ভাতে দেরীঃ এক চড়ে দ্বিতীয় বউকে মেরে সাইকেলে চড়ে গুসকরায় প্রথম বউ’র কাছে এসে ধৃত জিয়া

0
577

সংবাদদাতা, বর্ধমানঃ- ভাত দিতে দেরী কেন? – এই রাগে এক চড়ে বউ কে মেরে ঝাড়খন্ডের দুমকা থেকে পালিয়ে এসে আরেক বউ এর সাথে ঘর করছিল মহাবীর চালক ওরফে জিয়া। কিন্তু, শেষ রক্ষা আর হল না। বউ-ই তাকে ধরিয়ে দিল পুলিশের হাতে।
তিন সন্তানের পিতা জিয়া গুসকরা পুর এলাকার বাসিন্দা। পেশায় জন মজুর জিয়া দেড় বছর আগে হঠাৎই পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়ে পাশের গ্রাম ওড় গ্রামের দুই সন্তানের মা ছায়া মাজি (৩৩) র সাথে। কিছুদিনের মধ্যেই ছায়া কে নিয়ে পালিয়ে গিয়ে দুমকায় বাসা বাঁধে জিয়া। সাথে ছায়ার ১২ বছরের ছেলে চাঁদ। জিয়া র ভাই অর্জুন সেখানে আগে থেকেই বসবাস করে। চাঁদ কে রাখে তার কাছে।
তিনদিন আগে, ভাত দিতে দেরী হওয়ায় বচসা আর তার জেরে ছায়ার গালে সপাটে একটি চড় কষিয়ে দেয় জিয়া। সাথে সাথেই মারা যায় ছায়া। মৃত ছায়া কে ফেলে রেখে সাইকেল চালিয়ে ১২০ কিমি পথ পেরিয়ে জিয়া পালিয়ে আসে গুসকরায়। ওঠে প্রথম পক্ষের স্ত্রী লেবুনি চালকের কাছে। লেবুনি’র কথায়, “ফিরে এসে ভাল মানুষের মতো ঘরের কাজ কর্মে লেগে পড়ে জিয়া। বুঝিনি ও ছায়াকে মেরে রেখে এসেছে।”
গত কালই অ্যাম্বুলেন্সে ছায়ার দেহ নিয়ে গুসকরায় হাজির হয় অর্জুন। তারপরই পর্দা ফাঁস। স্থানীয় ক্লাবের ছেলেদের ডেকে পুলিশে খবর দিয়ে শেষমেষ জিয়াকে ধরিয়ে দিল লেবুনি। এ ঘটনায় এলাকায় বিস্তর চাঞ্চল্য। পূর্ব বর্ধমানের ডেপুটি সুপার অরিজিৎ পাল চৌধুরি বলেন, “গুসকরার কুনুর নদীর পাশে মৃতা’র দেহ ফেলে পালায় অ্যাম্বুলেন্সটি। তারা জিয়া’র খোঁজ করছিল।”
এদিকে, ছায়ার দেহটি নদীর ধারে পড়ে থাকায় শেষ পর্যন্ত তার সৎকারের ব্যবস্থা করতে এগিয়ে আসে তার প্রথম স্বামী কার্তিক মাঝি। তাতে যোগ দেয় লেবুনির সন্তানও।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here