তৃণমূলের ‘খেলা হবে’-র পাল্টা, কংগ্রেস, বামফ্রণ্ট ও আই.এস.এফ জোটের ‘লড়াই হবে’ স্লোগানে মুখরিত হলো শহরের আকাশ-বাতাস

0
223

জ্যোতি প্রকাশ মুখার্জ্জী, গুসকরা:- তৃণমূলের ‘খেলা হবে’-র পাল্টা কংগ্রেস, বামফ্রণ্ট ও আই.এস.এফ জোটের ‘লড়াই হবে’ স্লোগানে মুখরিত হলো গুসকরা শহরের আকাশ-বাতাস। আউসগ্রাম বিধানসভার জোটের প্রার্থী চঞ্চল মাজির হয়ে ৭ ই এপ্রিল গুসকরায় প্রচারে এসে এবারের বিধানসভা ভোটে আলোড়ন সৃষ্টিকারী নন্দীগ্রামের জোট প্রার্থী তথা ভারতের গণতান্ত্রিক যুব ফেডারেশনের রাজ্য সভাপতি মীনাক্ষী মুখার্জ্জী গুসকরা বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন মাঠে আয়োজিত এক নির্বাচনী জনসভায় বললেন – লড়াই হবে, তবে সেটা কাজের জন্য লড়াই , মহিলাদের নিরাপত্তার জন্য লড়াই, বন্ধ কলকারখানা খোলার জন্য লড়াই । তৃণমূল পরিচালিত রাজ্য সরকার ও বিজেপি পরিচালিত কেন্দ্রীয় সরকারের তিনি তীব্র সমালোচনা করেন। কিভাবে গত দশ বছর ধরে তৃণমূল রাজ্যটাকে পেছিয়ে দিয়েছে একের পর এক উদাহরণ দিয়ে তা তিনি উপস্থিত জনগণের সামনে তুলে ধরেন। টেট কেলেঙ্কারি, প্রতি বছর এস.এস.সি না হওয়ার জন্য কিভাবে শিক্ষিত বেকার যুবক-যুবতীদের স্বপ্নভঙ্গ হচ্ছে তাও তিনি তুলে ধরেন। একইসঙ্গে তিনি বিজেপির বিভেদের রাজনীতি থেকে মানুষকে দূরে থাকতে পরামর্শ দেন। বিজেপি সম্পর্কে তিনি বলেন – নতুন কারখানা তৈরী না করে কেন্দ্রীয় সরকার একের পর এক সরকারি প্রতিষ্ঠান বিক্রি করে দিচ্ছে। তিনি দৃঢ় কণ্ঠে বলেন এবারের জোট ক্ষমতায় আসছে এবং এক বছরের মধ্যে সমস্ত সরকারি শূন্যপদ পূরণ করা হবে। এখানে কোনো সি.এ.এ বা এন.আর.সি হবেনা। তার জন্য জোট নেতৃত্বাধীন সরকার আইন তৈরী করবে। এর আগে চঞ্চল মাজির পক্ষে তিনি আউসগ্রামে আরও একটি জনসভা করেন। দুটি জায়গাতেই যথেষ্ট ভিড় হয়। বিশেষ করে আদিবাসীদের ভিড় ছিল চোখে পড়ার মত। অন্যত্র সভা থাকায় মীনাক্ষী দেবী গুসকরায় হাজির হওয়ার আগেই প্রার্থী চঞ্চল মাজি চলে যান।
সভায় উপস্থিত ছিলেন সিপিএমের জেলা কমিটির সদস্য আলমগীর মণ্ডল ও রবীন টুডু, প্রবীণ কংগ্রেস নেতা চঞ্চল মণ্ডল, সুদীপ মজুমদার প্রমুখ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here