। তাও আবার বিনা টেন্ডারে!
আউট রিপোর্ট বলছে – ২০১৮ র ৭ অগষ্ট পত্রিকাটির ডিজাইন, ওয়ার্কের জন্য প্রথমে ১.১৭ লক্ষ টাকা দেওয়া হয়। আবার, ২০১৮ র ১৮ সেপ্টেম্বরই ‘ডেটা ড্রিডেন ডকুমেন্ট’ র জন্য খরচ করা হয় ৩.২৩ লক্ষ টাকা। ফের ২০ সেপ্টেম্বর ছবি তোলার জন্য খরচ করা হয় ৩.২৩ লক্ষ টাকা। অর্থাৎ, এক মাসেই পত্রিকার ডিজাইন, ডেটা আর ছ’দিনের ছবি তোলার মোট খরচ হল ৭.৩৪ লক্ষ টাকা। কিন্তু এখনেই শেষ নয়। আউট রিপোর্ট মোতাবেক, ওই ২০ সেপ্টেম্বরই এক অবাঙালী কম্পুটার সেন্টার মালিককে আলাদা করে ৪.৪১ লক্ষ টাকা দেয় জেলা প্রশাসন। বিনা টেন্ডারে। পৌনে ১২ লক্ষ টাকা খরচ হয়ে গেল নিছক কোটেশ্যান নিয়ে। চারটি বেসরকারি সংস্থার কাছে কোটেশ্যান নেওয়া হয়। পুরুলিয়া জেলা সিপিএমের দাবি, “পত্রিকাটির খাতে এক বছরে ২০ লক্ষ টাকা করা হয়েছে। আমরা নতুন করে ফরেনসিক অডিটের দাবি তুলেছি। এমন কি পত্রিকা যার জন্য গরীব মানুষের ২০ লক্ষ টাকা খরচ হল? তদন্ত হোক”।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here