১৫ দিনের জন্য কার্যত ‘লকডাউন’ রাজ্যে

0
385

সংবাদদাতা, কলকাতাঃ- রাজ্যে ক্রমশ বেড়েই চলেছে করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা। কোনভাবেই সংক্রমণের হার কমানো যাচ্ছে না , তাই আজ রাজ্য ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট অথরিটি করোণা সংক্রমণ ঠেকাতে নতুন করে বেশ কিছু বিধিনিষেধ চালু করল। পশ্চিমবঙ্গ সরকারের প্রধান সচিব একটি বিজ্ঞপ্তি জারি করে জানিয়েছেন কোভিড সংক্রমণ রুখতে আগামী ১৬/০৫/২১ রবিবার থেকে সকাল ৬ টা থেকে ৩০ শে মে বিকেল ৬ টা পর্যন্ত জনগণের উদ্দেশ্যে কিছু নিয়ম কানুন নতুন করে চালু করলেন।

এক নজরে দেখে নেওয়া যাক সেই বিজ্ঞপ্তিতে কি রয়েছেঃ-

১। সব স্কুল ,কলেজ ,পলিটেকিক ও বাকি সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে।

২। সব সরকারি-বেসরকারি অফিস ও প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে। সুদু মাত্র অত্যাবশ্যকীয় পরিষেবা চালু থাকবে।

৩। রাজ্যে থাকা সমস্ত শপিং কমপ্লেক্স ,মল, মার্কেট কমপ্লেক্স , স্পা , বিউটি পার্লার , সিনেমাহল , রেস্তোরাঁ , বার , স্পোর্টস কমপ্লেক্স , জিম, সুইমিং পুল, বন্ধ থাকবে।

৪। সকাল ৭ টা থেকে ১০ টা অবধি খোলা থাকবে দোকানপাট ও বাজার গুলি খোলা থাকবে। বিশেষত যেখানে সবজি ,ফল , আনাজ , দুধ, পাউরুটি , মাংস , ডিম পাওয়া যায় সেই সব দোকান ।

৫। মিষ্টির দোকান খোলা থাকবে সকাল ১০ টা থেকে বিকেল ৫ টা অবধি।

৬। সোনার দোকান ও কাপড় জামার দোকান খোলা থাকবে দুপুর ১২ টা থেকে ৩ টে অবধি ।

৭। ওষুধের দোকান, চশমার দোকান স্বাভাবিক সময় খোলা থাকবে।

৮। রাজ্যের সব লোকাল ট্রেন, মেট্রো ট্রেন , আন্তঃরাজ্য বাস পরিষেবা ও জল পরিবহন সম্পূর্ণভাবে বন্ধ থাকবে তবে কিছু ক্ষেত্রে জরুরী ও অত্যাবশ্যক ব্যক্তিদের জন্য ছাড় দেওয়া হয়েছে।

৯। রাজ্যে সব রকমের ব্যক্তিগত বাহন ,ট্যাক্সি , অটোরিকশা পরিষেবা বন্ধ থাকবে। তবে ছাড় দেওয়া হয়েছে হাসপাতাল , নার্সিংহোম , ডায়াগনস্টিক সেন্টার , ক্লিনিক , ভ্যাক্সিনেশন সেন্টার , এয়ারপোর্ট , টার্মিনাল পয়েন্ট ও মিডিয়া হাউসে যাওয়া-আসা করার জন্য ছাড় থাকবে।

১০। আন্তঃরাজ্য ট্রাক পরিষেবা সম্পূর্ণভাবে বন্ধ থাকবে। শুধুমাত্র ওষুধ , অক্সিজেন , খাদ্যসামগ্রী , দুধ , মাছ , মাংস ,পেট্রোল , ডিজেল ও এলপিজি গ্যাস কে ছাড় দেওয়া হয়েছে।

১১। রাজ্যে থাকা সমস্ত কলকারখানা ও উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানগুলি সম্পূর্ণভাবে বন্ধ থাকবে । শুধুমাত্র যেসব সংস্থা ওষুধ ও কোভিড সংক্রান্ত সরঞ্জাম , অক্সিজেন ও কিছু বিশেষ ক্ষেত্রে খাদ্যসামগ্রী প্যাকেজিং ইউনিট গুলিকে ছাড় দেওয়া হয়েছে।

১২। রাজ্যে থাকা সমস্ত চাবাগান এ ৫০ % লোক দিয়ে কাজ করা যাবে।

১৩। রাজ্যে থাকা জুটমিল গুলিকে ৩০% হারে লোক নিয়ে কাজ করতে পারবেন।

১৪। রাজ্যে সমস্ত ই-কমার্স ও হোম ডেলিভারি চালু থাকবে।

১৫। রাজ্যের সমস্ত ব্যাংক ও আর্থিক সংস্থাগুলি সকাল ১০টা থেকে ২ টো পর্যন্ত কাজ করতে পারবে।

১৬। রাজ্যে অবস্থিত সমস্ত পেট্রলপাম্প ,গাড়ি সারাইয়ের দোকান গুলি ও এলপিজি গ্যাসের অফিস ও পরিষেবা চালু থাকবে।

১৭। রাজ্যে অবস্থিত প্রিন্ট, ইলেকট্রনিক মিডিয়া, সোশ্যাল মিডিয়া , এম এস ও এবং কেবিল অপারেটর গুলি চালু থাকবে।

১৮। যেকোনো রকম বিবাহ বাড়িতে মাত্র ৫০ জন উপস্থিত হয়ে সোশ্যাল ডিসটেন্স মেনে কাজ করতে পারবেন।

১৯। মৃতদেহ সৎকারের জন্য সর্বোচ্চ ২০ জনের অনুমতি দেওয়া হয়েছে । কিন্তু কঠোরভাবে মানতে হবে ফিজিক্যাল ডিসটেন্সইন ।

২০। রাত ৯টার পর থেকে সকাল ৫ টা অবধি সব কিছু বন্ধ, কেবলমাত্র এমার্জেন্সির ক্ষেত্রে অনুমতি। শুধুমাত্র স্বাস্থ্যকর্মী, আইন শৃঙ্খলা রক্ষা করা কর্মী ও অত্যাবশ্যক সামগ্রীর যানবাহন চলাচল করতে পারবে। অর্থাৎ নাইট কার্ফু।

রাজ্যের সমস্ত জেলাশাসক ,পুলিশ আধিকারিক এবং জনপ্রতিনিধিদেরকে এই বিধিনিষেধ গুলি কঠোরভাবে যাতে মানা হয় তা দেখতে হবে । এইসব বিধির কোথাও উলঙ্ঘন হলে ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট অ্যাক্ট ২০০৫ ইন্ডিয়ান পিনাল কোডের অনুযায়ী আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে উক্ত লকডাউন অমান্যকারীদের ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here