লকডাউন এ নেই পরিচারিকার কাজ, তবুও আয়ের দিশা দেখিয়েছে নদীতে ভাসতে থাকা ম্যানগ্রোভের ফল

0
340

রঞ্জিত সর্দার, সুন্দরবনঃ- পরিচারিকার কাজ করে নির্বাহ করতেন সংসার। প্রতিদিন ট্রেনে করে ছুটতেন কলকাতায়। ট্রেন বন্ধ থাকায়  নদীর পাড়ে থাকা কয়েক হাজার মানুষের তাই এখন জীবন-জীবিকার সংকট। কিন্তু মাতলা নদীতে ফল কুড়িয়ে ম্যানগ্রোভের চারা লাগিয়ে তারা ফিরে পেয়েছে নতুন জীবিকার সন্ধান। আমফান পরবর্তী পর্যায়ে রাজ্য সরকার প্রায় তিন কোটি ম্যানগ্রোভের চারা রোপণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সেইমতো বেশ কিছুদিন ধরে ম্যানগ্রোভের  চারা তৈরি করা হচ্ছে বিভিন্ন নার্সারিতে। তবে অন্যান্য নার্সারীর সঙ্গে এই নার্সারি গুলোর যথেষ্ট পার্থক্য আছে। কারণ ম্যানগ্রোভের নার্সারি গুলো এমন জায়গায় তৈরি করতে হবে যেখানে নদীর নোনা জলে জোয়ার ভাটা খেলতে পারে। সেইমতো গোসাবার বিভিন্ন গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকাতে ক্যানিংয়ের মাতলা ১ ,নিকারীঘাটা এবং বাসন্তী পঞ্চায়েতে বানানো হয়েছে এই ম্যানগ্রোভের নার্সারি। যে নার্সারিতে কাজ করছেন প্রায় বেশীর ভাগ মহিলারাই।

নার্সারিতে কাজ করা এক মহিলা বলেন আগে আমরা কলকাতায় বাবুর বাড়িতে পরিচারিকার কাজ করতাম। এখন লকডাউন এর কারণে কেউ আর কাজে যেতে পারছিনা। ভাইরাসের জন্য কাজে লোকও নিচ্ছে না অনেকেই। এই পরিস্থিতিতে সংসার চালানোই মুশকিল। কিন্তু বর্তমানে ম্যানগ্রোভের গাছের দানা কুড়িয়ে ফল সংগ্রহ করে এবং তা টবে ভোরে চারা তৈরি করছি। পুরো কাজটাই চলছে বেশ অনেকদিন ধরেই। তাতে কিছু আয়  ইনকাম বেড়েছে।

এ বিষয়ে ক্যানিং পশ্চিম এর বিধায়ক শ্যামল মন্ডল বলেন, আম ফান বুলবুলের পরে তিন কোটি ম্যানগ্রোভ গাছের চারা লাগানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজ্য সরকার। পুরোটাই 100 দিনের কাজের মাধ্যমেই হচ্ছে। যার বেশির ভাগ কাজই করছেন পরিচয় শ্রমিক ও পরিচারিকা মহিলারা।

এ বিষয়ে মাতলা ১ গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান হরেন ঘড়ুই বলেন “আমরা ম্যানগ্রোভ চারা তৈরি এবং সেগুলো বিভিন্ন গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকাগুলিতে বসিয়ে মহিলাদের ব্যাপক পরিমাণে কর্মসংস্থান সৃষ্টি করার চেষ্টা করেছি। কারণ কর্মহীন হয়ে যাওয়া বহু মানুষের কর্মসংস্থান করাই এখন আমাদের একমাত্র উদ্দেশ্য। প্রায় কুড়ি লক্ষ গাছের চারা আমরা তৈরি করার পরিকল্পনা নিয়েছে।” অরণ্য সপ্তাহ থেকে শুরু করেন বিশ্ব ম্যানগ্রোভ দিবসেও প্রচুর গাছের চারা বসানো হয়েছে সাগর, পাথরপ্রতিমা, গোসাবা ,বাসন্তী কুলতলী, কাকদ্বীপ,  নামখানা সহ দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার বিভিন্ন নদীর চর এলাকাতে। সেই সমস্ত এলাকায় গাছের চারা সরবরাহ করার দায়িত্ব  আছে এই সমস্ত পঞ্চায়েত গুলিতে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here