NRS আঁচে স্বাস্থ্য পরিষেবার দফারফা দুর্গাপুরেও, জট কাটার আশা

0
1236

নিউজ ডেস্ক, এই বাংলায়ঃ এনআরএস কান্ডের পর এক সপ্তাহের বেশি অতিবাহিত হলেও সোমবারও কাটল না দেশ তথা রাজ্য জুড়ে চলা চিকিৎসকদের কর্মবিরতি। আর IMA তথা ইন্ডিয়ান মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশনের পূর্ব নির্ধারিত বিবৃতি বহাল রেখেই সোমবার দেশজুড়ে কর্মবিরতিতে সামিল হয়েছে AIIMS সহ দেশের সরকারী ও বেসরকারী হাসপাতালের সমস্ত চিকিৎসকেরা। ব্যতিক্রম নয় দুর্গাপুর মহকুমা হাসপাতালও। IMA এর দেখানো পথে হেঁটেই সোমবার সকাল থেকে দুর্গাপুর মহকুমা হাসপাতালের আউটডোরে দেখা মিললো না কোনও চিকিৎসকের। সকাল থেকে দূর-দূরান্ত থেকে রোগীরা এলেন, টকেন কাটলেন কিন্তু দীর্ঘ সময় ধরে অপেক্ষা করা সত্বেও কোনও চিকিৎসকের দেখা পাওয়া গেল না। হাসপাতালে ইন ডোর পরিষেবা চালুব থাকলেও আউটডোর এবং ওটি পরিসেবা বন্ধ রাখা হয়েছিল। অন্যদিকে দীর্ঘক্ষন এই তীব্র দাবদাহে বসে থেকে থেকে চিকিৎসক না আসায় দুর্গাপুর মহকুমা হাসপাতালের কাউন্টারে ব্যাপক বিক্ষোভ দিতে থাকে। আর এই পরিস্থিতিত কবে ঠিক হবে সেই নিয়েও এখনও কোনও সদুত্তর পাওয়া যায়নি। একই অবস্থা বাঁকুড়া সম্মিলনী মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালেরও। যদিও সেখানে কর্মবিরতি চললেও দায়িত্ব থেকে সরে আসেননি তারা। কর্মবিরতি চলাকালীনই সম্মিলনী মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে ভর্তি মুমূর্ষু রোগীদের রক্ত সংকট মেটাতে এগিয়ে এলেন তারা। সোমবার সকাল থেকে জুনিয়ার ডাক্তাররা হাসপাতালের বাইরেই সমস্ত রকমের রোগীদের চিকিৎসার কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। রোগীদের কোনওরকম অসুবিধার সম্মুখীন যাতে হয় সেদিকে নজর রেখে হাসপাতালের বাইরেই ওপেন আউটডোর চালু রেখেছেন তারা। ওপেন আউটডোরে চিকিৎসা পেয়ে স্বভাবতই রোগী ও তাদের পরিজনের। তবে এখানেই থেমে থাকলেন না তারা। রাজ্য তথা দেশ জুড়ে চিকিৎসকদের কর্মবিরতি এবং রোগীদের পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চত্বরেই অবস্থানরত জুনিয়র ডাক্তারা নিজেরাই স্বেচ্ছায় রক্তদান করলেন। বর্তমান পরিস্থিতিতে হাসপাতালে কোনওভাবেই যাতে রক্তের ঘাটতি না হয় সেই জন্য এদিন প্রায় ২৫ জন জুনিয়র চিকিৎসক স্বেচ্ছায় রক্তদান করলেন।