৫৬ বছর পর ‘মৃত’ দাদাকে ফিরে পেলেন ভাই, হ্যাম রেডিওর প্রচেষ্টায়

0
371

সংবাদদাতা, সোদপুরঃ-

প্রায় ধরেই নিয়েছিলেন দাদা আর বেঁচে নেই। প্রশাসনের তরফ থেকে ডেথ সার্টিফিকেটও দেওয়া হয়ে গিয়েছিল। কিন্তু ‘হ্যাম রেডিওর’ দৌলতে প্রায় ‘মৃত’ দাদাকে পুনরায় ফিরে পেলেন তারই ভাই। প্রায় ৫৬ বছর পর। দীর্ঘদিন বাদে নিজের পরিবারকে কাছে পেয়ে আনন্দে আল্লাদ এই ভবঘুরে বৃদ্ধ। প্রায় অনেকদিন ধরেই ৭৮ বছরের বৃদ্ধ চারু সেন সোদপুর ষ্টেশনের প্যাল্টফরমেই থাকতেন। হঠাৎই একদিন তিনি ‘হ্যাম রেডিওর’ নজরে আসেন। হ্যাম রেডিওর তরফ থেকে একাধিকবার চারু সেনকে তার পরিবারের কথা জিজ্ঞাসাবাদ করলেও তিনি কিছুই বলতে পারেন নি। তবে কথা বলতে বলতে হ্যাম রেডিও বৃদ্ধের কাছ থেকে এটা জানতে পারে যে, চারু সেনের এক ভাই ও বোনের কথা। চারু সেনের কাছ থেকে টুকরো টুকরো তথ্য নিয়ে চারু সেনের ভাইয়ের খোঁজ নেওয়া শুরু করেন রেডিও অপারেটররা। স্থানীয় তথ্যে জানা যায়, বৃদ্ধের ভাই ওড়িষ্যায় বর্তমানে জানা যায়। এরপর স্থানীয় তথ্যে জানা যায় চারু সেন ২০ বছর বয়সে একদিন হঠাৎই বাড়ি থেকে উধাও হয়ে যায়। পরিবারের তরফ থেকে বিভিন্ন জায়গাতে খোঁজ লাগালেও চারু সেনকে পাওয়া যায়নি। অনেকদিন খোঁজ না পাওয়ায় প্রশাসনের পক্ষ থেকে চারু সেনের ডেথ সার্টিফিকেটও দিয়ে দেওয়া হয়। স্বাভাবিক ভাবেই দাদার খোঁজ পাওয়ার আশা করতেন না ভাই অযোধ্যা। ফলে, হ্যাম রেডিওর কর্তৃপক্ষকে দাদার কথা জানাতেই ভাই অযোধ্যা উচ্ছাসে ফেটে পড়েন। তাড়াতাড়ি করে দাদার খোঁজ মিলতেই অযোধ্যা উড়িষ্যা থেকে শোধপুরে হাজির হন। দাদাকে ফিরে পেতেই অযোধ্যা খুব খুশি। হ্যাম রেডিওকে অযোধ্যা এই কাজের জন্য ধন্যবাদ জানিয়েছেন। পশ্চিমবঙ্গ রেডিও ক্লাবের সম্পাদক অম্বরীশ নাগ বলেন, “চারুকে তার পরিবার মৃত বলেই জানত। আমরা চারুকে তার পরিবারের হাতে ফিরিয়ে দিতে পেরে তাতেই খুশি”। চারুর পরিবার হ্যাম রেডিওর এই প্রচেষ্টাকে সাধুবাদ দিয়েছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here