রাতের অন্ধকারে বেআইনি ভাবে গাছ কেটে বিক্রি সুন্দরবনে

0
279

সংবাদদাতা, ক্যানিং:- সুন্দরবন মানে পশুপাখি কাদাবন আর জঙ্গল, সবটাই শেষ হতে চলেছে, রাতের অন্ধকারে বেআইনি ভাবে গাছ কেটে বিক্রি করা হচ্ছে। এর ফলে আইলা, ফনি, বুলবুল বহুমুখী ঘূর্ণিঝড় আছড়ে পড়ছে সুন্দরবনের উপর। এমনকি শীতের সময় সুন্দর বনে পরিযায়ী পাখিরা আসা বন্ধ হয়ে গেছে এক প্রকার। যেমন অবলুপ্ত হতে চলেছে চড়ুই, কাঁক, দোয়েল, টুনটুনি পাখিরা। এরা গাঁইছে বাসা বাঁধতো থাকতো। এই সমস্ত পাখিগুলো বাঁচার তাগিদে মানুষের পরিবারের অন্তর্ভুক্ত হয়েছিল। পরে পরে বৃক্ষ বাসা বাধা চড়ুই, কাঁক, দোয়েল, টুনটুনি লুপ্ত হয়ে গেছে আমাদের সমাজ থেকে। কাঁক পাখিটি আমাদের সকলেরই এক ডাকে চেনা যাকে বলা হয় সাথী ঝাড়ুদার পাখি। সুন্দরবনে পর্যটন কেন্দ্র হলেও এখন আর কাকের আনাগোনা দেখা যায় না। প্রায় অবলুপ্ত হতে চলেছে। এই সবুজ বনানী ও নদী ঘেরা সুন্দরবন কে রাষ্ট্রপুঞ্জ জীবমণ্ডল ও আন্তর্জাতিক ঐতিহ্যময় ভূখণ্ড হিসেবে ঘোষনা হলেও, সেদিকে খেয়াল করছে না সরকার। অবলুপ্ত হতে চলেছে কিছু বিরল প্রজাতির পাখি। সুন্দরবনের বুলবুল ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়া এলাকার পাখিদের কথা মাথায় রেখে তাদের বাসস্থান করছেন, সুন্দরবনের ভূমিপুত্র স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা, জয় গোপাল পুর গ্রাম বিকাশ কেন্দ্রর সম্পাদক বিশ্বজিৎ মহাকুড়। তিনি বলেন যে বুলবুল ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকার মানুষদের জন্য গৃহ লোন, শস্যবীমা করে দেয়া হচ্ছে সরকারের পক্ষ থেকে। কিন্তু যাদের কথা কেউ ভাবেনি, আমরা সংগঠনের পক্ষ থেকে এই সমস্ত পাখিদের জন্য বাসস্থান তৈরি করে দেওয়া ব্যবস্থা করছি। এই অভিনব উদ্যোগ দেখে খুশি এলাকার সাধারণ মানুষজন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here