পশ্চিম মেদিনীপুরে ১৫ জন গোঁজ প্রার্থী সহ ২০ জনকে বহিষ্কার করল তৃণমূল

0
539

সংবাদদাতা, পশ্চিম মেদিনীপুর:- দল বিরোধী কার্যকলাপের অভিযোগে ১৫ জন ‘নির্দল’ প্রার্থী সহ মোট ২০ জন নেতা-নেত্রী’কে বহিষ্কার করল পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা তৃণমূল নেতৃত্ব। বুধবার মেদিনীপুর শহরে জেলা পরিষদের সভাগৃহে অনুষ্ঠিত এক সাংবাদিক বৈঠকে বহিষ্কারের কথা ঘোষণা করেন পৌরসভা নির্বাচনের দুই কো-অর্ডিনেটর যথাক্রমে- মন্ত্রী মানস রঞ্জন ভূঁইয়া ও বিধায়ক অজিত মাইতি। এদিনের সাংবাদিক বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন, দুই সাংগঠনিক জেলার সভাপতি ও দুই চেয়ারম্যান যথাক্রমে- সুজয় হাজরা, আশিস হুদাইত, দীনেন রায় (বিধায়ক ও এমকেডিএ চেয়ারম্যান), অমল পন্ডা এবং রাজ্য সম্পাদক প্রদ্যোৎ ঘোষ (প্রাক্তন বিধায়ক)।

এই বহিষ্কারের ফলে পদ হারালেন, খড়্গপুর শহর তৃণমূলের যুব সভাপতি অসিত পাল (ছোটকা) এবং ক্ষীরপাই শহর তৃণমূল কংগ্রেসের ৪ নং ওয়ার্ডের সভাপতি মনোজ হালদার। এছাড়াও বহিষ্কৃত নেতা-নেত্রীদের মধ্যে খড়্গপুর পৌরসভার যারা রয়েছে তারা হলেন যথাক্রমে- রিনা শেঠ, জগদম্বা গুপ্তা, তপন প্রধান, সুমিতা দাস, জয়া পাল। এর মধ্যে, তপন, জগদম্বা, সুমিতারা তৃণমূল ছেড়েই কংগ্রেসের প্রার্থী হয়েছিলেন। রিনা শেঠও একইভাবে সিপিআই প্রার্থী হয়েছেন। তবে, জহর পালের বৌমা জয়া পাল ‘নির্দল’ হিসেবে প্রার্থী হয়েছিলেন ৩৫ নং ওয়ার্ডে। তাকে বহিষ্কার করা হয়েছে এবং শাস্তি স্বরূপ ওই পরিবারেরই সদস্য জহর পালের ছেলে অসিত পাল (ছোটকা)-কে শহর যুব সভাপতির পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হচ্ছে। তবে, বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ জহর পাল যেহেতু ৩৩ নং ওয়ার্ডের তৃণমূল প্রার্থী তাই তাকে বহিষ্কার করা হয়নি।

অন্যদিকে, মেদিনীপুর পৌরসভার যারা বহিষ্কৃত হয়েছেন, তারা হলেন যথাক্রমে- সৌরভ বিষই (১১ নং ওয়ার্ডের নির্দল প্রার্থী), ডাঃ এরশাদ আলি (১৩ নং ওয়ার্ডের নির্দল প্রার্থী), বিশ্বেশ্বর নায়েক এবং তার স্ত্রী অর্পিতা রায় নায়েক (১৪ নং ওয়ার্ডের প্রার্থী), সোমা মাইতি (২০ নং ওয়ার্ডের নির্দল প্রার্থী) ও তাঁর শ্বশুর মশাই হিমাংশু মাইতি, কংগ্রেস প্রার্থী অঞ্জলি চৌধুরী ও স্বামী স্বপন চৌধুরী, নির্দল প্রার্থী অঞ্জনা রায় এবং নির্দল প্রার্থী মানস দাস। এক্ষেত্রে, মানস দাসের বাবা প্রয়াত মণিলাল দাসকেও বহিষ্কৃত নেতার তালিকায় রাখা হয়েছে। অন্যদিকে, ঘাটাল সাংগঠনিক জেলার ক্ষীরপাই পৌরসভার ৪ নং ওয়ার্ডের নির্দল প্রার্থী সুনিতী হালদার ও তার ছেলে মনোজ হালদারকে বহিষ্কার করা হয়েছে। স্বাভাবিকভাবেই ওয়ার্ড সভাপতির দায়িত্ব থেকেও সরানো হয়েছে মনোজকে। এছাড়াও, যথাক্রমে চন্দ্রকোনা পৌরসভার ৪ নং ওয়ার্ডের নির্দল প্রার্থী ওসমান গেনি এবং রামজীবনপুর পৌরসভার ৭ নং ওয়ার্ডের নির্দল প্রার্থী অসিত সরকার-কেও বহিষ্কার করা হয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস থেকে।

মূলত নির্দল বা গোঁজ প্রার্থী দিয়ে দলকেই বিপদে ফেলার চেষ্টা করছিল বহিষ্কৃতরা। দলীয় নেতৃত্বের হুঁশিয়ারি সত্ত্বেও প্রার্থী তোলা হয়নি। অবশেষে, রাজ্য নেতৃত্বের সঙ্গে আলোচনা করে এই বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত বলে জানিয়েছেন তৃণমূল জেলা নেতৃত্ব।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here