গৌরবাজারে দূর্গা মন্দির উদ্বোধন , সোনামুখীতে পুজো কমিটির গুলির হাতে সাহায্যের চেক

0
502

সংবাদদাতা, লাউদোহা ও বাঁকুড়া :-

বাঙালির শ্রেষ্ঠ উৎসব দুর্গোৎসব । এই পুজোকে কেন্দ্র করে পশ্চিমবঙ্গের মানুষ ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে মেতে ওঠেন। গৌরবাজার মাঝ পাড়া দূর্গামন্দির উদ্বোধন হল আজ ১৯০৯ সালে। এই মন্দির স্থাপিত হয়। প্রথম এখানে মায়ের মন্দির ছিল তালপাতার তৈরী, পরে খড়ের ছাওনি দিয়ে তৈরী হয় মায়ের মন্দিরের ছাদ। প্রায় ১০০ বছরের বেশি পুরনো মন্দির নতুন রূপে সজ্জিত আজ। সম্পূর্ণ মন্দির টি নির্মাণে প্রায় চারশ বাড়ীর থেকে অনুদান । এই আনুদানেই তৈরি এই মন্দির, প্রায় কুড়ি লক্ষ টাকা ব্যয়ে এই মন্দির ।
আজয় নদ থেকে বারি আনতে  যায় প্রায় শখানেক কুমারী মেয়ে ।দীর্ঘ প্রায় এক কিলোমিটার পায়ে হেঁটে বারির জল আনা হয় ।
আজকে এই মন্দির নতুন রূপে সজ্জিত হলে এলাকার প্রচুর মানুষ মায়ের মন্দিরে মা কে দর্শন করতে ভিড় জমান ।


এই এলাকায় এক সময় প্রায় সকলেই ছিল চাষ বাসের উপর নির্ভরশীল। আজকে যুগের সাথে সাথে পরিবর্তন এসেছে মানব সমাজেও। আধুনিকতার ছোঁয়া লেগেছে মন্দির প্রাঙ্গণে ও । নতুন রূপে আধুনিকতার ছোঁয়ায় দেখবার মত মন্দির নির্মাণ করেছেন বর্তমান প্রজন্মের লোকেরা।
এই মন্দিরের শুভ উদ্বোধন করেন আসানসোলের মেয়র তথা পান্ডবেশ্বরের বিধায়ক জিতেন্দ্র তিওয়ারি। আবার বাঁকুড়ায় সোনামুখীর রথ তলায় পুজো কমিটির গুলির হাতে তুলে দেওয়া হল আর্থিক সাহায্যের চেক । দূর্গাপুজো কে আরো উজ্জীবিত করতে এবং ক্লাবগুলোকে উৎসাহ যোগাতে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রেজিস্টার ক্লাব গুলিকে আর্থিক সাহায্য দিচ্ছেন। এদিন বাঁকুড়ার সোনামুখীর রেজিস্টার প্রাপ্ত দুর্গাপূজার কমিটিগুলোকে আর্থিক সাহায্য তুলে দেয়া হয়।

এদিন সোনামুখী শহরের আটটি ক্লাবের হাতে ২৫ হাজার টাকা আর্থিক সাহায্য তুলে দেয়া হয়ে। তাদের হাতে আর্থিক সাহায্য তুলে দেন বিষ্ণপুর সাব ডিভিশনের এসডিপিও সুব্রত বক্সি মহাশয়। তিনি জানান সোনামুখী থানার অন্তর্গত মোট ২৩ টি ক্লাবের হাতে আর্থিক সাহায্য তুলে দেয় হবে । এদের মধ্যে একটি মহিলা পরিচালিত সার্বজনীন দুর্গোৎসব কমিটির হাতে ৩০,০০০ টাকার আর্থিক সাহায্য তুলে দেওয়া হয় ।

আজকের এই কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন বিষ্ণুপুর সাব ডিভিশনের এসডিপিও প্রীয়ব্রত বক্সী, সোনামুখী থানার ওসি আবদুস সামাদ আনসারী , সোনামুখী পৌরসভার পৌর প্রধান সুরজিৎ মুখার্জী, সোনামুখী ব্লকের পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি প্রাণব রায় সহ একাধিক বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ।

সোনামুখী মনোহর তলা সার্বজনীন দুর্গোৎসব কমিটির এক সদস্য সোমনাথ ব্যানার্জি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন। তিনি বলেন গতবছর ১০,০০০ পেয়েছিলাম এবছর ২৫,০০০ টাকা পেলাম । এছাড়াও তিনি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এই উদ্যোগকে স্বাগত জানান। সুব্রত বক্সী মহাশয় বলেন, মাননীয় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে আমরা পুজো কমিটি গুলিকে চেক বিতরণ করছি। এছাড়াও তিনি বলেন আরও কিছু পুজো কমিটিকে আর্থিক সাহায্য দেওয়ার বিবেচনা চলছে সরকারি নির্দেশ পেলে তাদেরকেও আর্থিক সাহায্য করা হবে।

২৫,০০০ টাকার আর্থিক সাহায্য পেয়ে খুশি পুজো কমিটির উদ্যোক্তারাও।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here