কাঁটাতারের ব্লেডে ক্ষতবিক্ষত হয়ে মৃত্যু চিতা বাঘের, নিশানায় চা বাগান কর্তৃপক্ষ

0
464

সংবাদদাতা, কলকাতাঃ- ব্লেডের কাঁটাতার ঘেরা চা বাগান পার হতে গিয়ে মৃত্যু ঘটল একটি চিতাবাঘের। আলিপুরদুয়ারের কালাচিনির চা বাগানে এদিন উদ্ধার হয় ওই চিতাবাঘটি। মানুষ এবং বন্যপ্রানীর সাথে লড়াই সব সময় লেগেই থাকে। তাছাড়া গভীর জঙ্গল গুলিতে উভয়ের দন্ধ আমরা সবাই জানি। কখনও লোকালয়ে হাতি, আবার কখনও বাঘের উৎপাত, এই সব পশুর থেকে মুক্তি পেতে মানুষ বন্য প্রানীকে নিধন করে। বন বিভাগ থেকে হাজার বার সতর্ক করা সত্বেও মানুষ কোনো কথাই শোনে না। কালাচিনির বিচ চা বাগানে এদিন চিতাবাঘের মৃত্যু ফের সেটাই প্রমান করল। সাধারন মানুষের তৈরী মরন ফাঁদে পা দিয়ে মৃত্যু ঘটল প্রাপ্তবয়স্ক একটি স্ত্রী চিতাবাঘের। বন দপ্তর সূত্রে জানা গেছে, এদিন জলদাপাড়া জাতীয় উদ্যান থেকে এই প্রাপ্তবয়স্ক চিতাবাঘটি বেরিয়ে গিয়েছিল। কাছেই চা বাগানটি পুরোপুরি ব্লেডযুক্ত কাঁটা তার দিয়ে ঘেরা ছিল। রাতের অন্ধকারে ব্লেডযুক্ত কাঁটা তার পেরোতে গিয়ে চিতাবাঘটি এতটাই জখম হয় যে তার শরীর থেকে প্রবল রক্তক্ষরণ হতে থাকে। কিছুক্ষনের মধ্যেই চিতাবাঘটি মৃত্যুর মুখে ঢলে পড়ে। ইতিমধ্যেই জলদাপাড়া জাতীয় উদ্যানের বন বিভাগের পক্ষ থেকে চিতা বাঘটির মৃত্যু মেনে নেওয়া হয়েছে। এরপর বাঘটির মৃতদেহ উদ্ধার করে সেটিকে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠিয়ে দিয়েছে নীলপাড়া রেঞ্জের বন কর্মীরা। জলদাপাড়ার ডিএফও কুমার বিমল জানিয়েছেন, “কাঁটা তারের ফাঁদে পড়েই চিতাবাঘটির মৃত্যু হয়েছে। বাঘটির গলায় তারের ফাঁদের চিহ্ন পাওয়া গিয়েছে। তবে বাঘটির মৃত্যু কিভাবে হয়েছে তা এখনো স্পষ্ট জানা যায়নি। কুমার বিমল এও বলেন চা বাগান কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে আমরা কঠোর আইনি ব্যাবস্থা নিচ্ছি”। বাগান কর্তৃপক্ষের সঙ্গে এ বিষয়ে যোগাযোগ করার চেষ্টা হলেও তাদের এখনো অব্দি সাড়া মেলেনি। অবশ্য বন দপ্তরের একংশ জানিয়েছেন চিতা বাঘটির মৃত্যু জন্য দায়ী বাগান কর্তৃপক্ষের দেওয়া ধারালো ব্লেডযুক্ত কাঁটাতার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here